kalerkantho


ভ্রমণ : চাকরি-বাকরি ছেড়ে দুনিয়া চষে বেড়ানো জুটি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৬:৪৩



ভ্রমণ : চাকরি-বাকরি ছেড়ে দুনিয়া চষে বেড়ানো জুটি

জীবনের যাবতীয় ব্যস্ততাকে বিদায় দিয়ে দূরে ভ্রমণে বেরিয়ে যাওয়ার মতো মজার আর কী হতে পারে? আর যদি ভ্রমণপিয়াসী হয়ে থাকেন, তো চার দেয়ালের মাঝে কখনই মন টেকেন না। আজ এখানে ভ্রমণের কোনো স্থানের কথা না বলে এক দম্পতির কথা বলা হলো। এরা সত্যিকার অর্থেই ভিদিত তানিজা এবং সাভি মুঞ্জালের মনটা সব সময় দূরে কোথাও পড়ে থাকে। একই জিনিসের প্রতি তাদের দুয়ের একই ভালোলাগা দুজনকে আরো কাছে এনেছে। আরে সেই আবেদনে সাড়া দিয়েছেন দুজনই। একটা পর্যায়ে তারা নিজেদের গতানুগতিক চাকরি ছেড়ে দিলেন। ঘুরতে শুরু করলেন একযোগে। ভ্রমণটাকেই চাকরি হিসেবে নিলেন তারা। দশ বছর ধরে ভ্রমণের পর সেই পাহাড়সমান অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে শুরু করলেন। 

তারা বললেন, যেসব দেশে পর্যটকরা যেতে চান না তেমন ৫০টি দেশে ভ্রমণ করলাম আমরা। এর পরই আত্মীয়-বন্ধুরা প্রতিসপ্তাহেই ইমেইল পাঠিয়ে আমাদের আরো পরামর্শ দিতে থাকলেন। তারা আমাদের অভিজ্ঞতা প্রকাশের অনুরোধ করলেন। আমাদের পরামর্শ চাইলেন যেন অন্যরা ভ্রমণে গেলে উপকার পান। 

তাদের পাসপোর্টে শত শত ভিসা আর স্ট্যাম্প পড়েছে। একটি ব্লগ চালু করলেন যার নাম দিলেন 'ব্রুইসড পাসপোর্ট'। আক্ষরিক অর্থেই তাদের পাসপোর্ট ক্ষত-বিক্ষত বলেই মনে হয়। এগুলো এত বেশি ব্যবহৃত হয়েছে যে এমনই চেহারা পেয়েছে। 

তাদের মতে, ভ্রমণ কেবল কোনো স্থানে ঘুরতে যাওয়াই নয়। সেই স্থানকে জানা ও বোঝার বিষয় আছে। এ পর্যন্ত তারা ৮২টি দেশে ভ্রমণ সেরে ফেলেছেন। তারা কখনও নামকরা তালিকা ঘেঁটে কোনো স্থান নির্বাচন করেননি। একটি দেশে যতটা সম্ভব সময় ব্যয় করে সেই দেশটিকে দেখার ও বোঝার চেষ্টা করেছেন তারা। 

ইন্টারনেটে এখন অনেক ভ্রমণকারীই তাদের অভিজ্ঞতা বয়ান করেন। তাদের রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। তবে এই দম্পতি এ কাজটিকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গেছেন। ভ্রমণ বিষয়ে তাদের বর্ণনাও দারুণ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। 'ব্রুইসড পাসপোর্টস' এমন এক ব্লগ যা কিনা ভ্রমণ ছাড়াও আরো অনেক কিছু দেয়। ভ্রমণ মানেই যে অসম্ভব সুন্দর কোনো স্থানে স্বপ্নের ভ্রমণ তা নয়। আরো অনেক কিছুই আছে। ভ্রমণে গিয়ে জীবনটা এলোমেলো হয়ে যেতে পারে। আর তা গুছিয়ে আনার অনেক কিছুই শিখতে পারবেন তাদের কাছে। 

ভ্রমণে সঙ্গী থাকলে কতটা আনন্দময় ও সুবিধাজনক হয় সেই কাজ, তা দুজন বুঝিয়ে দিয়েছেন। আরেকটা প্রশ্ন থেকেই যায়- ভ্রমণে তো খরচ লাগে। এই পয়সা তারা কোত্থেকে পাবেন? আসলে চাকরি-বাকরি বাদ দিয়ে ভ্রমণ তারা কীভাবে করলেন? ভ্রমণ বিষয়ক ব্লগের কিন্তু অনেক চাহিদা। এটা থেকেই তারা ভ্রমণের পয়সা তুলে ফেলতে পারেন। 

খোলা মনে ভ্রমণ করলে পথে কোনো সমস্যা সাধারণত হয় না বলেই জানিয়েছেন তারা। যেখানেই যান সেখানেই স্থানীয়দের সহায়তা পাবেন। তবে আপনাদের তেমনটাই মনে হবে। আর তা করতে পারলেই নতুন স্থান আর নতুন মানুষগুলো আপনার আপনজনের মতোই হয়ে উঠবে। 
সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস 


মন্তব্য