kalerkantho



শিষ্যদের সেরাটা চান রোডস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



দুবাই থেকে প্রতিনিধি : সামনে আজ পাকিস্তান; কিন্তু তাঁর দৃষ্টি আরো সামনে। সামনে মানে ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনার মুখে দাঁড়িয়ে চোখ রীতিমতো ঝলমলই যেন করে উঠল স্টিভ রোডসের, ‘পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচটি কার্যত সেমিফাইনালেই পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে আসার সময় আমরা ঠিক এ জায়গাটিতেই আসতে চেয়েছিলাম। এখন আমাদের চেষ্টা থাকবে পাকিস্তানকে হারিয়ে ভারতের বিপক্ষে দারুণ একটি ফাইনাল খেলার।’

সেই ফাইনালে খেলতে পাকিস্তানকে হারানো যে খুব সহজ কাজ হবে না, এ ইংলিশ কোচ তাও জানেন খুব ভালো করেই। তবে দলের তরুণ ব্যাটসম্যানদের আত্মবিশ্বাসহীনতায় ভোগার ব্যাপারটি পাকিস্তানের কোচ মিকি আর্থার প্রকাশ্য করে দেওয়ায় এটিও রোডসের বুঝতে বাকি নেই যে সমস্যায় আছে তাঁদের প্রতিপক্ষও। তা ছাড়া ভারতের কাছে টানা দুই হারে পাকিস্তান শিবিরের মনোবলও খুব ভালো অবস্থায় নেই। এ প্রসঙ্গ তুলতেই রোডস বললেন, ‘নিজের দল নিয়ে মিকি আর্থারের কিছু মন্তব্য আমি পড়লাম। তবে আমি কিছুতেই আমাদের কৌশল বলে দেব না।’

তবে নিজেদের দিনে পাকিস্তানের ঘুরে দাঁড়ানোর সামর্থ্যের কথাও ভুলে যাচ্ছেন না রোডস। বিশেষ করে গত বছর ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শিরোপা যেভাবে জিতেছে পাকিস্তান, সেটিই আপাতত এ দলটির সামর্থ্যের সবচেয়ে বড় প্রতীক হয়ে আছে বাংলাদেশের কাছে, ‘পাকিস্তান দলের প্রতি যথেষ্ট সমীহ আছে আমাদের। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ওরা যেভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে, সেটিও খুব বেশি দিন আগের কথা নয়। দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেই ওরা জিতেছিল। এ টুর্নামেন্টে যদিও ওদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে, এর পরও ওরা বিপজ্জনক দল। নিজেদের দিনে ওরা সত্যিই ভয়ংকর দল হয়ে উঠতে পারে। দারুণ ক্রিকেট খেলে জিততেও পারে।’

তবে এই দলের সামনে বুক চিতিয়ে লড়ার প্রশ্নেও কোনো দ্বিধা নেই বাংলাদেশ দলের হেড কোচের, ‘ক্রিকেট দল হিসেবে ওদের প্রতি শ্রদ্ধা আমাদের আছে। একই সঙ্গে ওদের সঙ্গে খেলার চ্যালেঞ্জটি নিতে আমরা মুখিয়েও আছি। এটিও বলে রাখতে চাই যে আমরাও বিপজ্জনক দল। ওরাও সেটি জানে। কাজেই দারুণ লড়াই হবে এ ম্যাচে।’ যদিও ভারতের বিপক্ষে দুই ম্যাচে একদমই লড়াই করতে পারেনি পাকিস্তান।

তেমনই আরেকটি দিন যদি আজ আবার আসে পাকিস্তানের, তাতেও আপত্তি নেই রোডসের, ‘আশা করি, আরেকটি খারাপ দিন যাবে ওদের। কারণ ওদের যদি খারাপ দিন আসে আর আমরাও ভালো খেলি, তাহলে আমরা জিতব।’ তাই বলে সেই আশায় নিজেদের চেষ্টায় কোনো ত্রুটিও রাখতে চান না, ‘তবে আমরা তো আর আগে থেকে বলে দিতে পারব না যে পাকিস্তানকে কাল (আজ) কোন চেহারায় দেখা যাবে। সেটি আমাদের নিয়ন্ত্রণেও নেই। আমাদের নিয়ন্ত্রণ শুধু নিজেদের খেলার ওপরই। আমরা কিভাবে খেলি, তার ওপরই। কাজেই চাওয়া থাকবে আমরা যেন নিজেদের সেরা খেলাই খেলি।



মন্তব্য