kalerkantho


ওয়েম্বলিতে নর্থ লন্ডন ডার্বি

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



অন্য সময় হলে নর্থ লন্ডন ডার্বিটাকে বলা যেত ‘পাড়া গরম করা ম্যাচ’। আর্সেনাল ও টটেনহাম হটস্পার, দুই দলের দুটি স্টেডিয়াম; এমিরেটস ও হোয়াইট হার্ট লেনের দূরত্ব মোটে চার মাইল। বলা যায় উত্তর পাড়ার এই দুই দলের সমর্থকরা সারা দিন হৈ-হল্লায় মাতিয়ে রাখতেন গোটা এলাকা। কিন্তু টটেনহাম এখন নিজেদের ম্যাচগুলো খেলছে ওয়েম্বলিতে। যেটা আবার উত্তর-পশ্চিম পাশে, দূরত্বটাও ১১ মাইলের বেশি। ‘ঝড়ের কেন্দ্রবিন্দু’ সরে গেলেও ডার্বি নিয়ে সমর্থকদের উত্তেজনার কমতি নেই। বিশেষ করে শীতকালীন দলবদলে আর্সেনালে এসেছেন হেনরিখ মিখিতারিয়ান ও পিয়েরে এমেরিক অবামেয়াং। প্রিমিয়ার লিগে শিরোপার রেস থেকে দুই দলই ছিটকে গেলেও পাঁচে ও ছয়ে তাদের অবস্থান। চ্যাম্পিয়নস লিগের জায়গা নিয়ে তাই দুই দলের ভেতরই এগিয়ে যাওয়ার লড়াই।

আর্সেনাল কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গার মনে করছেন, ডার্বির আবহ মাথা গরম করে দিতে পারে দলের খেলোয়াড়দের, ‘এই ম্যাচের আগে সব সময় খুবই আবেগ ও তাড়না কাজ করে। এতে করে খেলোয়াড়রা একটু মাথা গরমও করে ফেলতে পারে। এটা এমন একটা ম্যাচ যেটাতে সবাই খুবই আবেগতাড়িত থাকে। আমাদের জন্য এটা চ্যাম্পিয়নস লিগের জায়গার কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ। এটাই অগ্রাধিকার পাচ্ছে।’ নিজ মাঠে টটেনহামকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল আর্সেনাল, তবে স্পারদের মাঠে ২০১৪-র পর থেকে তারা কখনো জেতেনি। তবে এবার আর হোয়াইট হার্ট লেনে হচ্ছে না ডার্বি, কারণ সেখানে নতুন করে বড় স্টেডিয়াম বানানোর কাজ চলছে। তাই ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের মাঠ ওয়েম্বলিতে খেলছে টটেনহাম। গত বছর মে মাসেই এখানে চেলসিকে হারিয়ে এফএ কাপের শিরোপা জিতেছে গানাররা। বিবিসি, এএফপি



মন্তব্য