kalerkantho


তুরিনে মধুর জয় ম্যানইউর

৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



তুরিনে মধুর জয় ম্যানইউর

ঘরের মাঠে হারার পর জুভেন্টাসের মাঠ থেকে জয় নিয়ে ফিরবে ম্যানইউ—খোদ রেড ডেভিল সমর্থকদের জন্যও ভাবনাটা কঠিন ছিল। তবে পরশু রাতে মধুর এক জয়ই উপহার পেয়েছে তারা। একসময়ের ঘরের ছেলে এখন শত্রু শিবিরে। সেই ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো গোল করে জার্সি উঁচিয়ে পেটের পেশি দেখালেন। ম্যাচ শেষে তিনিই হারের হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়বেন ভাবা যায়নি।

পুরো ম্যাচে হোসে মরিনহোকে দুয়ো দিয়ে গেছে জুভেন্টাসের সমর্থকরা। সাবেক ইন্টার মিলান কোচ ২-১ গোলের জয় তুলে নিয়ে মাঠে ঢুকে সেই দর্শকদেরই ব্যঙ্গ করলেন কানের পেছনে হাত রেখে শোনার ভঙ্গি করে। মাঠ ছাড়ার সময় যা দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলেন বনুচ্চি, পাউলো দিবালারাও। এসবই উত্তেজনার রেণু ছড়িয়েছিল তুরিনের অ্যালিয়াঞ্জ স্টেডিয়ামে। ম্যাচের পরও যা থামেনি। মাঠের খেলায় ছিল নাটকীয়তা। বনুচ্চির লং বলে দুর্দান্ত ভলিতে করা রোনালদোর গোলের আগে-পরে দুইবার পোস্ট কাঁপিয়েছেন সামি খেদিরা ও পাউলো দিবালা। মাঠের খেলায়ও স্পষ্ট আধিপত্য ছিল সাদা-কালোদের। ম্যানইউ ম্যাচ জিতেছে শেষ পাঁচ মিনিটে। দ্বিতীয়ার্ধেই বদলি নামা হুয়ান মাতা বক্সের ওপর ফ্রিকিক পেয়ে সরাসরি জালে জড়িয়েছেন ৮৬ মিনিটে। ৮৯ মিনিটে বাঁ দিক থেকে অ্যাশলি ইয়াংয়ের আরেকটি ফ্রিকিকেই এলো জয়সূচক গোলটি। জুভেন্টাস সমর্থকদের আক্ষেপে পুড়িয়ে সেই বলটি জালে ঢুকেছে অ্যালেক্স সান্দ্রোর পায়ে লেগে। এমন হারের পর রোনালদোই সাবেক ক্লাবের প্রতি আবেগ, অনুভূতি যেন একরকম হারিয়ে ফেললেন, ‘ম্যানইউ আজ জেতার জন্য কিছুই করতে পারেনি। ভাগ্যের সহায়তা পেতেও তার পেছনে ছুটতে হয়। ওদের জয়টা আমরাই উপহার দিয়েছি।’ কোচ ম্যাসিমিলিয়ানো আলেগ্রি তাঁর খেলোয়াড়ের সঙ্গে হয়তো পুরোপুরি একমত নন। ভালো খেলে জয় না পাওয়ার আক্ষেপ তাঁর আছে তবে ম্যানইউকে কৃতিত্ব দিতে তিনি ভোলেননি, ‘এটা হতাশার যে ম্যাচটা নিয়ন্ত্রণ করেও আমরা জিততে পারিনি। তবে দ্বিতীয়ার্ধে মারুয়ান ফ্যালাইনি নেমে আমাদের যথেষ্ট ভুগিয়েছে, শেষ গোলটা হয়তো সে কারণেই।’ মরিনহো স্বাভাবিকভাবেই উচ্ছ্বাসে ভাসছেন। ম্যানইউর কোচ হিসেবে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও বড় জয়ও এটি তাঁর। যাতে করে রেড ডেভিলদের নক আউট আশাও বেঁচে থাকল। ম্যাচ শেষের জয়ের উচ্ছ্বাসের চেয়ে মাঠে ওরকম ভঙ্গি নিয়েই বেশি জবাব দিতে হচ্ছে মরিনহোকে, পর্তুগিজ কোচের আত্মসমর্থন, ‘এটা ঠিক আমার সাবেক ক্লাব ইন্টার আর জুভেন্টাস চরম শত্রু। কিন্তু ম্যানইউর কোচ হিসেবে আজ আমি সেটা ভুলেই থাকতে চেয়েছি। কিন্তু পুরো নব্বই মিনিট জুভেন্টাস সমর্থকরা আমাকে তা ভুলতে দেয়নি। ম্যাচ শেষেও তাই ওদের কথাগুলো শুনতে চাইছিলাম।’

পরশু রাতের চ্যাম্পিয়নস লিগের অন্য ম্যাচগুলোয় এত নাটকীয়তা, এত উত্তেজনা না থাকলেও তা ঘটনাবহুল। ম্যানচেস্টার সিটি যেমন ঘরের মাঠে শাখতার দোনেত্সকে বিধ্বস্ত করেছে ৬-০ গোলে। ব্রাজিলিয়ান গ্যাব্রিয়েল জেসুস করেছেন হ্যাটট্রিক। প্রথম দুটি গোলই অবশ্য তাঁর পেনাল্টি থেকে। দলের ষষ্ঠ গোল করে হ্যাটট্রিক পূরণ করেছেন অতিরিক্ত সময়ে। ওদিকে রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগের অভিষেক ম্যাচে ৫-০ গোলের বড় জয় সান্তিয়োগো সোলারির। করিম বেনজিমার জোড়া গোলে ভিক্তোরিয়া প্লজেনের মাঠেই এসেছে অন্তর্বর্তীকালীন কোচের অধীনে রিয়ালের টানা তৃতীয় এ জয়। এদিন একাদশে জায়গা ধরে রাখা গ্যারেথ বেলও কোচের আস্থার প্রতিদান দিয়ে স্কোরশিটে নাম তুলেছেন। গোল পেয়েছেন কাসেমিরো আর টনি ক্রুসও। বায়ার্ন মিউনিখ এদিন রবার্ত লেভানদোস্কির জোড়া গোলে ২-০তে হারিয়েছে এইকে এথেন্সকে। ভ্যালেন্সিয়া নিজেদের মাঠে ইয়াং বয়েজের বিপক্ষে জিতেছে ৩-১ গোলে। নক আউট পর্বে জায়গা পেতে হলে শেষ দুই ম্যাচে ম্যানইউকে পেছনে ফেলতে হবে তাদের। গোল

 



মন্তব্য