kalerkantho


শেষ উইকেটে ১২২ রানের সেই পার্টনারশিপ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৮:১০



শেষ উইকেটে ১২২ রানের সেই পার্টনারশিপ

দারুণ এক জুটি উপহার দেওয়ার পর ড্রেসিংরুমের বারান্দায় বসে চা খাচ্ছেন জন স্নো (বামে) এবং কেন হিগস। ছবি: দ্য গার্ডিয়ান

দল ভালো অবস্থাতে থাকুক আর খারাপ অবস্থাতে থাকুক, শেষ দিকে বোলাররা যদি কিছু রান তুলে দিতে পারে তবে তো সোনায় সোহাগা। বাংলাদেশের ক্রিকেটে টেইল অ্যান্ডারদের নিয়ে আক্ষেপ অনেকদিনের। এবার আসন্ন দুটি হোম সিরিজ উপলক্ষে টাইগার বোলারদেরও ব্যাটিং প্র্যাকটিস করাচ্ছেন টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। মাঠের খেলা শুরুর আগে জেনে নেওয়া যাক টেস্ট ক্রিকেটে শেষ উইকেটে দারুণ এক জুটির গল্প।

টেস্ট ক্রিকেটে শেষ উইকেট জুটিতে শতরান এসেছে ২৬ বার। কিন্তু এর মধ্যে মাত্র তিনটি জুটি গড়েছেন ১০ এবং ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান। তার একটি জুটি সম্পর্কে জানা যাক। আজ থেকে ৫২ বছর আগের কথা। ১৯৬৬ সালে দ্য ওভালে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষ টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া ২৬৮ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে ৯ উইকেটে ৩৯৯ রান তুলে ফেলেছে ইংল্যান্ড। ওই সময় উইকেটে এসে কেন হিগসের সঙ্গে জুটি বাঁধলেন জন স্নো।

ক্যারিবীয়রা হয়ত ভাবছিল, ১০ আর ১১ নম্বর ব্যাটসম্যানের এই জুটি আর কতদূর এগোবে। কিন্তু হলো তার উল্টোটা! দুজনেই তুলে নিলেন হাফ সেঞ্চুরি। হলফোর্ডের বলে আউট হওয়ার আগে ১৪৮ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ৬৩ রান করেন হিগস। তার আউটের সাথেই শেষ হয় ইংলিশদের ইনিংস। অন্যপ্রান্তে ১৪৬ বলে ৮ বাউন্ডারিতে ৫৯ রান তুলে অপরাজিত থাকেন জন স্নো। জুটিতে এসে যায় ১২২ রান।

এর আগে অবশ্য ১৬৬ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল ইংল্যান্ড। ৯ নম্বরে নামা উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান জন মারে ১১২ রানের ইনিংস খেলে দলকে পথ দেখান। বল হাতেও সাফল্য পান স্নো আর হিগস। দুই ইনিংসে স্নো নেন ৫ উইকেট আর হিগস তুলে নেন ২ উইকেট। প্রায় হেরে বসা ম্যাচটি ইনিংস আর ৩৪ রানে জিতে নিয়েছিল ইংল্যান্ড।

-দ্য গার্ডিয়ান এবং ক্রিকবাজ অবলম্বনে



মন্তব্য