kalerkantho


২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসের কফিনে শেষ পেরেক

নূরে আলম সিদ্দিকী

২৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসের কফিনে শেষ পেরেক

১৯৭১ সালের আগ পর্যন্ত ২৩ মার্চ উদ্‌যাপিত হতো পাকিস্তান দিবস বা লাহোর প্রস্তাব দিবস হিসেবে। এদিন পাকিস্তানের পতাকায় আচ্ছন্ন হয়ে থাকত রাস্তাঘাট, অফিস-আদালত, দোকানপাট সব। যেদিকে তাকাতাম, চাঁদ-তারা আর চাঁদ-তারা। মনে হতো যেন রাত ঘনিয়ে এসেছে চারদিকে। এ বছরই, সম্ভবত মার্চ মাসের ১৮-১৯ তারিখ  আবদুর রাজ্জাকের উপস্থিতিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাকে, অর্থাৎ তৎকালীন ছাত্রলীগের সভাপতিকে নির্দেশ দিয়েছিলেন, আর নয়, এবার পাকিস্তান দিবসের পরিবর্তে ২৩ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের পতাকা উঠবে। প্রতিটি যানবাহনে, ভবনে, সব কার্যালয়ে, উচ্চ আদালতে উত্তোলিত হবে ওই পতাকা। আবদুর রাজ্জাক নিজেও তাঁর স্মৃতিচারণায় এ কথা বলেছিলেন। এই নির্দেশনার আলোকে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের পূর্বঘোষিত ও সুস্পষ্ট পরিকল্পনার অংশ হিসেবে পতাকা উত্তোলন দিবস পালনের ঘোষণা করা হয়। এটি প্রদীপ্ত সূর্যের মতো সত্য যে শুধু পল্টনেই নয়, সমগ্র দেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা ও মহকুমা শহরেও ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ডাকে একযোগে স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত পতাকা উত্তোলন করা হয় এদিন। এমনকি ঢাকার প্রতিটি দূতাবাসেও পাকিস্তানের চাঁদ-তারাওয়ালা পতাকার পরিবর্তে উত্তোলিত হয় বাংলাদেশের পতাকা। আরো উল্লেখযোগ্য তথ্য হলো, জুলফিকার আলী ভুট্টো অবস্থান করা অবস্থায় ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে পর্যন্ত উত্তোলন করা হয় লাল-সবুজ বাংলাদেশের পতাকা। যেদিকে চোখ যায়, শুধু বাংলাদেশের পতাকা। আক্ষরিক অর্থেই প্রতিটি ঘর যেন একেকটি দুর্গের ভূমিকা পালনে তৈরি। এমনিতেই ৭ই মার্চের ভাষণের পর বীর বাঙালি উদ্যত রাইফেলের মতো উত্তেজিত অবস্থায় ছিল, সুপ্ত আগ্নেয়গিরির মতো ভেতরে ভেতরে ফুঁসছিল। আমাদের মনে হলো, ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলার যে আহ্বান বঙ্গবন্ধু জানিয়েছিলেন, শত্রুর মোকাবেলা করার যে নির্দেশ তিনি দিয়েছিলেন, সেই নির্দেশ পালন শুরু হয়ে গেছে। সাড়ে সাত কোটি মানুষের স্বাধীনতার শাণিত চেতনাকে আরো উদ্দীপ্ত করে পতপত করে উড়তে থাকে পতাকা। সত্য কথা বলতে গেলে ক্যান্টনমেন্ট, মিরপুর ও মোহাম্মদপুরের অবাঙালি অধ্যুষিত কয়েকটি এলাকা ছাড়া সব জায়গা থেকে পাকিস্তানের শেষ চিহ্নটি অবলুপ্ত করে দেওয়া হয়। মূলত ২৩ মার্চ পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে পাকিস্তান দিবসের কফিনে মেরে দেওয়া হয় শেষ পেরেকটি।

