kalerkantho


সোশাল মিডিয়ায় হেনস্তার শিকার কাইফ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ আগস্ট, ২০১৭ ১১:১২



সোশাল মিডিয়ায় হেনস্তার শিকার কাইফ

দেশ থেকে কার্যত উঠে গেল তিন তালাক। মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায় সাড়া ফেলেছে গোটা দেশে।

এই রায়কেই স্বাগত জানিয়েছিলেন তিনি। আর এতেই সোশাল মিডিয়ায় ফের হেনস্তার শিকার হতে হলো প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার মোহম্মদ কাইফকে। মঙ্গলবার শীর্ষ আদালতের পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, আগামী ৬ মাস তিন তালাক দেওয়া যাবে না। তবে তালাক প্রথা পুরোপুরি নিষিদ্ধ করার দায় এখন সরকারের কোর্টে। এই ৬ মাসের মধ্যে সরকারকে মুসলিমদের ডিভোর্স সংক্রান্ত আইন আনতে হবে। এই সময়ের মধ্যে কোনো মুসলিম স্বামী তাঁর স্ত্রীকে তালাক দিতে পারবেন না বলেই জানিয়ে দেয় সর্বোচ্চ আদালত।

টুইটারে এই রায়কেই স্বাগত জানান কাইফ। তিন তালাককে অসাংবিধানিক বলে তিনি মন্তব্য করেন, এই রায়ের মাধ্যমে মুসলিম নারীদের নিরাপত্তা সংরক্ষিত হবে। লিঙ্গবৈষম্য দূর করা খুবই প্রয়োজন।

কাইফের এই টুইট প্রশংসা পেয়েছে অনেকের। তবে কিছু নেটিজেন আবার এর বিরুদ্ধে ক্ষোভও জাহির করেছেন। যা জানেন না সে সম্পর্কে মন্তব্য না করার পরামর্শ প্রাক্তন ক্রিকেটারকে দিয়েছেন কেউ, কেউ আবার প্রশ্ন করেছেন কাইফ কাউকে খুশি করার জন্য এই এমন টুইট করছেন কিনা। এক নেটিজেনের আবার দাবি, মুসলিম ধর্মে নারীরা সবচেয়ে বেশি নিরাপদ। একজন মুসলিম হিসেবে তা কাইফের জানা উচিত।

সোশাল মিডিয়ায় এর আগেও হেনস্তার শিকার হয়েছেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার। কখনো ছেলের সূর্য নমস্কারের ছবি পোস্ট করে ইসলামিক মৌলবাদীদের রোষের মুখে পড়েন ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি জয়ের নায়ক। কখনও আবার ছেলের সঙ্গে দাবা খেলার ছবি দিয়ে সমালোচনার শিকার হয়েছেন তিনি। তবে যতবারই নেটদুনিয়ায় সমালোচনার শিকার হয়েছেন, পালটা জবাব সব সময়ই দিয়েছেন কাইফ। এবারেও তেমনটাই প্রত্যাশা করছেন তাঁর অনুরাগীরা।

 


মন্তব্য