kalerkantho


বড় জয়ে প্রস্তুতি শেষ বেলজিয়ামের

১৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০



বড় জয়ে প্রস্তুতি শেষ বেলজিয়ামের

স্বস্তি রবার্তো মার্তিনেজের কণ্ঠে। বিশ্বকাপের আগে শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে কোস্টারিকাকে ৪-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে তারা। বড় জয়ে প্রস্তুতি শেষ করায় বড় কিছুরই আশা মার্তিনেজের, ‘আমরা বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচের জন্য শতভাগ তৈরি। প্রতিদিন দল একটু একটু করে উন্নতি করেছে। এরই প্রতিফলন কোস্টারিকার বিপক্ষে ৪-১ গোলের জয়। বিশ্বকাপে এই ছন্দটা ধরে রাখলে অনেক দূর যেতে পারি আমরা।’

জোড়া গোল করেছেন রোমেলু লুকাকু। ড্রাইস মেরটেনস ও মিচি বাতসুয়াই লক্ষ্যভেদ করেছেন একবার করে। দলের সেরা তারকা এডেন হ্যাজার্ড গোল পাননি। তবে চারটি গোলের সঙ্গেই কোনো না কোনোভাবে জড়িয়ে তাঁর নাম। শেষ ২০ মিনিটে হ্যাজার্ডকে অবশ্য তুলে নেন মার্তিনেজ। ব্যথা পেয়ে মাঠ ছাড়লেও তা গুরুতর কিছু নয় বলে নিশ্চিত করেছেন মার্তিনেজ, ‘ব্যথা পেয়েছে হ্যাজার্ড। দুশ্চিন্তা করার মতো নয় সেটা। সাবধানতার জন্য শেষ দিকে তুলে নেওয়া হয়েছে ওকে। শতভাগ ফিট হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলবে হ্যাজার্ড।’

তবে খেলার ধারার বিপরীতে কোস্টারিকা এগিয়ে গিয়েছিল ২৪ মিনিটে। পাল্টা আক্রমণে ডি বক্সের বাইরে থেকে জোরালো নিচু শটে বল জালে জড়ান ব্রায়ান রুইস। সমতা ফেরাতে খুব বেশি সময় নেয়নি ফিফা র‌্যাংকিংয়ের তিনে থাকা বেলজিয়াম। ডি বক্সের ডান দিক থেকে একজনকে কাটিয়ে গোলমুখে বল বাড়ান হ্যাজার্ড। ফাঁকায় সেটা পেয়ে গোল করার সুযোগ নষ্ট করেননি ড্রাইস মারটেনস। ৪২তম মিনিটে মারটেনেসের ক্রসেই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রোমেলু লুকাকু। ডান দিক থেকে বাড়ানো তাঁর ক্রস ছয় গজ বক্সের সামনে পেয়ে জালে জড়ান ম্যানইউর এই তারকা।

বিরতির পর বেলজিয়ামের সামনে প্রতিরোধ করতে পারেনি কোস্টারিকা। ৫০তম মিনিটে আরেকটি গোলে ব্যবধান ৩-১ করেন লুকাকু। এর মিনিট পনেরো পর হ্যাজার্ডের বাড়ানো বল ডানদিকে পেয়ে ডিবক্সে বাড়ান লুকাকু। ফাঁকায় পাওয়া মিচি বাতসুয়াই বল জালে জড়ালে ৪-১ গোলের জয়ে মাঠ ছাড়ে বেলজিয়াম। তাই মার্তিনেজের সন্তুষ্টি, ‘পর্তুগালের সঙ্গে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচের সঙ্গে এই ম্যাচের পার্থক্য অনেক। এ ধরনের উন্নতি চেয়েছিলাম আমরা। এখন গ্রুপ পর্বের তিনটি ম্যাচে দেব সব মনোযোগ। এরপর ভাবা যাবে নকআউট রাউন্ড নিয়ে।’

গত পরশুর আরেকটি প্রস্তুতি ম্যাচে সেনেগাল ২-০ গোলে হারিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াকে। ৬৭ মিনিটে ইয়ংগুনের আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় সেনেগাল। ইনজুরি টাইমে মুসা কনাটের পেনাল্টিতে ২-০ গোলের জয়ে মাঠ ছাড়ে তারা। চার ম্যাচ পর এটা প্রথম জয় সেনেগালের। বিশ্বকাপ প্রস্তুতিতে গত মার্চ মাসে তারা ১-১ গোলে ড্র করে উজবেকিস্তানের সঙ্গে। এরপর গোলশূন্য ড্র বসনিয়া ও লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে। গত সপ্তাহে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে হেরেই যায় ১-২ গোলে। দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে জয়ের ধারায় ফেরায় ভীষণ খুশি কোচ আলিউ সিসে, ‘বিশ্বকাপে আত্মবিশ্বাস জোগাবে এই জয়। ছেলেরা খুব ভালো খেলেছে। অনেক সুযোগ পেয়েছি আমরা। দুই গোল করে নিজেরা হজম না করাটা সন্তুষ্টির।’

দক্ষিণ কোরিয়ার জন্য ব্যাপারটা উল্টো। গত ছয় ম্যাচে তাদের জয় মাত্র একটি। সবশেষ জয় গত মে মাসে ২-০ গোলে হন্ডুরাসের বিপক্ষে। এরপর ৩-১ গোলে হার বসনিয়ার সঙ্গে। বলিভিয়ার বিপক্ষেও  মাঠ ছাড়তে হয় গোলশূন্য ড্রতে। শেষ প্রস্তুতি ম্যাচের এই হারটা তাই দুশ্চিন্তার কারণ কোরিয়ানদের জন্য। এএফপি

 



মন্তব্য