kalerkantho



উড়ছে আফগানিস্তান ডুবছে শ্রীলঙ্কা

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



শগত মার্চে বাংলাদেশের কাছে টেস্ট হারার পর লঙ্কান ক্রিকেটের মৃত্যু ঘোষণা করেছিল ‘দি আইল্যান্ড’। শ্রীলঙ্কার জনপ্রিয় এই পত্রিকা আফগানিস্তানের কাছে ওয়ানডে হারার পর শোকে পাথর রীতিমতো। আইল্যান্ডের মতো দ্বীপদেশটির অন্য দৈনিকগুলোও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের দলকে ভাসিয়েছে সমালোচনায়। তবে আফগানিস্তানের জন্য থাকছে প্রশংসার ডালি। সাবেক ক্রিকেটাররা যেমন জানাচ্ছেন অভিনন্দন, তেমনি বিশ্ব মিডিয়ায় নতুন করে উঠে আসছে তাঁদের উঠে আসার গল্প।

রশিদ খান, মোহাম্মদ নবী, মুজিব উর রহমানদের ঘূর্ণিতে শ্রীলঙ্কা হেরে গেছে ৯১ রানে। তাতে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের। আর সুপার ফোর নিশ্চিত হয়ে গেছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের। দলের এমন পারফরম্যান্সের পর বাক্রুদ্ধ দি আইল্যান্ডের শিরোনাম, ‘শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটের আরো অধঃপতন’। এরপর তারা লিখেছে, ‘এক গর্বিত ক্রিকেট জাতি কিভাবে নিচু সারির দল আফগানিস্তানের কাছে হেরে বিদায় নিল।’

ডেইলি মিররের শিরোনাম ‘ফ্লপ অব এশিয়া’। আফগানিস্তানের প্রশংসায় তারা লিখেছে, ‘যুদ্ধবিধ্বস্ত এক দেশ জন্ম দিল ক্রিকেট রূপকথার। আর শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট ডুবছে একটু একটু করে।’

লঙ্কানদের এভাবে বিধ্বস্ত করাটা আফগানদের জন্য বিশাল অর্জন। অধিনায়ক আসগর আফগান গর্বিত এ জন্য, ‘আপনি যখন জয়ের জন্য খেলবেন, তখন ইতিবাচক থাকবেন। আমরা সেটাই করেছি।’

আফগানিস্তানের পুরো দলের ক্রিকেটাররা মিলে ২২৭টি ওয়ানডে খেলেছেন আরব আমিরাতে। পাকিস্তানের বর্তমান দলটির সবাই মিলে খেলেছেন ১২৪টি। কঠিন কন্ডিশনে এমন অভিজ্ঞতা এগিয়ে রেখেছিল আফগানদের। এর পরও ধারাভাষ্যে নিজের হতাশা লুকাননি লঙ্কান সাবেক অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা, ‘এভাবে শ্রীলঙ্কার হার দেখাটা কষ্টের।’ পিটিআই

 



মন্তব্য