kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

সাফের ফাইনালে হার থেকে আমরা শিখেছি

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



সাফের ফাইনালে হার থেকে আমরা শিখেছি

অনূর্ধ্ব-১৪, অনূর্ধ্ব-১৫-এর পর অনূর্ধ্ব-১৬ দলের হয়েও শিরোপা জেতা হয়ে গেল সারাবান তহুরার। এই স্ট্রাইকার কাল শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচেও করেছে গুরুত্বপূর্ণ এক গোল। ম্যাচ শেষে সেই গোল আর জয়ের আনন্দ নিয়েই কথা বলেছে সে কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : দারুণ খেলেই তোমরা শিরোপা জিতলে আজ, আনন্দটা কিভাবে প্রকাশ করবে?

সারাবান তহুরা : আমরা আমাদের পরিশ্রমের ফল পেলাম। এই ম্যাচের পুরো ৯০ মিনিট আমাদের খাটতে হয়েছে এই জয়টা নিশ্চিত করতে। শুধু আজ তো না, এই শিরোপার জন্য অনেক দিন ধরেই আমরা অনেক কষ্ট করছি। ভুটানে সাফের ফাইনালে হারের পর সবারই মন খারাপ ছিল। সেটা ভুলেই আবার আমরা টানা অনুশীলন করেছি। খুব ভোরে উঠেছি আবার দুপুর ১২টার তীব্র রোদে মাঠে গিয়েছি। এই সব কিছুরই ফল আজ আমাদের চ্যাম্পিয়ন হওয়া।

প্রশ্ন : সাফের সেই ফাইনাল হারে নিশ্চয় একটা শিক্ষা ছিল?

তহুরা : হ্যাঁ অবশ্যই। সেই শিক্ষা নিয়েই আজ আবার আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। সাফে আমরা হয়তো কিছুটা বেশি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। এই ম্যাচের আগে এটাই পণ করে নেমেছিলাম যে শেষ পর্যন্ত আমাদের লড়াই করে যেতে হবে। আজ তা-ই করেছি। এটা না হলে কিন্তু এভাবে দাপট দেখিয়ে ম্যাচটি আমরা জিততে পারতাম না।

প্রশ্ন : অফসাইডের কারণে তোমার দুটো গোল বাতিল হলো, তা না হলে তো আজ হ্যাটট্রিকই হয়ে যেত...

তহুরা : সত্যি কথা, হ্যাটট্রিক করা নিয়ে আমি এখন আর ভাবি না। সাফ থেকে আমি সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার নিয়ে দেশে ফিরেছিলাম। কিন্তু আমার মন ছিল ভীষণ খারাপ। কারণ আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি। এই টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই তাই ভেবেছি, যে-ই গোল করুক। আমাদের জেতা দিয়ে হলো কথা। সেটা পেলেই আমরা খুশি। আজ চ্যাম্পিয়ন হতে পেরে তাই অনেক ভালো লাগছে।

প্রশ্ন : এই টুর্নামেন্টে ঠিক নাম্বার নাইন পজিশনে খেলোনি তুমি, এটা নিশ্চয় কম গোল পাওয়ার একটি কারণ?

তহুরা : এবার আমি রাইট উইংয়ে খেলেছি। কোচই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আমি চেষ্টা করেছি এই পজিশন থেকেই দলকে সাহায্য করার। কোচ চাইলে আমার কোনো পজিশনে খেলতেই আপত্তি নেই।

প্রশ্ন : রেফারির বিতর্কিত একটি সিদ্ধান্তে তোমার প্রথম গোলটা বাতিল হলে রাগ হয়নি?

তহুরা : না, রাগ করে কী হবে। রেফারি রেফারির সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। আমরা আবার আমাদের খেলায় মনোযোগ দিয়েছি। এটাই আমাদের কাজ। রেফারির সিদ্ধান্ত নিয়ে পড়ে থাকলে তো হবে না।

প্রশ্ন : পরের রাউন্ডেও ভালো করে মূল পর্বে যেতে কতটা আশাবাদী এখন?

তহুরা : সেটাই তো আমাদের লক্ষ্য।



মন্তব্য