kalerkantho


ভুল দলের কথা মানছেন কোহলি

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



ভুল দলের কথা মানছেন কোহলি

টেস্ট র‍্যাংকিংয়ের ১ নম্বর দল তারা। সেই ভারত কিনা ভুল করল উইকেট চিনতে। লর্ডস টেস্টের পুরো একটা দিন ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। স্যাঁতসেঁতে কন্ডিশন সুইং বোলারদের জন্য আদর্শ। এমন কন্ডিশনেও একজন পেসার কম খেলিয়ে ভারতীয় একাদশে দুই স্পিনার! ইংল্যান্ডের কাছে ইনিংস ও ১৫৯ রানে বিধ্বস্ত হয়ে তাই ভুল দল নিয়ে খেলার কথা মেনে নিলেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি, ‘বৃষ্টির আগে একরকম পরিস্থিতি ছিল। বৃষ্টির পর বদলে যায় পুরোটা। দল গঠনে ভুল ছিল আমাদের। বুঝতে পারিনি উইকেটটা এত বেশি সহায়তা করবে পেসারদের।’

বৃষ্টিতে প্রায় পাঁচটা সেশন ভেসে গেছে লর্ডস টেস্টে। তার পরও চতুর্থ দিনেই ভারতের হার ইনিংস ও ১৫৯ রানে।

ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে ওকস অপরাজিত থাকেন ১৩৭ রানে। ইংল্যান্ডের লিড ২৮৯ রানের। এর জবাবে জেমস অ্যান্ডারসন ও স্টুয়ার্ট ব্রডের তোপে দাঁড়াতেই পারেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। এভাবে বিধ্বস্ত হয়ে বিরাট কোহলির হতাশা, ‘শেষ পাঁচটি টেস্টের মধ্যে এবারই প্রথম বিধ্বস্ত লেগেছে আমাদের। যেভাবে লর্ডসে খেলেছি সেটা অগৌরবের। হারটা প্রাপ্যই ছিল। কন্ডিশনকে দোষ দেওয়ার কোনো কারণ নেই। পিচ সাহায্য করেছে বোলারদের। আমরা সঠিক জায়গায় বল রাখতে পারিনি। আর ওদের বোলারদের বিপক্ষে প্রতিটি রান নিতে কষ্ট করতে হয়েছে সবাইকে।’

প্রথম টেস্টে ১৪৯ ও ৫১ রানের দুটি ইনিংস খেলেছিলেন বিরাট কোহলি। লর্ডসে ব্যর্থ তিনিও। খেলেছেন ২৩ ও ১৭ রানের ইনিংস। পিঠের ব্যথা ভুগিয়েছে লর্ডস জুড়ে। তবে এজবাস্টনে সেটা কাটিয়ে উঠবেন বলে আশাবাদী কোহলি, ‘এখনো পাঁচ দিন আছে। আশা করছি এর মধ্যে সেরে উঠব। ব্যাটসম্যানরা জুটি গড়ে খেলতে পারেনি, এর মধ্যে আমিও আছি। এখন দল হিসেবে প্রত্যাঘাত করতে হবে আমাদের। ট্রেন্টব্রিজে নামব ২-১ করার লক্ষ্য নিয়ে।’

লর্ডসের কন্ডিশন খুব ভালোভাবে কাজে লাগানোয় খুশি ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট। অসাধারণ সেঞ্চুরিতে স্টোকসের অভাব বুঝতে না দেওয়া ক্রিস ওকসেরও প্রশংসা করলেন তিনি, ‘ওকস যখনই সুযোগ পেয়েছে, প্রমাণ করেছে নিজেকে। প্রচণ্ড পরিশ্রম করতে পারে ও। কন্ডিশন আমাদের পক্ষে ছিল। এ ধরনের কন্ডিশনে ঠিক জায়গায় বলটা রাখতে হয়, যা ম্যাচ জুড়ে করেছে বোলাররা। তার পরও উন্নতির জায়গা রয়ে গেছে এখনো। আমরা উচ্ছ্বাসে ভাসছি না, অহংকারও করছি না। পা মাটিতে আছে। বাকি দুই টেস্টে আরো ভালো করার চেষ্টা করব।’

বেন স্টোকসের মামলার শুনানি না থাকলে লর্ডসে খেলাই হতো না ক্রিস ওকসের। সেই তিনি ১৩৭ রানের হার না মানা ইনিংস আর ৪ উইকেট নিয়ে জিতেছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার। এমন পারফরম্যান্সে আপ্লুত ওকস, ‘ফিরে আসার ম্যাচটা সারা জীবন মনে থাকবে।’ পিটিআই



মন্তব্য