kalerkantho



উৎসবের রাতে জিরদের গোল

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



উৎসবের রাতে জিরদের গোল

সেই উদ্যাপনটা ঠিক উৎসবে রূপ নেয়নি। ফ্রান্সের বিশ্বকাপজয়ী বীরদের বরণ করে নেওয়ার জন্য চ্যাম্প-এলিসে তিন লাখ সমর্থক জড়ো হয়েছিল বটে। তবে রাশিয়া থেকে ফেরার পরদিন ওই এভিনিউ দিয়ে তড়িঘড়িই প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাঁখোর সঙ্গে দেখা করতে চলে যান দেশম-গ্রিয়েজমান-পগবা-এমবাপ্পেরা। মূলত নিরাপত্তার কারণেই। পরশু নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচটি ফরাসিদের সামনে এনে দেয় তাই সাফল্য উদ্যাপনের আরেক উপলক্ষ। বিশ্বকাপ জয়ের পর এই প্রথম যে ঘরের মাঠে খেলতে নামে ফ্রান্স।

উয়েফা নেশনস লিগের সে ম্যাচে ২-১ গোলে জিতেছে বিশ্বকাপজয়ীরা। কিলিয়ান এমবাপ্পের গোলে প্রথমার্ধে স্বাগতিকরা এগিয়ে যাওয়ার পর ৬৭তম মিনিটে সমতা ফেরান রায়ান বাবল। এরপর ৭৫তম মিনিটে জয়সূচক গোল অলিভিয়ের জিরুর। জাতীয় দলের জার্সিতে ১০ ম্যাচ পর গোল পেলেন এই ফরোয়ার্ড। দলের এক নম্বর স্ট্রাইকার হয়েও পুরো বিশ্বকাপে কোনো গোল না করেও যিনি বিশ্বজয়ী।

তবে ম্যাচের ফল কিংবা জিরুর গোল পাওয়া নয়—পরশুর ম্যাচটির মূল সুর ছিল ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ের উৎসবে ভেসে যাওয়ার। স্তাদ দে ফ্রান্সের ৮০ হাজার দর্শক তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করেছেন প্রতিটি মুহূর্ত। সবচেয়ে বেশি নিঃসন্দেহে রেফারির শেষ বাঁশির পর। যখন বিশ্বকাপজয়ী প্রত্যেক খেলোয়াড়কে আলাদা করে উপস্থাপন করা হয় সমর্থকদের সামনে। বিশ্বকাপ ট্রফি নিয়েও দর্শকদের সামনে উল্লাসে মাতেন ফুটবলাররা। সে উচ্ছ্বাসের রেশ পল পগবার প্রতিক্রিয়ায়, ‘বিশ্বকাপের পর আমরা ফ্রান্সে ফিরেছিলাম অল্প সময়ের জন্য। সেবার আমাদের বাসের চারপাশে ছিল নিরাপত্তাবলয়। সমর্থকদের সঙ্গে জয়টা উদ্যাপন করতে পারিনি। এখন সেই উদ্যাপনের সময় এসেছে। ভরা গ্যালারির সামনে—এটি সত্যি আনন্দের।’

উয়েফা নেশনস লিগের লিগ ‘এ’-র প্রথম খেলায় জার্মানির সঙ্গে ড্র করেছিল ফ্রান্স। দ্বিতীয় ম্যাচে জিতল ডাচদের বিপক্ষে। উৎসবের রাতে দেশমের সন্তুষ্টি জিরদের গোল নিয়ে, ‘অলিভিয়ের জন্য সত্যি ভালো লাগছে। ওর যেমন গোলখরার সময় গেছে, তেমনটা স্ট্রাইকারদের হয়ই। তবে তখনো ও আমাদের বিল্ডআপে ভূমিকা রেখেছে। আজ তো দারুণ এক গোলই করল।’

উয়েফা নেশনস লিগে পরশু অন্যান্য পরাশক্তির খেলা ছিল না। সেখানে ইউক্রেন ১-০ গোলে স্লোভাকিয়াকে, ডেনমার্ক ২-০ গোলে ওয়েলসকে, বুলগেরিয়া ১-০ গোলে নরওয়েকে, সাইপ্রাস ২-১ ব্যবধানে স্লোভেনিয়াকে, জর্জিয়া ১-০ গোলে লাটভিয়াকে, মেসিডোনিয়া ২-০ গোলে আর্মেনিয়াকে এবং লিচেনস্টেইন ২-০ ব্যবধানে হারিয়েছে জিব্রাল্টারকে। এএফপি

 



মন্তব্য