kalerkantho


স্লেজিং নয়; প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলতে চাই বুদ্ধি: ধোনি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ আগস্ট, ২০১৭ ১৯:১৯



স্লেজিং নয়; প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলতে চাই বুদ্ধি: ধোনি

ক্রিকেট মাঠে ব্যাট-বলের পাশাপাশি প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য আরেকটি অস্ত্র থাকে। সেটি হলো স্লেজিং বা বিভিন্ন বিদ্রুপ এমনকী গালাগাল করে প্রতিপক্ষের মনঃসংযোগ নষ্ট করা।

অনেকে এটাকে ক্রিকেটের অংশ বললেও বেশিরভাগ মানুষের কাছে স্লেজিং গ্রহণযোগ্য নয়। যেমনটা নয় ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির কাছে। কিছুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারে তরুণ উইকেটকিপার ঋদ্ধিমান সাহা বলেছিলেন, ধোনিকে তিনি কখনও স্লেজিং করতে দেখেননি। কারণ স্লেজিং না করেও কীভাবে বিপক্ষকে চাপে ফেলা যায় সেই বিদ্যা আছে ধোনির!

মাথা ঠান্ডা রাখার জন্যই যে তার নাম 'ক্যাপ্টেন কুল', এটা তার সতীর্থ থেকে শুরু করে গোটা ক্রিকেটবিশ্ব জানে। ভারতের সর্বকালের অন্যতম সফল অধিনায়ক তিনি। এবার স্বয়ং ধোনি প্রকাশ করলেন স্লেজিং না করেও প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলার পদ্ধতি। শ্রীলঙ্কা ওয়ানডে সিরিজ খেলতে যাওয়ার আগে বেঙ্গালুরু জাতীয় ক্রিকেট একাডেমিতে উঠতি কোচদের ক্লাস নিয়েছিলেন ধোনি। সেখানেই বলেছেন তার সেই বিদ্যার কথা।

ধোনির ভাষায়, 'পুরো ব্যাপারটি খুব সহজভাবে ভাবতে হবে।

ম্যাচের মাঝখানে চাপে পড়তে হতেই পারে। কিন্তু ঠাণ্ডা মাথায় তার খুঁজতে হবে। কোনো দল স্লেজিংকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে, আবার কেউ বিপক্ষের দুর্বলতা খুঁজে বের করে সেখানে আঘাত করার মত বুদ্ধিমত্তা দেখায়। বিপক্ষকে চাপে ফেলতে গেলে স্লেজিং করতেই হবে, এমনটা আমি মনে করি না। মাঠের পরিস্থিতি বিবেচনা করে সঠিক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে এটা সম্ভব। '

ধোনি মনে করেন, ভারতীয় ক্রিকেটারদের মানসিকতায় সমস্যা আছে। তারা প্রতিপক্ষের স্লেজিং শুনলে চাপে পড়ে যায়। তিনি বলেন 'ভারতীয় দলে কিছু কিছু বিষয় আমাদের মাথায় রাখতেই হত। যেমন একসময় আমরা কখনও নিজেদের দুর্বলতাকে বাইরে প্রকাশ করতাম না। সমস্যা হলেও সেটা কাউকে জানাতাম না। সমস্যা স্বীকার না করলে কোনোদিন উন্নতি করা যায় না। আমি বরাবর ভেবে এসেছি, নিজের ব্যর্থতা স্বীকার করাটা জরুরি। সেটার জন্য সাহস দরকার। '

অত্যন্ত সাধারণ শহরের অত্যন্ত সাধারণ ঘর থেকে উঠে আসা সত্ত্বেও ধোনির যে অসাধারণ সাফল্য, সে সম্পর্কে উঠতি কোচরা জিজ্ঞাসা করেছিলেন ভারত অধিনায়ককে। ধোনি জানান, রান করার ক্ষুধা এবং ভালো ক্রিকেটারদের সামনে পারফর্ম করার ইচ্ছাই তাকে এখানে টেনে এনেছে। তার ভাষায়, 'চেষ্টা করতাম যত বেশি সম্ভব ম্যাচ খেলার। আমার কাছে টেকনিকের গুরুত্ব ছিল সবার আগে। এখন ভিডিও এসেছে, অনেক খুঁটিনাটি জিনিস দেখা সম্ভব হয়েছে। সেটাও অনেক সাহায্য করে। '

অধিনায়ক থাকতে গেলে কোনো কোনো ক্ষেত্রে যে নির্দিষ্ট গণ্ডির বাইরে গিয়েও সিদ্ধান্ত নিতে হয় সেটা বলতেও ভুলেননি ধোনি। রীতিমতো উদাহরণ দিয়ে বলেছেন, 'বাকিরা যেটা ভাবছে না, সেটা আমাদের ভাবতে হবে। রোহিত শর্মা আমার কাছে সবচেয়ে বড় উদাহরণ। ৪ বছর আগে যখন ওকে ওপেনার হিসেবে খেলার কথা বলেছিলাম তখন ও সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছিল। এখন দেখুন ও বিশ্বের অন্যতম সেরা ওপেনার। এভাবেই নির্দিষ্ট ধ্যানধারণার বাইরে গিয়ে ভাবতে হবে। '‌‌‌


মন্তব্য