kalerkantho


আইসিসির নতুন এফটিপিতে সবচেয়ে উপেক্ষিত পাকিস্তান!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৩:৩৯



আইসিসির নতুন এফটিপিতে সবচেয়ে উপেক্ষিত পাকিস্তান!

পিসিবি চেয়ারম্যান নাজাম শেঠি। ফাইল ছবি

নতুন প্রস্তাবিত ফিউচার ট্যুর প্ল্যান বা এফটিপিতে সব ধরনের ফরম্যাটে কম ম্যাচ পাওয়ায় ভীষণ হতাশ পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। সম্প্রতি সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত আইসিসি প্রধান নির্বাহীদের সভায় আগামী ৪ বছরের জন্য ফিউচার ট্যুর প্ল্যান প্রস্তাব করা হয়েছে। নতুন এফটিপি অনুযায়ী পাকিস্তানের জন্য চার বছরে মাত্র ২৮টি টেস্ট ম্যাচ বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

পাকিস্তানের পাশাপাশি কম টেস্ট খেলার তালিকায় আছে ক্রিকেটের অন্যতম শক্তি নিউজিল্যান্ড। তবে শীর্ষ দলগুলোর বাইরে জিম্বাবুয়ে, আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ড এই চার বছরে সবচেয়ে কম ম্যাচ খেলবে। 

অথচ তার বিপরীতে ভারত খেলবে ৩৭টি টেস্ট। ইংল্যান্ড সর্বোচ্চ ৪৬টি ও অস্ট্রেলিয়া খেলবে ৪০টি। বাংলাদেশের সামনে আছে ৩৫টি টেস্ট খেলার সুযোগ, যার থেকে পাকিস্তান প্রায় ২৫ শতাংশেরও কম ম্যাচ খেলবে।

নতুন এফটিপিতে সবচেয়ে কম ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান। তাদের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে মাত্র ৩৮টি ওয়ানডে ম্যাচ। আশ্চর্যযের বিষয় হলো আফগানিস্তান (৪১), জিম্বাবুয়ে (৪০) ও আয়ারল্যান্ডও (৪২) পাকিস্তানের থেকে বেশি ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে। সর্বোচ্চ ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তাদের জন্য ধরা হয়েছে ৬২টি ম্যাচ।

শ্রীলঙ্কা খেলবে ৪৮টি। অন্যদিকে ভারত খেলবে ৬১টি। এই চার বছরে পাকিস্তান ৩৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে। টেস্ট খেলুড়ে দেশ হিসেবে এটাও অন্য দলগুলোর তুলনায় সর্বনিম্ন। এমনকি আয়ারল্যান্ডও তাদের থেকে ৬টি বেশি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে। ভারত খেলবে ৬১টি, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫৫টি ও নিউজিল্যান্ড ৪৯টি।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড চেয়ারম্যান নাজাম শেঠি বলেছেন, ভারতের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নিয়ে যে বিরোধ দেখা দিয়েছে তা নিষ্পত্তি হবার পরেই তারা কেবল এই এফটিপিতে সম্মতি জানাবে। তিনি আরও বলেছেন, 'হয় ভারত দ্বিপাক্ষিক সিরিজ পুনরায় শুরু করার ব্যপারে মত দিবে। অথবা আইসিসির আইন ভঙ্গের কারণে পাকিস্তানের দাবি অনুযায়ী ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ দিবে।'

পিসিবির সাবেক প্রধান নির্বাহী আরিফ আলি আব্বাসী নতুন এফটিপি নিয়ে প্রচণ্ড হতাশা ব্যক্ত করে বলেছেন, 'পিসিবিকে আইসিসির এই ধরনের হেনস্থা করার অর্থই হচ্ছে পিসিবির সাংগঠনিক দক্ষতার অভাব। তারা সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেনা। সে কারণেই এখন আর এই সিদ্ধান্ত নিয়ে আইসিসিকে চ্যালেঞ্জ করার কোন অর্থ নেই। আইসিসি এ ব্যপারে কিছুই করবে না। বিসিসিআইও তাদের দেশের সরকারের বিরুদ্ধে যাবেনা।'

আব্বাসী মনে করেন আইসিসি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে চলে গেছে। তিনি বলেন, 'এটা অত্যন্ত লজ্জাজনক যে ২০১৭ সালে বিভিন্ন ফরম্যাটে পাকিস্তান র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে ছিল। আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফিও তারা জিতেছে। কিন্তু তার পরেও কিভাবে সব ফরম্যাটে এত কম ম্যাচ পায় পাকিস্তান। এই এফটিপি ২০১৯ সাল থেকে কার্যকর হবে। সে কারণেই এখনো আইসিসির হাতে এই প্রস্তাব চূড়ান্ত করতে অনেক সময় রয়েছে।'


মন্তব্য