স্পষ্ট মনে আছে আমার, বিউগল বাজিয়ে ড্রামের মাধ্যমে সুরের মূর্ছনায় জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। মৃদুমেঘমূর্ছনায় ব্যান্ড বাজছিল। ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানের সুললিত সুর পল্টনে উপস্থিত সব মানুষের চিত্তকে উদ্বেলিত করছিল। সত্যিকারের স্বাধীনতাপ্রাপ্তির আস্বাদন পাচ্ছিল বাংলার দুর্জয় ও অকুতোভয় জনতা। মোস্তফা মহসীন মন্টু, খসরু, হাসানুল হক ইনু, মহানগর ছাত্রলীগ ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সম্মিলিতভাবে আস্তে আস্তে পতাকাটি আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তোলন করেন। এ সময় সামরিক কায়দায় মঞ্চে দণ্ডায়মান স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের চার নেতাকে অভিবাদন প্রদান করা হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রতিনিধি হিসেবে অথবা চার খলিফা হিসেবে আমরা অভিবাদন গ্রহণ করি। আমরা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের চার নেতা মঞ্চে দাঁড়িয়ে ছিলাম। অনেক ব্রিগেড সাজানো হয়েছিল একের পর এক। একটি ব্রিগেড অভিবাদন জানিয়ে মঞ্চ অতিক্রম করে পাশে অবস্থান নিচ্ছে, আরেকটি ব্রিগেড মঞ্চের দিকে মাথা বাঁকিয়ে অভিবাদন দিয়ে প্যারেড করে এগিয়ে যাচ্ছে। তাদের দৃপ্ত পদভারে মনে হচ্ছিল তারা যেন দীর্ঘদিনের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সিংহশার্দূল বাহিনীর জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত। এটি সম্ভব হয়েছিল প্রত্যয় ও প্রতীতি থেকে উৎসারিত স্বাধীনতার শাশ্বত আকাঙ্ক্ষা থেকে। শেষ ব্রিগেডটি অভিবাদন জানানোর পর আমরা মঞ্চ থেকে নেমে এসে পল্টনের গেটে হাত ধরাধরি করে দাঁড়িয়ে গেলাম। সেখান থেকে ব্যান্ড বাজিয়ে বিউগলে জাতীয় সংগীতের সুর তুলে মিছিল করে দৃপ্ত পদভারে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের দিকে এগিয়ে চললাম।

দুই দিকে অযুত মানুষের ঢল। কণ্ঠে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান। বক্ষে স্বাধীনতার প্রতীতি। প্যারেডের পেছনে এসে মিছিলের অবয়বে তারা সবাই অংশ নিতে লাগল। ধানমণ্ডির দিকে আমরা যতই এগোচ্ছি মিছিলের কলেবর বৃদ্ধি পাচ্ছে ততই। বজ্রনির্ঘোষে বারবার উচ্চারিত হচ্ছে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’, ‘এ পতাকার শেষ কথা, বাংলা মায়ের স্বাধীনতা’। শুধু বাংলাদেশের জন্যই নয়, পৃথিবীর সব সংগ্রামী জাতির মধ্যে এটি একটি অনন্যসাধারণ ও অবিস্মরণীয় মার্চপাস্ট এবং তার সঙ্গে লাখো মানুষের পদচারণ। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশেই পুরো কর্মসূচিটি আবর্তিত ছিল। বঙ্গবন্ধু ৩২ নম্বরে প্রস্তুত ছিলেন পতাকা মিছিলটি সাদরে বরণ করার উদ্দীপ্ত আকাঙ্ক্ষায়। আমরা যখন ৩২ নম্বরের গেটে উপস্থিত হলাম তখন মিছিলের শেষ প্রান্তটি কোথায় ছিল, সেটি আমরা বর্ণনা করতে পারব না।

