kalerkantho


শিরোপাস্বপ্নে সতর্ক মাসচেরানো

২৫ মে, ২০১৮ ০০:০০



কত দিন হয়ে গেল, আর্জেন্টিনা বড় কোনো ফুটবল শিরোপা জেতে না! সর্বশেষ বড় অর্জন ১৯৯৩ সালের কোপা আমেরিকা জয় ধরলে পরের সময়টুকু তীরে এসে তরি ডোবার গল্প। হিসাব করলে আর্জেন্টিনার ফুটবল ব্যর্থতার ‘সিলভার জুবিলি’র বছর এটা! হতে পারে আবার অন্য রকমও, আর্জেন্টাইন ফুটবলকে নতুন করে রাঙানোর বছরও। রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রত্যাশায় দেশের আমজনতা শরিক হলেও হাভিয়ের মাসচেরানো সেভাবে রাঙাতে পারছেন না নিজেকে। বরং একটু সতর্ক হওয়ারই ইঙ্গিত দিচ্ছেন, ‘এখনই ফাইনাল নিয়ে চিন্তা করাটা হবে ভুল।’

ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলা মেসির দলের ওপর এবারও আছে স্পটলাইট। কিন্তু ২৩ সদস্যের নাম ঘোষণার পরপরই টুটে গেল তেকাঠির নিচের আস্থার জায়গাটা। হাঁটুর ইনজুরিতে শেষ হয়ে গেল সার্জিও রোমেরোর বিশ্বকাপ। ওদিকে মাত্রই ইনজুরি সেরে উঠেছেন স্ট্রাইকার সার্জিও অ্যাগুয়েরো ও মিডফিল্ডার লুকাস বিগলিয়া। তা ছাড়া জুভেন্টাসের তারকা পাওলো দিবালাও আকাশি-সাদায় নিজেকে ঠিক মেলে ধরতে পারেননি। তাই বরাবরের মতো সব ভরসা যেন ওই লিওনেল মেসিই। তিনি খেলেননি, স্পেনের কাছে তাই ৬-১ গোলে হেরে বসেছে আর্জেন্টিনা গত মার্চে। এখনো ঠিক গুছিয়ে উঠতে পারেনি দলটি। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে কোচ হোর্হে সাম্পাওলিও দলটার একটা সুন্দর চেহারা দিতে শেষ মুহূর্তের কাজ করছেন। তাই বোধ হয় ৩৩ বছর বয়সী ওই ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার মাথা থেকে এখন শিরোপা-চিন্তা বাদ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন, ‘বিশ্বকাপ জিতে যাচ্ছি, এই চিন্তাটা একদম বাদ দিতে হবে আমাদের। সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, এখন আমাদের একটা দল হয়ে খেলে আগে নিজেদের আস্থার জায়গাটা ঠিক করতে হবে।’ ১৬ জুন প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে আইসল্যান্ডের, তুলনায় ক্রোয়েশিয়া ও নাইজেরিয়ার বিপক্ষে পরের ম্যাচ দুটি একটু কঠিন।

আর্জেন্টাইন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারের এটা হবে চতুর্থ এবং হয়তো-বা শেষ বিশ্বকাপ। অভিজ্ঞতা তাঁর কম নয়। ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে গোল মিসের মহড়া দিয়ে আর্জেন্টিনা হারিয়েছে তৃতীয় বিশ্বকাপ জয়ের সুযোগ। পরের দুই বছর কোপা আমেরিকার ফাইনালে ওঠে পায়নি শিরোপার স্বাদ। এই ফাইনালের মঞ্চে গিয়ে আর্জেন্টাইন খুদে জাদুকরও কুপোকাত। সেই মঞ্চের কথা এখনই ভাবতে চান না আর্জেন্টিনার জার্সিতে ১৪২টি ম্যাচ খেলা মাসচেরানো, ‘আমাদের আসল কাজ হচ্ছে বিশ্বকাপে ভালোভাবে শুরু করা। ফাইনালের আকাশকুসুম ভাবনা বাদ দিয়ে ধাপে ধাপে এগোনোর চিন্তা করতে হবে। এরপর বিশ্বকাপই তোমাকে পথ দেখিয়ে নিয়ে যাবে।’

সেই পথে কী অপেক্ষা করছে কে জানে। ব্যর্থতার ‘সিলাভার জুবিলি’ কারো প্রত্যাশা নয়, আর্জেন্টাইনরা চাইছে মেসির দল রাঙিয়ে উঠুক ’৭৮ কিংবা ’৮৬ বিশ্বকাপের রঙে। এপি



মন্তব্য