kalerkantho


ধোনি কি সত্যিই 'বেস্ট ফিনিশার'? কী বলছে পরিসংখ্যান?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ জুলাই, ২০১৮ ২০:০৫



ধোনি কি সত্যিই 'বেস্ট ফিনিশার'? কী বলছে পরিসংখ্যান?

ভারত তথা সমগ্র ক্রিকেটবিশ্বের অন্যতম সেরা অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। এই মুহূর্তে আছেন সমালোচকদের নিশানায়। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে স্লো-স্টাইক রেটে ৫৯ বলে ৩৭ রানের ইনিংসের পর ধোনির 'সেরা ফিনিশার' তকমা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।অনেকে তো ধোনির অবসর নেওয়ার পক্ষেও কথা বলছেন। চলতি ইংল্যান্ড সফরে ২-১ ব্যবধানে হারা ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচের পর ধোনির অবসর নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। এদিকে পরিসংখ্যান কী বলছে? সত্যিই কি ধোনির এবার ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর সময় হয়ে গেছে?

ধোনির ক্যারিয়ারের দিকে তাকালে এই প্রশ্নের জবাব পাওয়া যাবে। আসুন দেখে নেওয়া যাক শেষ ১২ মাসে ধোনির পারফরম্যান্সের এক ঝলক। ২০১৮ সালে মোট ৯টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন ধোনি। ৬টি ইংনিস দলের হয়ে ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছেন। রান করেছেন মাত্র ১৪৮। নট-আউট থেকেছেন দুই বার। এই ৬টি ইনিংসে ধোনির সর্বোচ্চ স্কোর ৪২*। এখন পর্যন্ত কোনো ম্যাচে ০ রানে আউট হননি। এই ৯ ম্যাচে ধোনির ব্যাটিং গড় ৩৭। আর স্ট্রাইক-রেট ৭০.৪৮।

২০০৪ সালে ক্যারিয়ারের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত এটাই ধোনির সবচেয়ে লো-স্ট্রাইক রেট। এর আগে ২০১০ সবচেয়ে কম ৭৮.৯৫ স্ট্রাইক রেট ছিল সাবেক ভারত অধিনায়কের। উইকেটকিপার হিসেবে চলতি বছরের ৯ ম্যাচ ধোনির সংগ্রহ ৭টি ক্যাচ এবং দুটি স্টাম্পিং।

গত বছরের দিকে চোখ রাখলে দেখা যাবে ২০১৭ মোট ২৯টি ওয়ানডে ম্যাচে ২২ ইংনিস দলের হয়ে ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছিলেন ধোনি। এই ২২ ইনিংসে ধোনির মোট রান ছিল ৭৮৮। নট-আউট ছিলেন ৯ বার। ধোনির সর্বোচ্চ স্কোর ছিল ১৩৪। ২০১৭ কোনো ওয়ানডে ম্যাচে ০ রানে আউট হননি। গত বছর ধোনির মোট ব্যাটিং গড় ছিল ৬০.৬২। স্ট্রাইক রেটও ছিল ৮৪.৭৩। ২০১৭ সালে ২৯ ওয়ানডে ম্যাচে মোট ২৬টি ক্যাচ নিয়েছিলেন ধোনি, স্টাম্পিং করেছিলেন ১৩টি।

সর্বশেষ ১২ মাসে ধোনি ২৫ ম্যাচে ৫৫০ রান করেছেন। ব্যাটিং গড় ৫০। স্ট্রাইক রেট ৭৯.৩৬। জস বাটলার, ব্রেন্ডন টেইলর, কুইন্টন ডি'ককদের মত উইকেটকিপারদের থেকে খুব একটা পিছিয়ে নেই ধোনি। স্ট্রাইক-রেট কমলেও উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে তার ফিটনেস কিংবা পারফরম্যান্স এখনও যে কোনো ক্রিকেটারের জন্য ঈর্ষার কারণ। তাই তার অবসর নেওয়ার কোনো কারণ নেই। ভারতীয় দলের কোচ রবি শাস্ত্রী এবং অধিনায়ক বিরাট কোহলিও ধোনির সেই সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন।



মন্তব্য