kalerkantho


এই চ্যালেঞ্জে জিততে চান মুমিনুল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ আগস্ট, ২০১৭ ১৮:১০



এই চ্যালেঞ্জে জিততে চান মুমিনুল

ছবি: ক্রিকইনফো

ফর্মহীনতা একজন ক্রিকেটারকে হিরো থেকে মুহূর্তেই জিরো বানিয়ে দিতে পারে।  বাংলাদেশের স্পেশালিস্ট টেস্ট প্লেয়ার বলে একসময় সবাই জানত মুমিনুল হককে।

টেস্ট একাদশে মুমিনুল থাকবেন না সেটা ভাবই যেত না। সেই মুমিনুল বাদ পড়লেন টেস্ট থেকে। যদিও সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্ক আছে। কিন্তু তারপরও নতুনদের আগমনে এখন তাকে একাদশে জায়গা ধরে রাখার লড়াই করতে হচ্ছে। এই কঠিন চ্যালেঞ্জে জিততে চান দৃঢ়প্রতিজ্ঞ মুমিনুল।  

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বললেন, 'খেলার মধ্যে থাকলে সবসময় একটি গ্রাফ নিয়মিত ধরে রাখা সম্ভব নয়। বিশ্বের সব ক্রিকেটারের এই সময় আসে।  আমি না শুধু, সব বড় বড় ব্যাটসম্যানের নয়। একটা সময় গ্রাফ নিচে নামবেই।

সেই সময়টা কাটিয়ে উঠতে হয়। যদি কাটিয়ে উঠে আবার ভালো খেলতে পারেন, সেটিই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। ইনশাল্লাহ আমি কাটিয়ে উঠতে পারব। '

মুমিনুলের এই প্রত্যয়ের প্রমাণ পাওয়া গেছে চট্টগ্রামে ৩ দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে। তামিম একাদশের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন তিনি। সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ ছিল তার কণ্ঠে। এছাড়া তার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হয়েছিলেন তামিম ইকবাল। এসব কারণে নির্বাচকদের কাছে তিনি কতটা মূল্য পেলেন তা ভাবার বিষয়। অন্তত সেঞ্চুরিটা হলে নিশ্চয়ই ভালো হতো। ৭৩ রানের ইনিংসটি কি একাদশে সুযোগ পাওয়ার জন্য যথেষ্ট?

মুমিনুল বললেন, 'ওভাবে চিন্তা করি নাই। অনুশীলন করছি। কাজ যেসব করা দরকার করছি। খেলব কি খেলব না, সেটা টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। আমার হাতে নেই। আমার হাতে যা আছে, চেষ্টা করছি।  আরও একটি প্রস্তুতি ম্যাচ আছে। যেন আরও ভালো ক্রিকেট খেলতে পারি, সেই চেষ্টা করছি। '

তবে সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ গোপন করলেন না মুমিনুল। বললেন, 'আক্ষেপ তো সবসময় থাকে। ১০০ করে আউট হয়ে গেলে ২০০ রানের জন্য আক্ষেপ থাকে। ২০০ করে আউট হলে হয়ত ৩শর আক্ষেপ থাকবে। সেঞ্চুরির জন্য অবশ্যই আক্ষেপ আছে। এসব জায়গায় আউট না হঢে বড় ইনিংস খেলতে পারলে নিজের জন্য ভালো, দলের জন্য ভালো। একটু আক্ষেপ আছে। পরবর্তীতে সুযোগ পেলে ব্যাপারটি কাটিয়ে উঠব। '


মন্তব্য