kalerkantho


ক্রিকেটে শৃঙ্খলাটাই আসল: শচীন টেন্ডুলকার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৭:১৮



ক্রিকেটে শৃঙ্খলাটাই আসল: শচীন টেন্ডুলকার

এই মুহূর্তে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে আছে বিরাট কোহলির ভারত। বিদেশের মাটিতে এবারই অধিনায়ক কোহলির সবচেয়ে কঠিন পরীক্ষা হবে বলে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। এই দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতেই ৫টি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ক্রিকেট লিজেন্ড শচীন টেন্ডুলকার। অনেকেই যার ছায়া বিরাট কোহলির মাঝে দেখতে পান। মাঠের লড়াই শুরুর আগে ভারতের এক দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাতকারে বললেন অতীত-বর্তমানের অনেক কথা। যা এই প্রজন্মের ক্রিকেটারদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকা সফর নিয়ে বলুন

শচীন:‌ ১৯৯২-‌’৯৩ মৌসুমে প্রথমবার যখন দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে খেলতে গিয়েছিলাম শুরুতেই বুঝি গিয়েছিলাম কতটা কঠিন হতে যাচ্ছে সফরটা। বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতেই বুঝে গিয়েছিলাম ভীষণ লড়াকু ওরা। প্রতি ম্যাচেই উন্নতি করে যাচ্ছিল।

এখনকার দক্ষিণ আফ্রিকায় ম্যাকমিলান, ক্যালিসদের মতো তো কেউ নেই.‌.‌.‌

শচীন: ক্যালিস ছিল দুর্দান্ত এক ব্যাটসম্যান। যাকে প্রোটিয়ারা চতুর্থ পেসার হিসেবে দেখত। অন্যদিকে ম্যাকমিলান মূলত বোলার হলেও ৬ নম্বর পজিশনে ব্যাট হাতে দারুণ করত। এই ধরণের ক্রিকেটার থাকলে পুরো দলের চেহারাই বদলে যায়। সত্যিই ওদের এখনকার দলটায় ওই মানের ক্রিকেটার নেই। তার মানে এই না যে, এখনকার দক্ষিণ আফ্রিকা খুব খারাপ দল। ঘরের মাঠে তো বটেই, বিদেশেও ওদের সাম্প্রতিক পারফর্মেন্স দারুণ। তবে ক্যালিস, ম্যাকমিলানদের মতো ক্রিকেটারদের অভাব সত্যিই ওরা অনুভব করে। 

সফরের শুরুতে ভালো করাটাই তো অনেক পার্থক্য গড়ে দেয়; তাই না?‌

শচীন:‌ সকালের প্রথম স্পেলটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের ব্যাটসম্যানরা নতুন বলের মোকাবেলা কীভাবে করবে তার ওপর কিন্তু অনেক কিছুই নির্ভর করে। নতুন বলটাকে ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা যদি ঠিকঠাক খেলতে পারে, ম্যাচের চেহারাই বদলে যাবে। টেস্টের প্রথম দিনটায় আমরা কেমন খেললাম সেটাই আসল।

ক্রিজে থাকার সময় একজন ব্যাটসম্যানের মনে অনেক ভাবনা ভিড় করে। নতুন বল মোকাবেলা করতে আসলে কী করা উচিত?

শচীন:‌ আমি তো একটাই কথা বলব ডিসিপ্লিন!‌ ক্রিকেটে শৃঙ্খলাটাই আসল। তারপর গুরুত্বপূর্ণ হল, সঠিক ফুটওয়ার্ক। এটা অনেকটাই মনের ওপর নির্ভর করে থাকে। মন ফুরফুরে থাকলে পায়ের নড়াচড়াও ঠিকঠাক হবে। উইকেটে দাঁড়িয়ে ব্যাটসম্যানের মনের মধ্যে ঠিক কী কী চলছে সেটাই কিন্তু পার্থক্য গড়ে দেয়।

ভারতীয় দল উপমহাদেশের বাইরে গেলে যে অভিযোগটা উঠে তা হল, তারা গতিময় বল খেলতে পারে না...

শচীন:‌ আমি এটা একেবারেই মনে করি না। কারণ আমি যাদের সতীর্থ হিসেবে পেয়েছিলাম, সেই বীরেন্দ্র শেবাগ, রাহুল দ্রাবিড়, সৌরভ গাঙ্গুলী কিংবা ভিভিএস লক্ষণদের প্রত্যেকেই কিন্তু বিদেশ সফরে গিয়ে নিয়মিত রান করে গেছে। সর্বোচ্চ পর্যায়ের পেস বোলিং ওদের রানের চাকা আটকাতে পারেনি।



মন্তব্য