kalerkantho



ব্রাজিলের টানা পাঁচের রাতে জিতেছে আর্জেন্টিনাও

১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ব্রাজিলের টানা পাঁচের রাতে জিতেছে আর্জেন্টিনাও

জিতেই চলেছে ব্রাজিল। বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে যাওয়ার হতাশা পেছনে ফেলে টানা পঞ্চম ম্যাচ জিতল তিতের দল। গত পরশু রাতে দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ের বিপক্ষে পেয়েছে ১-০ গোলের জয়। আর্সেনালের এমিরেটস স্টেডিয়ামে নেইমারের পেনাল্টি থেকে এসেছে স্বস্তির গোলটি। জাতীয় দলের জার্সিতে এটা নেইমারের ৬০তম গোল। জিতেছে আর্জেন্টিনাও। বাংলাদেশ সময় গতকাল সকালে মেক্সিকোকে ২-০ গোলে হারিয়েছে তারা। একটি গোল রামিরো ফুনেস মোরির আরেকটি আইজ্যাক ব্রিজুয়েলার আত্মঘাতী। আক্রমণের দুই প্রাণভোমরা মাউরো ইকার্দি ও পাউলো দিবালা পাননি জাতীয় দলের হয়ে প্রথম গোলের দেখা। এটাই যা হতাশার।

এমিরেটসে আক্রমণ-পাল্টাআক্রমণে উপভোগ্য ছিল ব্রাজিল-উরুগুয়ের ম্যাচ। প্রীতি ম্যাচ হলেও নেইমারকে আটকাতে ফাউল কম করেনি লুই সুয়ারেস-এদিনসন কাভানিদের দল। উরুগুয়ে হলুদ কার্ডই দেখেছে ছয়টি। ১৪তম মিনিটে নেইমার একাই নষ্ট করেন দুটি সুযোগ। প্রথমবার তাঁর ফ্রিকিক কোনো রকমে ঠেকান উরুগুয়ে গোলরক্ষক। দ্বিতীয়বার নেইমারের শট যায় ক্রসবারের ওপর দিয়ে। ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক অ্যালিসন দারুণ সেভ করেছেন চারটি। ২২তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া লুই সুয়ারেসের শট তাঁর হাত ছুঁয়ে যায় ক্রসবারের সামান্য ওপর দিয়ে। বিরতির আগে এদিনসন কাভানির দারুণ একটি প্রচেষ্টা কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান তিনি। ৫০তম মিনিটে সুয়ারেসের ফ্রিকিক আলিসন ঠেকান কর্নারের বিনিময়ে।

৭৬তম মিনিটে নেইমারের পেনাল্টি থেকে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। ডি-বক্সে দানিলো ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় ব্রাজিল। যদিও উরুগুয়ের দাবি আক্রমণ শুরুর সময় হ্যান্ডবল ছিল ব্রাজিলের একজনের। রেফারি কান দেননি তাতে। পেলে, রোনালদোর পর তৃতীয় খেলোয়াড় হিসেবে ব্রাজিলের হয়ে ৬০তম গোল করেন নেইমার। পেলের গোল ৭২টি আর রোনালদোর ৬২টি। ৮২তম মিনিটে নেইমারের বাড়ানো ক্রস ছোট ডি-বক্সের বাইরে থেকে নষ্ট করেন রিচার্লিসন।

অন্য ম্যাচে মারিও কেম্পেস স্টেডিয়ামে দিবালার নাম ঘোষণা হতেই ফেটে পড়েছিল গ্যালারি। কারণ দিবালা কর্দোবারই ঘরের ছেলে। পুরো ম্যাচে আর্জেন্টিনার ১৫টি শটের মাত্র চারটি ছিল লক্ষ্যে। মেক্সিকোর বল দখল ৫৫ শতাংশ। মেক্সিকো এগিয়ে যেতে পারত দ্বিতীয় মিনিটে। মার্কো ফাবিয়ানোর ক্রসে রাউল গিমিনেজের হেড ফেরে পোস্টে লেগে। পরের মিনিটেই ফাবিয়ানোর শট দারুণ দক্ষতায় ঠেকান আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক অগাস্তিন মার্চেসিন।

এরপর ধীরে ধীরে খেলায় ফেরে আর্জেন্টিনা। ৩৮ মিনিটে দিবালার ক্রস থেকে লাওতারো মার্তিনেসের হেড পা দিয়ে ঠেকান মেক্সিকান গোলরক্ষক গুইলারমো ওচোয়া। ৪৪তম মিনিটে দিবালার ক্রস থেকে রামিরো ফুনেস মোরির হেড রুখতে পারেননি মেক্সিকান গোলরক্ষক। ৫০ মিনিটে ওচোয়ার মাথার ওপর দিয়ে করা দিবালার চিপ যায় পোস্টের ওপর দিয়ে। ইকার্দিও কয়েকটি সুযোগ তৈরি করে ছিলেন গোলহীন। জাতীয় দলের হয়ে ১৬ ম্যাচে দিবালা আর ষষ্ঠ ম্যাচে তাই গোলের খাতা খোলা হলো না ইকার্দির। ৮৩ মিনিটে সারাভিয়ার ক্রস বিপদমুক্ত করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালে জড়িয়ে দেন আইজ্যাক ব্রিজুয়েলা। এএফপি



মন্তব্য