kalerkantho


দুশ্চিন্তার সমাধান পরিকল্পনায়

প্রতিপক্ষের রিস্ট স্পিনারদের নিয়ে

প্রতিপক্ষের রিস্ট স্পিনারদের নিয়ে   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



দুশ্চিন্তার সমাধান পরিকল্পনায়

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বহুদিন হলো জুবায়ের হোসেন বাংলাদেশ দলের চৌহদ্দিতেই নেই। তবু বিশেষ বিশেষ সময়ে তরুণ এই লেগ স্পিনারকে জাতীয় দলের অনুশীলন শিবিরে ডাকতে হয়ই। যেমন এবার ডাকতে হলো এশিয়া কাপ সামনে রেখেও।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে এশিয়া কাপ খেলতে গিয়েই যে এক ঝাঁক লেগ স্পিনারের সামনে পড়তে হবে বাংলাদেশকে। আর রিস্ট স্পিনারদের সামলানোর ক্ষেত্রে তাদের সাম্প্রতিক অভিজ্ঞতাও যেহেতু সুবিধার নয়, কাজেই ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়ে যাওয়াটা ভীষণ জরুরি। তাই এশিয়া কাপের অনুশীলন শিবিরে গতকাল থেকে শুরু হওয়া স্কিল ট্রেনিংয়ের প্রথম দিনই ডাক পড়েছে ‘মন্দের ভালো’ জুবায়েরের।

যদিও তাঁকে খেলেই যে সমাধানসূত্র আবিষ্কৃত হয়ে যাবে, তা নয়। এ কারণেই পরিকল্পনায় জোর দিলেন এশিয়া কাপ দিয়েই আবার বাংলাদেশ দলে ফেরা ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুন। অবশ্য তাঁর কথায় দেশে এই প্রজাতির স্পিনার তেমন না থাকার হাহাকারও কম ফুটে উঠল না, ‘দেখুন, আমরা যে লেগ স্পিন খেলায় খুব বেশি তৈরি হব, সেই সুযোগও নেই। কেননা বাংলাদেশে খুব বেশি লেগ স্পিনার নেই। আমরা লেগ স্পিনার খুঁজেও পাই না। তবু এর মধ্যেই যতটুকু সম্ভব আমরা অনুশীলন করব। পরিকল্পনামাফিক যাতে খেলা যায়, সেই চেষ্টাই থাকবে আমাদের।’

বহুজাতিক আসরে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের নামতে হবে অনেক রিস্ট স্পিনারকে সামলানোর চ্যালেঞ্জ নিয়েও। যাঁদের সবার জন্য আবার একই পরিকল্পনা খাটবেও না। যেমন আফগানিস্তান দলেই আছেন রশিদ খান, গত জুনে ভারতের দেরাদুনে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে এই লেগ স্পিনার রীতিমতো নাজেহাল করে ছেড়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের। এশিয়া কাপে বাংলাদেশের গ্রুপে শ্রীলঙ্কার সঙ্গী আফগানিস্তানের এই লেগিকে আরেকবার সামলানোর চ্যালেঞ্জও তাই নিতে হচ্ছে তামিম ইকবাল-মুশফিকুর রহিমদের। গ্রুপের বাধা পেরোলে পরের পর্বে মুখোমুখি হতে হবে ভারত ও পাকিস্তানেরও। যেখানে ভারত ম্যাচ মানেই রিস্ট স্পিনারদের সামলানোর চ্যালেঞ্জও হয়ে যাবে দ্বিগুণ। কারণ লেগ স্পিনার যুযবেন্দ্র চাহালের সঙ্গে ভারতীয় দলে আছেন চায়নাম্যান কুলদীপ যাদবও। আর গত বছর অভিষেকের পর থেকে লেগ স্পিনার শাদাব খানও পাকিস্তানের অন্যতম স্পিন ভরসা হয়ে ওঠার পথে। কাজেই এশিয়া কাপ বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য হয়ে উঠতে চলেছে রিস্ট স্পিনারদের খেলার এক অগ্নিপরীক্ষাও।

