kalerkantho


ভ্রমণে বাচ্চারা সমস্যা নয়, যদি থাকে প্রস্তুতি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৮:৩৩



ভ্রমণে বাচ্চারা সমস্যা নয়, যদি থাকে প্রস্তুতি

ভ্রমণপ্রিয় দম্পতিরা দারুণ সময় কাটাতে পারেন। তারা এখানে-সেখানে ঘুরতে যান।

প্রচুর অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেন। কিন্তু এমন অনেক ভ্রমণবিলাসী দম্পতিদের একটাই ভয়, পরিবারে নতুন অতিথি এলে পরে ভ্রমণের সুযোগটাই আর থাকে না। কিন্তু সেই ভয় আর করতে হবে না। কারণ, বাচ্চাটিকে নিয়ে অনায়াসে পর্যটক বনে যেতে পারবেন আগের মতোই। কোলের শিশু নিয়েও দিব্যি ঘুরে আসা যায়। সেই বয়ানই করেছেন এক দম্পতি।  

ওই দম্পতি বলছেন, আসলে বাচ্চাকে নিয়ে বেড়ানো খুবই কঠিন বিষয়। যদি তা দীর্ঘ ভ্রমণ হয়, তবে তো কথাই নেই। কিন্তু তাকে নিয়েও ঘোরা অনেক সহজ হয়ে ওঠে।

যদি বিশেষ কিছু ব্যবস্থা নেন। পরামর্শগুলো বুঝে নিন।  

অনেক অনেক পরিকল্পনা 
কী কী জিনিস নেবেন তার জন্যে গুগল ডকস এর সহায়তা নিন। আপনার, বাচ্চার এবং সঙ্গীর জন্যে যাবতীয় জিনিসের তালিকা করে ফেলুন। এটা নিয়ে দুজন আলোচনা করুন। ছোটখাটো জরুরি জিনিসগুলো বেখেয়ালে ফেলে গেলে বিপদ। এগুলো বুঝে শুনে ব্যাগে ভরুন। ভ্রমণের অন্তত এক সপ্তাহ আগে এই পরিকল্পনা করে ফেলুন।  

নতুন খেলনা 
ভ্রমনে বাচ্চারা অনেক সময়ই একেঘেয়েমিতে ভুগতে শুরু করে। তখন তাদের শান্ত রাখাটাই কঠিন হয়ে পড়ে। এ কারণে নতুন কিছু খেলনা কিনে নিন। বিরক্ত করতে শুরু করলে নতুন একটা খেলনা ধরিয়ে দেবেন। ভ্রমণের আগে কিন্তু আবার এই খেলনাগুলো তাকে দেখাবেন না। নতুন কিছু পেলেই বাচ্চাটি খুশি হয়ে উঠবে। রং বেরংয়ের খেলনা বা জিনিসপত্র ওর জন্যে গুছিয়ে রাখুন।  

বেসিনে সিট 
এটা বাচ্চাদের নিরাপত্তা দেয়। গাড়িতেই যান কিংবা বিমানে, একটি বেসিনেট সিট সঙ্গে নিলে বাচ্চার নিরাপত্তা ও আরাম নিয়ে কোনো চিন্তা করতে হবে না। এমনকি আপনার বাচ্চা এটাতে বসে থাকা পছন্দ না করলেও ওর জন্যে খেলার মাধ্যম হয়ে উঠবে এটি।  

বাড়তি জিনিস 
বাচ্চার জন্যে অবশ্যই বাড়তি কিছু কাপড়, ডায়পার এবং অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে নেবেন।  

বাচ্চার পোশাক 
ওদের কয়েক স্তরে পোশাক পরিয়ে নিন। অবশ্য তা আবহাওয়ার তাপমাত্রার ওপর নির্ভর করে। শীত হলে এই বুদ্ধি প্রয়োগ করতে পারেন। অতিরিক্ত শীত বা গরমে বাচ্চারা অস্থির হয়ে ওঠে। তা ছাড়া কাপড় নষ্ট করলে যেন একটি খুলে অন্য একটা সহজে পরিয়ে দিতে পারেন সে ব্যবস্থা রাখুন।  

স্টলার এবং ক্যারিয়ার 
যদি পাহাড় বা উঁচু-নিচু পথে চলাচল করতে হয়, তবে বাচ্চার জন্যে স্টলার খুবই দরকারি। আর আরামে হাঁটার জন্যে ক্যারিয়ার। এ ছাড়া যে শিশুরা বুকের দুধ পান করছে, তাদের জন্যে সে কাজেও ক্যারিয়ার খুবই উপকারী। বিমানে গেলে বিমানবন্দরে শিশুটার জন্যে একটা স্টলার দিতে অনুরোধ করতে পারেন। ওটা নিয়ে আরামের সঙ্গে অন্তত বোর্ডিং পর্যন্ত কাজ সারা যাবে।  

হোটেলে প্যান্ট্রিসহ কক্ষ নিন 
ভালো মানের হোটেলে এই ব্যবস্থা থাকে। অনেক কক্ষ রয়েছে প্যান্ট্রিসহ। এমনই একটা কক্ষ বেছে নিন। এতে করে ওর জন্যে যখনই প্রয়োজন হবে তখনই খাবারটা তৈরি করে নিতে পারবেন।  

ঘুমের সময় ঘোরাফেরা
দিনের বড় একটা সময় শিশুটা ঘুমিয়ে কাটাবে। এই সুযোগে আপনারা চারদিকে ঘোরাফেরার কাজটি ঝামেলাবিহীনভাবে সেরে ফেলতে পারেন। এর জন্যে ক্যারিয়ার বেশ সহায়ক হবে। তা ছাড়া গাড়ির সিটেও শিশুরা আরামে ঘুমাতে পারে। ওর ঘুমের সময় ওকে সঙ্গে নিয়েই আপনার বেরিয়ে যেতে পারেন।  

অতিরিক্ত ব্যাগ নয় 
এটা অবশ্য বলার চেয়ে করা বেশ কঠিন। সবাই ভাবেন যে যতটা সম্ভব কম ব্যাগ বা লাগেজ নিয়ে ভ্রমণে বের হবেন। কিন্তু তা আর হয়ে ওঠে না। কিন্তু বিষয়টা বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে করার চেষ্টা করুন। আসলে বাচ্চাকে নিয়ে ভ্রমণ করলে কাঁধে খুব বেশি ওজন সহনীয় হয় না। সুখী পর্যটকদের অন্যতম রহস্য কম ওজন বহন করা। আসলে ফালতু জিনিস না নিলেই এই ঝামেলা চুকে যায়।  

উপভোগ করুন 
বাচ্চার বিরক্তি প্রকাশকেও উপভোগ করা যায়। তাকে খেলাধুলার জন্যে মুক্ত করে দিন। এটা করলে সবাই মিলে অনেক মজা করতে পারবেন। বাচ্চারা কিন্তু নতুন পরিবেশে মানিয়ে নিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিতে পারে। তাই সব ভুলে সবকিছু উপভোগ করতে থাকুন। কোনো সমস্যাকেই সমস্যা মনে হবে না।  
সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস 


মন্তব্য