kalerkantho


মুখোমুখি গুরু-শিষ্য

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



মুখোমুখি গুরু-শিষ্য

কাল রাতে রিয়াল মাদ্রিদ খেলেছে অ্যাথলেতিক বিলবাওয়ের সঙ্গে। ম্যাচের আগের প্রথাগত সংবাদ সম্মেলনের জন্য জিনেদিন জিদান মঞ্চে বসার আগেই হয়ে গেছে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের ড্র।

তাতে রিয়াল মাদ্রিদ প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে বায়ার্ন মিউনিখকে। এই ‘ক্ল্যাশ অব টাইটানস’ ঠিক হয়ে যাওয়ার পরই ফুটবল-বিশ্বে নানা রকম প্রতিক্রিয়া। টুইটারে ঝড়, অতীত ইতিহাস, অনেক কিছুই এসেছে প্রসঙ্গক্রমে। তবে সব ছাপিয়ে আলোচনায় গুরু-শিষ্যের দ্বৈরথ। ২০১৩ সালে, কার্লো আনচেলোত্তি যখন রিয়াল মাদ্রিদের কোচ, তখন জিদান ছিলেন তাঁর সহকারী! রিয়ালকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতানো সবশেষ দুজন কোচই এবার ভাগ্যচক্রে একে অন্যের মুখোমুখি।

বিলবাওয়ের বিপক্ষে ম্যাচের আগে জিদানের সংবাদ সম্মেলনে তাই ঘুরে ফিরে এসেছে আনচেলোত্তির প্রসঙ্গ। বায়ার্নের বিপক্ষে ম্যাচটিকে জিদান বলছেন বিশ্বজোড়া ফুটবলপ্রেমীদের জন্য পরম কাঙ্ক্ষিত এক দ্বৈরথ, তবে একই সঙ্গে সেটা তাঁর জন্য খানিকটা অস্বস্তিরও, ‘এই নিয়ে তাঁর (আনচেলোত্তি) সঙ্গে কোনো কথাই হয়নি। আমাদের সম্পর্কটা হচ্ছে গুরু ও শিষ্যের মতো। উনি একজন ভালো মানুষ, আমি এখানে তাঁর সহকারী ছিলাম।

সবাই জানে একসঙ্গে এখানে আমরা কী অর্জন করেছি। আমরা একে অন্যকে ভালো জানি, এখন মাঠে যেকোনো কিছুই হতে পারে। ’ তবে জিদান বলছেন, এই চেনা-জানার চেয়ে মাঠে খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সই ঠিক করে দেবে সব, ‘কে কেমন দল সেটা নয় বরং মাঠে কাদের মনোভাব কেমন থাকবে, কারা জয়ের জন্য বেশি মরিয়া থাকবে, সেটাই দিনশেষে ব্যবধান গড়ে দেবে। ’ নিজেরা বায়ার্নকে যেমন ভয় পাচ্ছেন না, তেমনি বায়ার্নও ভয়ে থাকবে না বলে মনে করছেন জিদান, ‘বায়ার্ন কিন্তু ভয় পাবে না, তারা দারুণ দল ও ভালো খেলছে। বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের কাছে এটা হবে চমত্কার এক দ্বৈরথ। নকআউট পর্বে সম্ভাবনা ৫০-৫০, এমনটাই সব সময় হয়ে আসছে। বলা হয় প্রতিপক্ষের মাঠে আগে খেলাটা সুবিধাজনক, তবে তাতে কিছু বদলাচ্ছে না। আমাদের জার্মানি গিয়ে খেলতে হবে এবং গোল করতে হবে। এরপর ফিরতি লেগের ব্যাপারে ভাবা যাবে। ’

আনচেলোত্তির সঙ্গে সম্পর্কটা ভালো ছিল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর। রিয়াল অধিনায়ক সের্হিয়ো রামোসও ছিলেন এই ইতালিয়ানের স্নেহধন্য। লুকা মডরিচকে তো বায়ার্নে পেতে ব্যাকুল ছিলেন আনচেলোত্তি। শেষ আটে প্রতিপক্ষ রিয়াল মাদ্রিদ শোনার পর আনচেলোত্তি জানিয়েছেন, ‘রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচটি আমার জন্য বিশেষ একটা কিছু। তবে এবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা নিয়ে আমরা খুব আশাবাদী, রিয়ালকে হারাব সেই আত্মবিশ্বাস আমাদের আছে। ’

তিনটি চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপাসহ চারবার ফাইনালে দলকে তোলা একমাত্র কোচ আনচেলোত্তি। তাঁকে ধরা হয় সর্বকালের সেরা কোচদের একজন হিসেবে। তিনটি আলাদা দলকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতানোর কৃতিত্বের সামনে বাধা নিজেরই এক পুরনো শিষ্য। পেশাদার কোচ আনচেলোত্তি নিশ্চিতভাবেই আবেগে ভেসে যাবেন না, ধরে রাখবেন অখণ্ড মনোযোগই। জিদানও নিশ্চয়ই গুরুকে ছাড় দেবেন না এক বিন্দুও। তাই এটা হবে এমন এক ম্যাচ, যে ম্যাচটি হারলে হারা দলের কোচের মনে একটু বিষাদ ভর করবেই! মার্কা, রিয়াল, গোল


মন্তব্য