মিঠুন অবশ্য পরীক্ষার সীমাটা শুধু রিস্ট স্পিনারে সীমাবদ্ধ রাখতে চান না। তিনি বরং শুধু এই প্রজাতির স্পিনারদের নিয়ে মনঃসংযোগের বিপক্ষে। এর ব্যাখ্যাও দিলেন এভাবে, ‘ভালো খেলতে হলে শুধু রিস্ট স্পিনারই না, প্রতিটি বোলারকেই ভালো খেলতে হবে। একজন ব্যাটসম্যানের জন্য আউট হতে একটি বলই যথেষ্ট। আমাকে ভালো ইনিংস খেলতে হলে প্রতিটি বোলারকেই ভালোভাবে সামলাতে হবে। আর আমি যদি শুধু রিস্ট স্পিনারকে টার্গেট করি, তাহলে ব্যাপারটি অনেকটা নেতিবাচক হয়ে যাবে বলেই মনে হয় আমার। যখন যে বোলার সামনে আসবে, তাকে কতটা ভালোভাবে খেলতে পারলাম, সেটিই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’

টুর্নামেন্টে একেবারে শেষ পর্যন্ত যেতে হলে সব বোলারকে ভালোভাবে সামলানোর বিকল্পও নেই বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যানদের। অনুশীলন শিবির শুরুর দিনই ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সতীর্থদের এশিয়া কাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার বিশ্বাস মনে রাখতে বলেছিলেন। আবার দলে ফেরা মিঠুনের মনেও আছে সেই বিশ্বাস, ‘আমি অবশ্যই আশাবাদী। কারণ অন্য ফরম্যাটে যেমনই হোক, ওয়ানডেতে কিন্তু বাংলাদেশ যথেষ্ট ভালো দল। গত চার বছর ধরে বাংলাদেশ ভালো করছে। সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে আমরা যারা জুনিয়ররা আছি, তারাও যদি অবদান রাখতে পারি, তাহলে ভালো কিছুই হবে বলে মনে করি। টুর্নামেন্টে আমাদের মূল লক্ষ্য চ্যাম্পিয়ন হওয়া। সে জন্য প্রথম পর্ব পার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সিনিয়রদের সঙ্গে জুনিয়ররাও অবদান রাখতে পারলে খুব সহজেই আমরা দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে পারব বলে আমার মনে হয়।’ ১৫ সেপ্টেম্বর এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশ মুখোমুখি হচ্ছে শ্রীলঙ্কার। আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে ১৯ সেপ্টেম্বর। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে সবশেষ সফরে কখনো ওপেনিং বা কখনো মিডল অর্ডারে ব্যাটিং করলেও এশিয়া কাপে মিঠুনকে নিশ্চিতভাবেই বিবেচনা করা হবে ছয় কিংবা সাত নম্বর পজিশনে। শৃঙ্খলাভঙ্গের শাস্তি হিসেবে বাদ পড়া সাব্বির রহমানের জায়গাতেই সুযোগ হয়েছে তাঁর। সেটি কাজে লাগাতে মরিয়া মিঠুন ব্যাটিংয়ের সময়ের দাবি মেটানোর সক্ষমতার ঘোষণাও শোনালেন, ‘আমি উইকেটে গিয়ে খুব বেশি সময় নেই না সেট হতে। প্রথম থেকেই চেষ্টা থাকে রানের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার ও স্ট্রাইক রোটেট করার। ছয় কিংবা সাত নম্বরে নামলে এটাই গুরুত্বপূর্ণ। আমার সহজাত ব্যাটিংও তাই। কাজেই খুব বেশি চিন্তা করার কিছু নেই।’ যিনি প্রতিপক্ষের রিস্ট স্পিনারদের নিয়েও দুশ্চিন্তার সমাধান দেখছেন পরিকল্পনায়।

 



মন্তব্য