kalerkantho

সহজ জয়ে আইপিএল শুরু চেন্নাইয়ের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:৫২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সহজ জয়ে আইপিএল শুরু চেন্নাইয়ের

আইপিএলের ১২তম আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে ৭ উইকেটে পরাজিত করে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বাধীন চেন্নাই সুপার কিংস।

প্রথমে ব্যাট করে ইমরান তাহির এবং হরভজন সিংহের স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ৭০ রানে অলআউট বেঙ্গালুরু। টার্গেট তাড়া করতে নেমে নির্ধারিত ওভারের ১৪ বল আগে দলের জয় নিশ্চিত করে চেন্নাই সুপার কিংস।

চেন্নাইয়ের হয়ে ৪ ওভারে মাত্র ৯ রানে ৩ উইকেট শিকার করেন দক্ষিণ আফ্রিকার লেগ স্পিনার ইমরান তাহির। এ ছাড়া ৪ ওভারে ২০ রানে ৩ উইকেট শিকার করেন হরভজন সিং।

শনিবার চেন্নাইয়ের এম চেন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় বেঙ্গালুরু।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেন হরভজন সিং। জাতীয় দলের সাবেক এই তারকা অফ স্পিনারকে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ডিপ মিডউইকেটে থাকা রবিন্দ্র জাদেজার হাতে ক্যাচ তুলে দেন দিয়ে ফেরেন কোহলি।

কোহলির পর মঈন আলীকে সাজঘরে ফেরান হরভজন সিং। এরপর চতুর্থ ওভারে বোলিংয়ে এসে বেঙ্গালুরুর তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সকে আউট করেন ভাজ্জি।

১৫০তম ম্যাচ খেলতে নেমে কোহলি-মাঈন আলী-ভিলিয়ার্সকে আউট করে ড্যারেন ব্রাভোকে পেছনে ফেলেন হরভজন সিং। ১৩৮ উইকেট শিকারের মধ্য দিয়ে আইপিএল সেরা বোলারের তালিকায় শীর্ষ চারে উঠে এসেছেন হরভজন। ১৫৪ উইকেট শিকার করে সবার ওপরে আছেন লাসিথ মালিঙ্গা। ১৪৬ উইকেট শিকার করে দ্বিতীয় পজিশনে অমিত মিশ্র।

হরভজনের কারিশমা শেষ হতে না হতেই শুরু হয় ইমরান তাহিরের লেগ স্পিন। তার শিকার হয়ে একের পর এক সাজঘরে ফেরেন শিভম দুবে, নভদীপ সাইনি ও যুজবেন্দ্র চাহাল।

উইকেট পতনের কারণে শেষ পর্যন্ত ১৭.১ ওভারে ৭০ রানেই অলআউট বেঙ্গালুরু। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ২৯ রান করেন ওপেনার পার্থিব প্যাটেল। তিনি ছাড়া দলের ১০ জন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে দলীয় ৮ রানে ওপেনার শেন ওয়াটসনের উইকেট হারায় চেন্নাই। তিনে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩২ রানের জুটি গড়ে আউট হন সুরেশ রায়না। তার আগে করেন ২১ বলে ১৯ রান। আর এই ১৯ রান করার মধ্য দিয়ে আইপিএলের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে পাঁচ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন রায়না।

চেন্নাইয়ের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল মাত্র ১২ রান। খেলার এমন অবস্থায় উইকেট হারান অন্য ওপেনার আম্বাতি রাইডু। তিনি ফেরেন ৪২ বলে ২৮ রান করে। দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে মাঠ ছাড়েন কেদার যাদব ও রবিন্দ্র জাদেজারা।

মন্তব্য