kalerkantho

পেইজ রিভিউ

যে পেইজটি গণহত্যার কথা বলে

গৌরাঙ্গ নন্দী   

২৩ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যে পেইজটি গণহত্যার কথা বলে

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালের সবচেয়ে করুণ ও নৃশংস পর্বটি হচ্ছে হত্যা, গণহত্যা, নির্যাতন। মুক্তিযুদ্ধের এই বিশেষ দিকটি নিয়ে খুলনায় ২০১৪ সালে গড়ে উঠেছে ‘১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর’। মুক্তিযুদ্ধকালের নানা স্মৃতিচিহ্ন নিয়ে জাদুঘর যেমন সাজানো হচ্ছে, তেমনি গণহত্যা নিয়ে চলছে ব্যাপক গবেষণা, পঠন-পাঠন ও প্রকাশনা। আছে গ্রন্থাগারও। এই প্রতিষ্ঠানটি নিজেদের কর্মকাণ্ড সবার কাছে তুলে ধরতে পরিচালনা করে একটি ফেইসবুক পেইজ—1971: Genocide-Torture Archive & Museum।

এতে প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে আয়োজিত নানা অনুষ্ঠানের খবরাখবর পরিবেশিত হয়। অনুষ্ঠানের আগের পর্বের খবর যেমন থাকে, তেমনি অনুষ্ঠানের খবরও থাকে। এতে নিয়মিত মুক্তিযুদ্ধকালের স্মরণীয় নানা ছবিও প্রকাশ করা হয়।

এই পেইজ থেকে নিয়মিত ফেইসবুক লাইভও করা হয়। এ পর্যন্ত দুটি লাইভ হয়েছে। একটিতে ছিলেন এই আর্কাইভ ও জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন এবং অন্যটিতে লাইভে ছিলেন শহীদ বুদ্ধিজীবী আলতাফ মাহমুদের মেয়ে শাওন মাহমুদ। দুটি অনুষ্ঠানই এখন পেইজে পাওয়া যাবে। চাইলে আগ্রহী দর্শকরা দেখতে পারবেন।

প্রায় ৪০ মিনিট ধরে এই অনুষ্ঠানে আগত অতিথিরা যুদ্ধদিনের কথা, তাঁর অভিজ্ঞতার কথা, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে কাজ করার ভালো লাগা, মন্দ লাগা প্রভৃতির কথা বলেন। শ্রোতারাও সরাসরি প্রশ্ন করতে পারেন।

২০১৯ সালের ১ মার্চ থেকে প্রতিদিনের ঘটনা ফেইসবুক পেইজে আপলোড করা হচ্ছে।

একাত্তরের ২৫ মার্চ গণহত্যার এক কালরাত। সেই রাতটি সামনে রেখে ২৫ মার্চ থেকে প্রতিদিন বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত গণহত্যা নিয়ে পোস্ট দেওয়া হবে। থাকবে কোথায় কিভাবে গণহত্যা সংঘটিত হয়েছে; কতজন হত্যার শিকার হয়েছেন; হত্যাকাণ্ডের প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষাৎকার, অনুভূতি ও প্রতিক্রিয়া।

এই জাদুঘরটি বর্তমানে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণা কেন্দ্র নামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এই কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক রোকনুজ্জামান বাবুল বলেন, ‘বছরব্যাপী গণহত্যার তথ্য উপস্থাপনের জন্য দিনভিত্তিক তথ্য সন্নিবেশিত হয়েছে, যা এখন নির্দিষ্ট দিনে আপলোড করা হবে।’

গণহত্যা নিয়ে গবেষকরা কোনো নতুন তথ্য পেলেও তাঁরা তা এই পেইজে আপলোড করছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মন্তব্য