kalerkantho


জিতেছে সেনেগাল, সমালোচিত হচ্ছেন জয়ের নায়ক

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ জুন, ২০১৮ ১৮:৫৭



জিতেছে সেনেগাল, সমালোচিত হচ্ছেন জয়ের নায়ক

১৬ বছর পর বিশ্বকাপে খেলতে এসে প্রথম ম্যাচেই চমক দেখিয়েছে সেনেগাল। এর আগে ২০০২ সালে প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে এসেই তখনকার ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে হারিয়েছিল তারা। সেবার কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত খেলেছিল সেনেগাল।

এবারের বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই পোল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়েছে দলটি। তবে সেই জয়ের নায়ক এমবায়ে নিয়াং এর অতীত নিয়ে অনেকেই সমালোচনা করছেন।

অনেক অপরাধের অভিযোগে ইতোমধ্যে সমালোচিত যেমন হয়েছেন, শাস্তিও পেয়েছেন। প্রথমবার ২০১২ সালে। সদ্য কিশোর নিয়াংকে পুলিশ আটক করে লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোর জন্য।

সে সময় তার লাইসেন্স করার বয়সই হয়নি। পরে অবশ্য পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। এরপর ২০১৪ সালে মপলিয়ের রাস্তায় সড়ক দুর্ঘটনা ঘটান। তার সেই ঘটানো সড়ক দুর্ঘটনায় অন্যান্য গাড়িও আক্রান্ত হয়েছিল। তখনো নিয়াংয়ের ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল না।

ওই দুর্ঘটনার জেরে নিয়াংকে ১৮ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। কিন্তু তখন সামাজিক কাজকর্ম করে কারাগারে যাওয়ার হাত থেকে বেঁচে যান তিনি।

২০১৬ সালে আবারো তিনি তার ফেরারি নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন এবং দুই বছর আগের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটান। তবে সেবারের দুর্ঘটনায় অন্য কারো গাড়ি সংযুক্ত ছিল না। তবে সেবার নিজের কাঁধে চোট পান তিনি।

এদিকে তার বাবা-মা সেনেগালের হলেও নিয়াং এর জন্ম ফ্রান্সে। সে কারণে বয়সভিত্তিক দলগুলোতে ফ্রান্সের হয়েই খেলে আসছিলেন নিয়াং। অবশেষে যখন অনূর্ধ্ব-২১ পর্যায়ে আসলেন তিনি তখন ফ্রান্সের হয়েই খেলার সিদ্ধান্ত নিলেন।

পরে ফ্রান্স থেকে সেনেগালের হয়ে খেলার সিদ্ধান্ত নিলে সমালোচনা শুরু হয়। ফ্রান্স কোচ দিদিয়ের দেশম তাকে দলে না ডাকায় সেনেগালের হয়ে গত বছর অভিষেক ঘটান তিনি। আর এজন্য প্রচুর সমালোচনার শিকারও হতে হয়েছে তাকে।

সব সমালোচনা উপেক্ষা করে অবশেষে সেনেগালের বিশ্বকাপ দলে জায়গা হয়েছে তার। সেনেগালের বিশ্বকাপ প্রত্যাবর্তন ম্যাচে গোল করে ম্যাচটি স্মরণীয়ও করে রেখেছেন এ সেনেগাল ফুটবলার। টুর্ণামেন্টের বাকিটা সময় সেনেগালিজদের মুখে হাসি রাখতে পারলে হয়তো জীবনের উলটো পিঠটাও দেখে ফেলবেন এমবায়ে নিয়াং।



মন্তব্য