বঙ্গবন্ধু নেমে এলেন। পূর্বসিদ্ধান্ত মোতাবেক আমি ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে গৌরবদীপ্ত হৃদয়ে তাঁর হাতে পতাকাটি অর্পণ করলাম। স্বতঃস্ফূর্তভাবে বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠে স্লোগান উঠল ‘জয় বাংলা’। সেটিই প্রতিধ্বনিত হলো লাখো কণ্ঠে। ইথারের মধ্যে ছড়িয়ে গেল সেই আওয়াজ। জনসমুদ্রের ঊর্মিমালার মতো ঢেউ খেতে খেতে ৩২ নম্বরের সামনে থেকে মিছিলের শেষ পর্যন্ত পৌঁছে গেল। সে দৃষ্টান্ত ঐতিহাসিক, অনন্যসাধারণ, অবিশ্বাস্য। তখনো যদি কারো মনে বিন্দুমাত্র দুরাশা থাকত যে পাকিস্তান টিকলেও টিকে যেতে পারে, সেই দুরাশা চিরকালের জন্য বিলীন হয়ে গেল মুহূর্তে। মৃত পাকিস্তানে স্বাধীনতার প্রদীপ্ত সূর্যরশ্মির অগ্নিকণায় দগ্ধ হয়ে নিঃশেষিত হলো ২৩ বছরের শোষণ আর ষড়যন্ত্রের নীলনকশা।

স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ যে কর্মসূচি পালন করেছে, সেটি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনায়। এর বাইরে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অথবা স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে যেকোনো কর্মকাণ্ডই ইতিহাসের বিশ্লেষণে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির দাবি রাখে না। ২৩ মার্চে যদি পাকিস্তান দিবস বা লাহোর প্রস্তাব দিবস পালিত হতো, তাহলে রাষ্ট্রপতি কিংবা তাঁর অবর্তমানে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর সামরিক ও বেসামরিক বাহিনীর কুচকাওয়াজে অভিবাদন গ্রহণ করতেন। তাঁদের গানস্যালুট প্রদান করা হতো। বিষয়টি মাথায় রেখেই ওই দিনটি আনুষ্ঠানিক পতাকা উত্তোলন ও পতাকা দিবস হিসেবে পালন করার সুচিন্তিত সিদ্ধান্তটি আমরা গ্রহণ করি। এখানেও বঙ্গবন্ধু সুদূরপ্রসারী এবং কৌশলী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এই পতাকা উত্তোলনে পল্টনের ঐতিহাসিক ময়দানে তিনি উপস্থিত হলে এবং আমরা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের চার সদস্য পতাকা উত্তোলন করে তাঁকে গানস্যালুট প্রদান করলে নিঃসন্দেহে বিচ্ছিন্নতাবাদের অভিযোগ তাঁর ওপর পড়ত। এটি বিচ্ছিন্নতাবাদের অপবাদই শুধু নয়, সামরিক জান্তার চক্রান্তের চোরাবালিতে পা রাখার মতো বোকামি হতো। তাই সিদ্ধান্ত মোতাবেক ছাত্রলীগের পতাকাটি উত্তোলিত হওয়ার সময় সংগ্রাম পরিষদের চার নেতাকে আনুষ্ঠানিক অভিবাদন প্রদান করা হয়।

সূক্ষ্ম নির্দেশনায় পরিচালিত হয়েছিল বলে ২৩ মার্চই পতাকা দিবস হিসেবে পরিচিতি লাভ করে এবং বছর বছর পালিত হচ্ছে।

