kalerkantho


নেপালকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ০০:৩৮



নেপালকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা

মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবলে টানা দ্বিতীয় জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করল সেমিফাইনালে উঠল মারিয়া-আঁখিরা। সোমবার তারা ৩-০ গোলে হারিয়েছে নেপালকে। ১৬ আগস্ট সেমিফাইনালে বাংলাদেশ খেলবে স্বাগতিক ভুটানের বিপক্ষে। একই দিনে প্রথম সেমিফাইনালে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ভারতের মুখোমুখি হবে ‘বি’ গ্রুপের রানার্সআপ নেপাল।

থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে প্রথমার্ধ প্রধান্য বিস্তার করে খেলে বাংলাদেশ। তবে গোল আদায় করতে অপেক্ষা করতে হয়েছে ইনুজির টাইম পর্যন্ত। বারবার বাংলাদেশের আক্রমণ ব্যর্থ করে দিয়েছে নেপালের ডিফেন্ডাররা। তহুরা-মারিয়ারা বেশ কয়েকটি আক্রমণ করেও একটির বেশি গোল আদায় করতে পারেনি। উল্টো ৪৩ মিনিটে নেপালের একটি ফ্রি কিকের শট ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। অল্পের জন্য রক্ষা পায় বাংলাদেশ দল।

ম্যাচ শেষে করতালি দিয়ে অভিনন্দন জানিয়েছে বাংলাদেশ দলকে। মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টে গ্রুপের শেষ ম্যাচে নেপালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে অবশ্য বেশ স্বস্তি নিয়েই হোটেলে ফিরেছে বাংলাদেশ। দিনের অন্য ম্যাচে ভারত ১-০ গোলে হারিয়েছে ভুটানকে। বাংলাদেশের একটি গোল করেছে তহুরা খাতুন। মারিয়া মান্দাকে দিয়ে করিয়েছে আরেকটি গোল। ম্যাচের তৃতীয় গোলটি করেছে সাজেদা খাতুন।

প্রথমার্ধের ইনজুরি সময়ে সৌভাগ্য ধরা দেয় বাংলাদেশের হাতে। বাঁ প্রান্ত থেকে অধিনায়ক মারিয়ার কর্নারের বল দেওয়া-নেওয়া করে ঘুরে আবার আসে তারই কাছেই। ডি-বক্সের বাইরে থেকে মারিয়ার ক্রসেই পোস্টের সামনে থেকে ফরোয়ার্ড তহুরা খাতুন হেডে লক্ষ্যভেদ করেন। এটি ছিল টুর্নামেন্টে তার তৃতীয় গোল।

এক গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যাওয়া বাংলাদেশ দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নামে আরো উজ্জীবিত হয়ে। এই অর্ধে বাংলাদেশের গোছালো আক্রমণের কাছে দাঁড়াতে পারেনি নেপাল। ৫১ মিনিটে তহুরার শট নেপালি ডিফেন্ডার প্রতিহত করলে ফিরতি বল পান মারিয়া। বাঁ পায়ের জোরালো শটে গোলকিপারকে পরাস্ত করে ২-০ গোলে বাংলাদেশকে এগিয়ে দেন অধিনায়ক।

৬৭ মিনিটে শেষ গোলটি করেন সাজেদা খাতুন। বল নিয়ে বক্সে ঢুকে গোল রক্ষককে পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে দেন। টুর্নামেন্টে সাজেদারও এটি ছিল তৃতীয় গোল।

আগের ম্যাচে দুর্বল পাকিস্তানের জালে ১৪টি গোল দিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু কাল নেপালের বিপক্ষে গোল পেতে বেশ কষ্টই হয়েছে বাংলাদেশের মেয়েদের। নেপালি ডিফেন্ডারদের কড়া মার্কিংয়ে বারবার খেই হারিয়েছে তহুরা-সাজেদারা। অথচ শুরুর দুই মিনিটেই হতে পারত দুটি গোল! দুটো সহজ সুযোগ শুরুতে নষ্ট করে শামসুন্নাহার সিনিয়র।

বাংলাদেশের মেয়েরা ড্র করলেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে পারত। কিন্তু ড্র নয়, জয় নিয়েই হয়েছে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন। কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের মুখে তাই ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে ছিল স্বস্তির হাসি, ‘আল্লাহকে ধন্যবাদ যে আমরা যে লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমেছিলাম সেটা হয়েছে। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে উঠেছি। আমাদের মেয়েরা স্বাভাবিকভাবেই খেলেছে। ওরা ৯০ মিনিট একই ছন্দে খেলেছে। প্রথমার্ধে নেপাল সমানতালে খেললেও দ্বিতীয়ার্ধে আমাদের মেয়েদের ফিটনেসের সঙ্গে ওরা কুলিয়ে উঠতে পারেনি। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে আমাদের মেয়েরা জয় তুলে নিয়েছে।’



মন্তব্য