kalerkantho


দুর্ভাবনা তাড়ানোর চেষ্টা তামিমের

২৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফিটনেস গড়িয়ে স্কিল ক্যাম্পও শেষ হলো গতকাল। তবু একটা প্রশ্ন পিছু ছাড়েনি বাংলাদেশ দলকে। আসলে রশিদ খান নামের ‘জুজু’ বলা ভালো! আইপিএলে এই আফগানের সাফল্য ক্রমাগত রক্তচাপ বাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের। আর এক সপ্তাহ পরই যে ভারতের মাটিতেই রশিদ খানকে খেলতে হবে তামিম ইকবাল খানদের।

বিশ্বের যেকোনো কন্ডিশনে সব ম্যাচের প্রথম বলের মুখোমুখি হওয়া তামিমের মনে সাহসের এক-দুটি ডালপালা বেশি থাকা অস্বাভাবিক নয়। ‘ম্যাচ সিনারিও’ দিয়ে আফগান সিরিজ-পূর্ব প্রস্তুতির যবনিকাপাতের দিন রশিদ খান-সংক্রান্ত ভাবনায় তামিম স্টেপ আউট করলেনও, ‘রশিদ কেন, কোনো কিছু নিয়েই বেশি ভাবলে অনেক সময় পারা জিনিসগুলোও পারা যায় না। কোনো কিছুু নিয়েই অতিরিক্ত চিন্তা করতে নেই। রশিদ অবশ্যই ভালো বোলার, হয়তো ক্যারিয়ারের সেরা সময়টা কাটাচ্ছে। তবু বলব, ওকে নিয়ে চিন্তা না করে নিজেদের নিয়ে ভাবাই আমাদের জন্য ভালো হবে।’

রশিদ খান কোনো আগন্তুক নন তামিমের ক্রিকেট ক্যারিয়ারে, বিপিএলে আফগান লেগ স্পিনারের অধিনায়কত্বও করেছেন বাংলাদেশের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। নেটে খেলার অভিজ্ঞতা আর আইপিএল দেখে তামিমের বিশ্লেষণ, ‘কুইক আর্ম অ্যাকশনের জন্যই ব্যাটসম্যানদের সমস্যা হচ্ছে। রশিদ এখন আরো বেশি অ্যাকুরেট। সে কারণে সাফল্যও বেশি বেশি পাচ্ছে। তার মানে এই নয় যে ওকে খেলাই যাবে না। আমরা এমন অনেক চ্যালেঞ্জ জিতে ভালো খেলেছি।’

একটা চ্যালেঞ্জ অবশ্য সদ্যই জিতে মাঠে ফিরেছেন তামিম, হাঁটুর চোট থেকে এখন ম্যাচ ফিটনেসের অপেক্ষায় তিনি, ‘প্রায় দুই মাস পুনর্বাসনের মধ্য দিয়ে গেছে। তাই আজকের (গতকাল) ম্যাচ সিনারিও নিয়েও রোমাঞ্চিত, প্রস্তুতি ম্যাচের মতো করেই খেলব। যে ইনজুরিটা ছিল, আশা করি ভালোভাবেই কাটিয়ে উঠতে পেরেছি। আমার হাতে যা যা করার ছিল, সব করেছি।’ আগের চেয়ে এখন আরো ঝরঝরেও তাই দেখায় তামিমকে। তাতে স্বস্তির ঝিলিক তাঁর ঠোঁটের কোণে, ‘আগের চেয়ে ফিটনেসে এখন অনেক ভালো অবস্থায় আছি। তবে এটিই মানদণ্ড নয়। আমাদের দলেই এমন অনেকে আছে, যাদের পর্যায়ে যেতে হলে আমাকে আরো অনেক কষ্ট করতে হবে।’

কষ্ট করার ইচ্ছা তাঁর লর্ডসের প্রীতি ম্যাচেও। টর্নেডোয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্ষতিগ্রস্ত মাঠ পরিচর্যার জন্য যে চ্যারিটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ২৭ মে লর্ডসে, সেটিতে অবশিষ্ট বিশ্ব একাদশে ডাক পেয়েছেন তামিম। গতরাতেই তাঁর উড়াল দেওয়ার কথা লন্ডনের উদ্দেশে। হোক প্রীতি ম্যাচ, তবু তামিমের কাছে লর্ডস লর্ডসই, ‘রোমাঞ্চ তো অবশ্যই আছে। তবে শুধু অংশগ্রহণই নয়, আশা থাকবে যেন ভালো খেলি। আরো আশা করব, যে উদ্দেশ্য নিয়ে এ ম্যাচ আয়োজন তা যেন সফল হয়। আর লর্ডসে যদি আমার কোনো সুখস্মৃতি (সেঞ্চুরি) নাও থাকত, তবু ভালো লাগত। লর্ডসে তো খুব বেশি খেলা হয় না আমাদের।’

 


মন্তব্য