kalerkantho


বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন অবলম্বনে

'এই জয়ে ক্রিকেটারদের মাথা থেকে হাথুরু-সাকিব বিদায় হয়েছে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ মার্চ, ২০১৮ ১৭:০৪



'এই জয়ে ক্রিকেটারদের মাথা থেকে হাথুরু-সাকিব বিদায় হয়েছে'

রেকর্ড গড়ে ম্যাচ জয়ের পর টাইগার ক্রিকেটারদের অভিনন্দন জানাচ্ছেন সাবেক কোচ এবং শ্রীলঙ্কার বর্তমান কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহে। ছবি: টুইটার

সর্বশেষ এক বছর আগে এই শ্রীলঙ্কার মাটিতেই সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি জিতেছিল বাংলাদেশ। সেই প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামেই গতকাল রাতে টানা পরাজয়ের বৃত্ত ভেঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের লক্ষ্য তাড়া করে শ্রীলঙ্কাকে হারাল টাইগাররা। দীর্ঘসময় ধরে টি-টোয়েন্টি ছিল বাংলাদেশের জন্য শুধুই আক্ষেপের নাম, কারণ পরাজয়ের বৃত্ত থেকে কোনভাবেই বের হতে পারছিলনা বাংলাদেশ। 

দীর্ঘ বিরতির পর বাংলাদেশ শুধু নিজেদেরই সর্বোচ্চ নয় বরং শনিবার রাতের ম্যাচটি জিতে নিতে টি-টোয়েন্টির ইতিহাসের চতুর্থ সর্বোচ্চ রান করেছে।  এবার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার ২১৪ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৫ উইকেট হাতে রেখেই জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ। এর আগে সর্বোচ্চ ১৬৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জেতার সাফল্য ছিল লাল-সবুজের দলের।

শনিবার রাতে কলম্বোতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে রেকর্ড জয়ের আগে ১৪ ম্যাচে বাংলাদেশের জয় ছিল মাত্র একটিতে। কলম্বোতে একজন ক্রীড়া সাংবাদিক মন্তব্য করেছেন, 'এ ধরনের কমপ্লিট ব্যাটিং টি-টোয়েন্টিতে আগে বাংলাদেশের কমই হয়েছে। বাংলাদেশ খেলোয়াড়দের যে শরীরী ভাষা এবং আত্মবিশ্বাসের দরকার ছিল এ ম্যাচে সেটি দেখা গেছে।'

সাবেক অধিনায়ক মাশরাফির অবসরের পর এটাই প্রথম বাংলাদেশের জয়। প্রেমাদাসায় দুই দলের সর্বশেষ ম্যাচটি ছিল ম্যাশের ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ। এবার দলের বিপদে তাকে আবারও ফেরানোর চেষ্টা করেছিল বিসিবি। কিন্তু ম্যাশ রাজী হননি। চলতি সিরিজে ইনজুরির কারণে টিমে ছিলেননা নিয়মিত অধিনায়ক এবং দলের অন্যতম ভরসা সাকিব আল হাসান। বড় তারকাদের দুজনকে ছাড়া এই জয় বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি ভীতি কাটিয়ে দিয়েছে বলেই মত ক্রিকেট বিশ্লেষকদের। হাতুরুসিংহে চলে যাওয়ার পর যে প্যানিকে ভুগছিল বাংলাদেশ সেটাও কেটে গেছে। এমনকী প্রমাণ হয়েছে, সুপারস্টার সাকিবকে ছাড়াও ম্যাচ জেতা সম্ভব।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের গেম ডেভেলপমেন্ট বিভাগের কোচ নাজমুল আবেদীন ফাহিম বলছেন, 'টি-টোয়েন্টিতে একটা বাধা ছিল, সেই বাধা ভেঙ্গে দিয়েছে খেলোয়াড়রা। এখন তারা নিজেরাই বুঝতে পারছে যে ১৮০/১৯০ রানের টার্গেট অতিক্রম করার সক্ষমতা তাদের আছে এবং এ জয়টি তাদের মানসিকতা সীমাবদ্ধতা ভেঙ্গে দিয়েছে"।

বাংলাদেশের অনেক তারকা ক্রিকেটারের শিক্ষক হিসেবে সুপরিচিত নাজমুল আবেদীন ফাহিম মনে করেন, বাংলাদেশ হয়তো প্রতি ম্যাচে জিতবেনা। কিন্তু যেকোনো ম্যাচ জিততে পারে এই বিশ্বাস এখন তৈরি হয়েছে আর সেটিই বাংলাদেশকে টি-টোয়েন্টিতে ভালো ফল এনে দেবে।

তার মতে বাংলাদেশ দীর্ঘদিন ধরেই টি-টোয়েন্টিতে কোনঠাসা অবস্থায় ছিল, তাই এ ধরনের একটি বড় জয় খুবই দরকার ছিল, 'এত বড় স্কোর তাড়া করে জেতাটা বাংলাদেশকে কোণঠাসা অবস্থা থেকে বের করে নিয়ে এসেছে। এই জয় বাংলাদেশর মানসিকতা সম্পূর্ণ বদলে দেবে এবং খেলোয়াড়দের বিশ্বাস ও খেলার ধরনেই পরিবর্তন নিয়ে আসবে।'

সাবেক অধিনায়ক শফিকুল হক হীরার মতে এ ম্যাচে দুটি বিষয় খেলোয়াড়দের মাথা থেকে সরে গেছে -একটি হলো হাথুরুসিংহে আর অন্যটি হলো সাকিব আল হাসান। সাকিবকে ছাড়াও ম্যাচ জেতা সম্ভব- এই বিশ্বাসটা অন্য খেলোয়াড়দের মধ্যে এসেছে এ ম্যাচ জয়ের মধ্য দিয়েছে।

তিনি বলেন, 'বোলার ব্যাটসম্যান মিলে দলের সেরা পাঁচজন ভালো করলেই যে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ভালো করে এ ম্যাচটিই তার প্রমাণ। আর এ জয়টিতে পাওয়া বিশ্বাসই সামনে দলটিকে সাফল্য এনে দেবে বলে মনে করেন তিনি।'



মন্তব্য