kalerkantho


ভিয়েতনামকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২১:৩৪



ভিয়েতনামকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ

ভিয়েতনামকে হারিয়েই এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বে ‘এফ’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই পরের রাউন্ড নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ দল।

আজ কমলাপুরস্থ বীরশ্রেষ্ঠ শহিদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে একক আধিপত্য বিস্তার করে যোগ্য দল হিসেবেই শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে স্বাগতিক বালিকারা। টানা চার ম্যাচে জয়ের ফলে পূর্ণ ১২ পয়েন্ট নিয়েই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা।

এর আগে প্রথম তিন ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালে ২৫ বার বল পাঠিয়েছে স্বাগতিক দল। সমান পয়েন্ট নিয়ে তাদের সহাবস্থানে ছিল ভিয়েতনামও। মজার বিষয় হচ্ছে গোলের দিক থেকেও সমানে সমান ছিল দল দুটি। যে কারণে আজকের বাংলাদেশ বনাম ভিয়েতনামের ম্যাচটি ‘অঘোষিত ফাইনালে’ পরিণত হয়। যে দল জয় পাবে সে দলই পাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার ছাড়পত্র। অবশেষে ভিয়েতনামকে হারিয়ে সেই লক্ষ্য পুরণ করল বাংলাদেশের বালিকারা।

৯ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হিসেবেই সন্তুস্ট থাকতে হচ্ছে ভিয়েতনামকে। চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় আগামী বছর ২৩ ফেব্রুয়ারি থাইল্যান্ডে শুরু হতে যাওয়া দ্বিতীয় রাউন্ড খেলতে যাবে বাংলাদেশ।

আজ বল মাঠে গড়ানোর পর থেকেই ভিয়েতনামের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক মেজাজে খেলতে শুরু করে টিম বাংলাদেশ। ম্যাচের ৫ মিনিটেই লিড নেওয়ার সুযোগও এসেছিল। কিন্তু রিতুর আড়াআড়ি শটটি সাইড বার ঘেঁষে বাইরে চলে গেলে সে যাত্রায় বেঁচে যায় ভিয়েতনাম। এ সময় একের পর এক আক্রমণ করে ভিয়েতনামকে কোনঠাঁসা করে ফেলেছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু গোলের দেখা পাচ্ছিল না। ম্যাচের ৩৭ মিনিটে প্রতিপক্ষ দলটির শক্ত রক্ষণ প্রাচীরে চিড় ধরায় গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। কিন্তু শামসুন্নাহার জুনিয়রের দেওয়া সেই গোলটি অফ সাইড কল করে বাতিল করে দেন অস্ট্রেলিয়ান রেফারি ক্যাথরিন।

এতে সাময়িকভাবে হতাশার কালো মেঘে ঢেকে যায় লাল-সবুজ শিবির। সেই মেঘ দূর করতে বেশী সময় নেয়নি বাংলাদেশ। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে গোল করে সবাইকে উৎসবে মাতিয়ে তোলেন তহুরা খাতুন। ভিয়েতনামের গোলরক্ষক থি ওয়ান তহুরা নেওয়া শটটি গ্রিপে নিতে ব্যর্থ হলে সামনে দাঁড়ানো শামসুন্নাহার জুনিয়র সামনের দিকে ঠেলে দেন বল। দৌঁড়ে এসে তহুরা খাতুন নিচু হেডে বল জালে জড়ান। উৎসবে মেতে উঠে মাঠে ছুটে আসা হাজার তিনেক সমর্থক (১-০)।

দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণের সেই ধারা অব্যাহত রাখে স্বাগতিকরা। তহুরার হাত ধরে গোলও পেয়ে গিয়েছিল লাল-সবুজ জার্সীধারীরা। কিন্তু এবারো অফসাইড কল করে গোল বাতিল করে দেন রেফারি ক্যাথরিন। কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন প্রতিবাদও জানান। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। গোল বাতিলের পর যেনো আরো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠে স্বাগতিক দল। প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণ ভেঙে দিয়ে ম্যাচের ৬৩ মিনিটে স্কোর লাইন ২-০ এ পৌছে দেন আখি খাতুন। কর্নার থেকে উড়ে আসা বল শামসুন্নাহার জুনিয়র শট নিলে সাইডবারে লেগে ফিরে আসে। ফিরতি বলে আখি শট নিলে প্রথম গোল গোলরক্ষক ফিরিয়ে দেন। ফিরতি বলে আবারো জোড়ালো শটে নিশানা ভেদ করেন বাংলাদেশ দলের এ ডিফেন্ডার (২-০)।

ম্যাচ শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট আগে আরো একবার প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠিয়েছিলেন তহুরা খাতুন। এবারের গোলটিও বাতিল হয়ে যায় অফ সাইডের কারনে। একে একে তিনটি গোল অফ সাইড কল করে বাতিল করায় হতাশ কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন খেলা শেষে বলেন,‘একটি গোলও অফ সাইড ছিল না। আর এগুলো নিয়ে কোনো অভিযোগ দিলে কাজ হয় না। গত সাত/আট বছরে আমার অনেক অভিজ্ঞতা হয়েছে। অভিযোগ দিলে এএফসি রেফারির পক্ষেই থাকে। তাই এসব বিষয়ে কোনো অভিযোগ দিতে চাই না।

শিষ্যদের পারফরমেন্সে সন্তুস্ট কোচ বলেন, ‘মেয়েরা অনেক কষ্ট করেছে। শুরু থেকেই আজ আক্রমণাত্মক ছিল। ভিয়েতনামকে এক মুহুর্তের জন্যও সুযোগ দেয়নি আমার দল। আমি দলের পারফরমেন্সে অত্যন্ত খুশী।’

দুটি গোল বাতিল করলেও হতাশ নন তহুরা খাতুন। তিনি বলেন,‘আমার গোল বাতিল করেছে তাতে মোটেও খারাপ লাগছে না। কারণ দল জিতেছে।’ স্বাগতিক দলের আরেক গোলদাতা আঁখি খাতুন বলেন, ‘দলের এমন জয়ে আনন্দটা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। খুব ভালো লাগছে গোল করতে পারায়।’



মন্তব্য