kalerkantho


আলীম দারের কারণে...

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



আলীম দারের কারণে...

কলম্বো থেকে প্রতিনিধি : অফস্পিনার মোসাদ্দেক হোসেনের করা দিনের শেষ বলটি ব্যাকফুটে গিয়ে লেগের দিকে ঘোরাতে চেয়েছিলেন সুরঙ্গা লাকমল। কিন্তু ব্যাটে-বলে ঠিকঠাক হলো না।

না হওয়ায় বল উঠে গেল এবং ফরোয়ার্ড শর্ট লেগে সেটি তালুবন্দি করলেন সাব্বির রহমান। বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের কাছে সেটি লাকমলের ব্যাট ছুঁয়ে গিয়েছে মনে হওয়াতেই তাঁরা আবেদনও করলেন। তখনই একযোগে ঘটতে শুরু করল বিচিত্র সব ঘটনা।

লাকমল নিজেই উল্টো ঘুরে হাঁটা ধরলেন ড্রেসিংরুমের পথে, তবে কয়েক পা এগিয়ে আবার ফিরেও এলেন। ততক্ষণে বাংলাদেশের ফিল্ডারদের আবেদনে আম্পায়ার আলীম দারকে দেখা গেল মাথা নাড়ছেন। পর মুহূর্তেই আবার এই পাকিস্তানি আম্পায়ার সিদ্ধান্ত বদলে জানিয়ে দিলেন লাকমল নট আউট। কয়েক মুহূর্তেই সিদ্ধান্তের এমন অদল-বদল কাউকে অবাক না করে দিয়ে পারেই না। অগত্যা বাংলাদেশ দল রিভিউ নিয়ে নেয়। কিন্তু বল ব্যাটে লেগেছে কী লাগেনি, তা নিয়ে নিশ্চিত সিদ্ধান্তে পৌঁছার মতো প্রযুক্তি ‘স্নিকো’ এই সিরিজে নেই।

না থাকায় যথারীতি তৃতীয় আম্পায়ার মরিস ইরাসমাসও পারলেন না উপসংহারে পৌঁছতে।

এসব ক্ষেত্রে যা হওয়ার তা-ই হলো, নট আউট ঘোষণা করা হলো লাকমলকে। দিনের শেষে বাংলাদেশ দলের হতাশা অবশ্য সেটি নিয়ে নয়। হতাশা শুরুতে আলীম দারের মাথা নাড়ানো নিয়ে। কাকতালীয়ভাবে দলের প্রতিনিধি হিসেবে কাল সংবাদ সম্মেলনে এলেন বোলার মোসাদ্দেকই। তিনি কোনো রাখঢাক না করেই বলে দিলেন, ‘দিনের শেষ বলে আম্পায়ারের প্রতিক্রিয়া দেখেই আমরা রিভিউটা নিয়েছিলাম। উনি প্রথমে মাথা ঝাঁকানোতে আমরা আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছিলাম। মনে হয়েছিল রিভিউ নিলে সিদ্ধান্ত আমাদের পক্ষে আসার সুযোগ আছে। ব্যাটসম্যান বেরিয়ে যাচ্ছিল কি না, সেটি ঠিক খেয়াল করিনি। আম্পায়ারের প্রতিক্রিয়ার দিকেই লক্ষ রাখছিলাম। ’ সেই প্রতিক্রিয়া দেখে রিভিউ নিয়ে হোঁচট খাওয়া বাংলাদেশ দলের অবশ্য এসব ক্ষেত্রে কিছুই করার নেই বলে জানালেন ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ, ‘ম্যাচ রেফারির কাছে অধিনায়কের যে প্রতিবেদন যায়, তাতে আম্পায়ারিংয়ের ত্রুটি-বিচ্যুতি উল্লেখ করা ছাড়া আমাদের করার কিছুই নেই। ’ যদিও হোটেলে ফেরার আগে ক্ষোভ অনেকটাই প্রশমিত হয়েছে। বারবার দেখে বাংলাদেশ দলও আশ্বস্ত যে বল লাকমলের ব্যাটেই লাগেনি। তাই বলে আলীম দারের মাথা ঝাঁকানো এবং পরে না বলা নিয়ে বিস্ময় কমেনি!


মন্তব্য