kalerkantho


মুখোমুখি রিয়াল-পিএসজি, বার্সার প্রতিপক্ষ চেলসি

১২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



মুখোমুখি রিয়াল-পিএসজি, বার্সার প্রতিপক্ষ চেলসি

রোমা হতে পারত প্রতিপক্ষ। কিংবা বেসিকতাস। তাহলেই চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ ষোলোর দ্বৈরথটি হয়ে যেত এলেবেলে। গত দুইবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের সামনে ওই ক্লাব দুটি যে কেবল নামেই প্রতিপক্ষ!

প্যারিস সেন্ত জার্মেই তা নয়। আর ঠিকই তো রোমা-বেসিকতাসকে বাদ দিয়ে ওই ফরাসি ক্লাবটি হয়ে যায় রিয়ালের প্রতিপক্ষ। কাল চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর ড্রর সবচেয়ে আকর্ষণীয় লড়াই যে এটিই—রিয়াল বনাম পিএসজি।

ড্রয়ের ভাগ্য অমন ক্রূর হাসি হাসেনি হয়তো বার্সেলোনার দিকে। তবে চেলসিকে পেয়ে স্বস্তির সুযোগ নেই স্প্যানিশ ক্লাবটির। চ্যাম্পিয়নস লিগে বার্সার পথে কাঁটা বিছিয়েছে তারা বেশ কয়েকবার। বার্সা-চেলসির আরেকটি জমজমাট দ্বৈরথের প্রত্যাশায় তাই বাড়াবাড়ি নেই।

শিরোপার সবচেয়ে বড় দুই দাবিদার এই রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা। গ্রুপ পর্ব শেষে নকআউট পর্বের ড্রর শুরুতেই কঠিন প্রতিপক্ষ পেল তারা। বিরতি শেষে আগামী ফেব্রুয়ারিতে আবার মাঠে গড়াবে ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের এই বিশ্বকাপ। সেখানে রিয়াল-পিএসজি, বার্সা-চেলসির দ্বৈরথ বাদ দিলে বাকিগুলোতে স্পষ্ট ফেভারিট খুঁজে বের করা কঠিন না। গতবারের ফাইনালিস্ট জুভেন্টাস প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে টটেনহাম হটস্পারকে। মাত্রই ম্যানচেস্টার ডার্বি খেলা দল দুটির প্রতিপক্ষও তত কঠিন নয়। ম্যানচেস্টার সিটি খেলবে বাসেলের বিপক্ষে; ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রতিপক্ষ সেভিয়া। ইংল্যান্ডের আরেক দল লিভারপুলের সামনে পোর্তো। জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখ পেয়েছে বেসিকতাসকে। আর সবচেয়ে অনাকর্ষণীয় ড্রতে মুখোমুখি হবে রোমা ও শাখতার দোনেতস্ক।

গত দুইবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল এই মৌসুমে বেশ বিবর্ণ। স্প্যানিশ লিগে বার্সেলোনার চেয়ে বেশ পিছিয়ে; চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বেও টটেনহামের পেছনে থেকে হয়েছে রানার্স-আপ। অন্যদিকে পিএসজি আত্মবিশ্বাসে ফুটছে। ফরাসি লিগের পাশাপাশি ইউরোপেও গ্রুপ পর্বের শীর্ষস্থান তাদের। নেইমার-এমবাপ্পে-কাভানি ত্রয়ী ত্রাস ছড়াচ্ছে এমনকি রোনালদো-বেল-বেনজিমার চেয়েও। এই ড্রতে যে খুব খুশি নন, কাল তা বোঝা গেছে রিয়াল মাদ্রিদের ডিরেক্টর অব ফুটবল এমিলিও বুত্রাগুয়েনোর কথায়, ‘এই দুই দলের মুখোমুখিটা একটু তাড়াতাড়ি হয়ে গেল। দুটি দলই শিরোপার দাবিদার। খুব সহজেই এটি হতে পারত ফাইনাল। কিন্তু এই পর্যায়ে ড্রতে মুখোমুখি হওয়ার অর্থ, এক দলকে বিদায় নিতে হবে। পিএসজির শক্তি প্রতিবছরই বাড়ছে। গ্রুপ পর্যায়ে অসাধারণ খেলেছে এবং অনেক ভালো করার সামর্থ্য রয়েছে। রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে ড্র ওদের জন্যও ভালো হয়নি।’ পিএসজির কোচ উনাই এমেরির মনে যা-ই থাক, মুখের কথায় রয়েছে আত্মবিশ্বাস, ‘আমার মনে হয়, ড্রটি ভালোই হয়েছে। রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার বিশ্বাস আমার রয়েছে। চ্যাম্পিয়নস লিগে দুর্দান্ত কিছু করতে হলে সেরা দলগুলোকে হারাতে হবে। আর রিয়াল মাদ্রিদের মতো দলের বিপক্ষে খেলার জন্য শেষ ষোলো ভালো জায়গা। এখানে দৃঢ়তা, কৌশলগত দক্ষতা ও প্রতিভা দেখাতে হবে আমাদের। বিশেষত প্রতিভা, যা খুব গুরুত্বপূর্ণ।’

বার্সেলোনা হয়তো খুব করে এড়াতে চেয়েছিল চেলসিকে। এই ইংলিশ ক্লাবের সামনে হোঁচট খেয়েছে তারা বেশ কয়েকবার। সর্বশেষ ২০১২-১৩ মৌসুমের সেমিফাইনালে; দুই লেগ মিলিয়ে ২-৩ গোলে হেরে বিদায় নেয় বার্সা। সেখানে লিওনেল মেসি মিস করেন পেনাল্টি। আশ্চর্য এই যে, চেলসির বিপক্ষে আট ম্যাচে কোনো গোল নেই আর্জেন্টাইন তারকার! তবে চেলসির সঙ্গে ড্রয়ের পর সেটিকে স্বাগত জানিয়েছেন বার্সেলোনা পরিচালক গিলেরমো আমোর, ‘জানতাম যে, ড্রতে চেলসিকে পাওয়ার বেশ সম্ভাবনা রয়েছে। তা-ই হলো। ব্যাপারটিকে স্বাগত জানাচ্ছি। যদি শিরোপা জিততে হয়, তাহলে হারাতে হবে সবাইকে।’ উয়েফা


মন্তব্য