ঐতিহাসিক বাস্তবতার আঙ্গিকে উপসংহারে প্রাসঙ্গিক কারণেই তরুণ প্রজন্মকে জানাতে চাই, ছয় দফার মধ্য দিয়ে স্বায়ত্তশাসন ও স্বাধিকারের আন্দোলনের অন্তর্নিহিত মূল সত্তাটি ছিল স্বাধীনতা। অনেক নির্যাতন, নিগ্রহ, কারাভোগ, এমনকি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার মতো ভয়াবহ প্রতিবন্ধকতা উত্তরণ করে প্রত্যয়দীপ্ত বাংলার জাগ্রত জনতা, তার অগ্রভাগে ছাত্রসমাজ এবং বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুর চেতনার উত্তরসূরি ছাত্রলীগ মশাল জ্বেলে উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানের মাধ্যমে নিশ্চিত মৃত্যুদণ্ডের হাত থেকে বঙ্গবন্ধুকে সসম্মানে ও সগর্বে উদ্ধার করেছিল। এটি জাতীয় রাজনীতিতে শুধু একটি উল্লেখযোগ্য অধ্যায়ই নয়, একটি শাণিত চেতনার সৃষ্টি এবং রাজনীতিতে একটি নতুন মোড় এনে দিয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর মুক্তি ছাড়াও ১১ দফা আন্দোলনে বিজয়ের আরো একটি গৌরবোজ্জ্বল অংশ ছিল ১৯৭০ সালে পাকিস্তানের অনুষ্ঠেয় নির্বাচন সংখ্যাসাম্যের ভিত্তিতে নয়, বরং জনসংখ্যার ভিত্তিতেই অনুষ্ঠানে বাধ্য করা। আবদুর রউফ, খালেদ মোহাম্মদ আলী, তোফায়েল আহমেদসহ ১১ দফা আন্দোলনের অন্যান্য ছাত্রসংগঠনের নেতৃত্বের সমভিব্যাহারে এই বিজয়ের সিংহদ্বার উন্মুক্ত হয়েছিল। সেটিই পরবর্তী সময়ে সত্তরের নির্বাচনে স্বাধিকারের অন্তরালে স্বাধীনতার পথে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের পক্ষে সুস্পষ্ট ম্যান্ডেট এনে দেয়।

নতুন প্রজন্মের কাছে, আজ এই সত্য প্রতিষ্ঠিত হোক, সেদিন আমাদের কাছে ছিল ডামি রাইফেল। কিন্তু সেই ডামি রাইফেলই পাকিস্তানকে জানিয়ে দিল ৭ই মার্চে প্রদত্ত বঙ্গবন্ধুর ভাষণের প্রতিধ্বনি করে, ‘আমি যদি হুকুম দেবার নাও পারি, তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করো।’ আমরা প্রতিটি মুহূর্তে এই অমোঘ সত্য প্রতিষ্ঠিত করার জন্যই তিল তিল করে মানুষের মননশীলতাকে শাণিত করেছি। হয়তো অনেক রক্ত দান করতে হয়েছে, হয়তো অনেক বোনকে সতীত্ব হারানোর যন্ত্রণায় ডুকরে কাঁদতে হয়েছে, হয়তো অনেক তরুণের বুকনিঃসৃত তাজা তপ্ত রক্ত আর মায়ের চোখনিঃসৃত নোনা অশ্রুতে বাংলার মাটির প্রত্যন্ত অঞ্চল সিক্ত হয়েছে; কিন্তু স্বাধীনতাকে আমরা ছিনিয়ে আনতে পেরেছি। এই প্রতীতি ও প্রত্যয় তৈরির জন্য আমরা তৈরি করেছি একেকটি আন্দোলনের সোপান। বাংলার স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতীতির সঙ্গে সব মানুষের চেতনার একটা রাখিবন্ধন অতি সুদৃঢ়ভাবে বাঁধতে পেরেছিলাম বলেই ষড়যন্ত্র, অর্থ ও অস্ত্র শেষ পর্যন্ত পরাজয়বরণ করতে বাধ্য হয়েছে। আমি বারবার বলেছিলাম, বলছি এবং বলব, বঙ্গবন্ধু আমাদের চেতনার প্রতীক, ছাত্রলীগ ও স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের রূপকার। ইতিহাসের এই অমোঘ সত্য যতই দিন যাবে ততই গভীরভাবে প্রতিষ্ঠিত হবে সর্বাংশে।

লেখক : সাবেক ছাত্রনেতা


মন্তব্য