kalerkantho


বেসিস, বিসিএস, আইএসপিএবি ও বাক্যের প্রতিক্রিয়া

আমদানি উৎসাহিত হবে, দাম বাড়বে

টেক প্রতিদিন ডেস্ক   

১১ জুন, ২০১৮ ০০:০০



আমদানি উৎসাহিত হবে, দাম বাড়বে

সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ

২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সফটওয়্যারের আমদানি শুল্ক ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে, প্রত্যাহার করা হয়েছে মূল্য সংযোজন কর (মূসক)। এতে বাংলাদেশে তৈরি হয়—এমন সফটওয়্যার আমদানিতে উৎসাহ বাড়বে এবং এর ফলে দেশীয় সফটওয়্যারশিল্প বিকশিত হবে না। পাশাপাশি মূল্য সংযোজন কর অব্যাহতি প্রত্যাহার করায় কম্পিউটার ও এর যন্ত্রাংশের মূল্য প্রায় ১১ শতাংশ বাড়বে। ইন্টারনেট ব্যবহারের সহায়ক ডিভাইস যেমন—মডেম, ইথারনেট ইন্টারফেস কার্ড, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সুইচ, হাব, রাউটার, সার্ভার ব্যাটারির ওপর থাকা ২২.১৬ শতাংশ ভ্যাট ও শুল্কও প্রত্যাহার করা হয়নি। ইন্টারনেটশিল্পের প্রসারে বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা প্রয়োজন।

গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশের তথ্য-প্রযুক্তি খাতের শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠনগুলো।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর জানান, অপারেটিং সিস্টেম, ডাটা বেইস, ডেভেলপমেন্ট টুল এবং সাইবার সিকিউরিটি সফটওয়্যার আমদানির ওপর থেকে শুল্ক কমানোর জন্য প্রস্তাব দিয়েছিল বেসিস। কিন্তু ঢালাওভাবে প্রায় সব ধরনের সফটওয়্যারের আমদানি শুল্ক কমানো হয়েছে। পাশাপাশি তথ্য-প্রযুক্তিনির্ভর সেবার মূসক বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে। এসব বিষয় পুনর্বিবেচনার প্রস্তাবও করেন তিনি।

উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কমিপউটার সমিতির (বিসিএস) সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার, ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি (আইএসপিএবি) এম এ হাকিম এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিংয়ের (বাক্য) সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান শরীফ।

 



মন্তব্য