kalerkantho


'জায়ান্ট কিলার' মেহেদী মিরাজ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ মার্চ, ২০১৭ ১৪:৫৬



'জায়ান্ট কিলার' মেহেদী মিরাজ

যদিও অতীতে এই গল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ ৬০০+ রান করেছিল; তবু শ্রীলঙ্কার করা ৪৯৪ রান মোটেও কম নয়। এই রান আরও বাড়তে পারত যদি না কুশল মেন্ডিসকে না থামাতেন মেহেদী মিরাজ।

গলে চলমান টেস্টে প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সেরা বোলার মেহেদী মিরাজই। প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে তিনি বড় বড় শিকার ধরেছেন। তার নেওয়া উইকেটগুলোর দিকে দৃষ্টি দিলে সহজেই এই তরুণ স্পিনারকে 'জায়ান্ট কিলার' তকমা দিয়ে দেওয়া যায়।  প্রথম দিন ১ উইকেট পাওয়ার পর দ্বিতীয় দিনে আরও গুরুত্বপূর্ণ ৩ উইকেট তুলে নেন তিনি।

গল টেস্টের প্রথম দিনে প্রধান দুই পেসার মুস্তাফিজ আর তাসকিন যখন সাফল্য পাচ্ছিলেন না তখন উপল থারাঙ্গাকে বোল্ড করে পেসারদের মান রেখেছিলেন শুভাশিস রায়। এরপর মায়াবী ঘূর্ণিতে প্রথম শিকার ধরেন মেহেদী। তার বলে বোল্ড হয়ে যান ওপেনার দিমুথ করুণারত্নে। আউট হওয়ার আগে তিনি ৭৬ বলে ২ বাউন্ডারিতে ৩০ রান করেন। এরপর আর কোনো উইকেট পাননি মিরাজ।

মান রাখতে পারছিলেন না সাকিব আল হাসানও। দ্বিতীয় দিনে শেষ উইকেটটি নিয়ে হতাশার শেষ হয় ১০০ রান দেওয়া সাকিবের।

দ্বিতীয় দিনে যখন আরও একটি বড় জুটি গড়ে ফেলেছেন কুশল মেন্ডিস এবং নিরোশান ডিকভিলা; তখন আবারও স্পিন বিষ ছড়ান মিরাজ। তাকে ছক্কা মেরে ডাবল সেঞ্চুরি পূরণ করতে গিয়ে তামিম ইকবালের দুর্দান্ত এক ক্যাচে প্যাভিলিয়নে ফেরেন কুশল মেন্ডিস। ভাঙে দিকভিলার সঙ্গে তার ১১০ রানের জুটি। ১৯৪ রানের অসাধারণ এই ইনিংস খেলতে মেন্ডিস ২৮৫ বল খেলে ১৯টি চার এবং ৪টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন।

হাত খুলে মারতে থাকা নিরোশান ডিকভিলাকে মাহমুদ উল্লাহর ক্যাচে পরিণত করে তৃতীয় উইকেট শিকার করেন মিরাজ। আউট হওয়ার আগে ৭৬ বলে ৭৫ রান করেন ডিকভিলা। মিরাজের চতুর্থ শিকার হন দিলরুয়ান পেরেরা। শ্রীলঙ্কার এই লোয়ার-মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ৭ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ভালোই প্রতিরোধ গড়েছিলেন। ৭৭ বলে ৭ বাউন্ডারি এবং ১ ওভার বাউন্ডারিতে ৫১ রান করেন তিনি। মেহেদী মিরাজ তাকে এলবিডাব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন। মিরাজের আরেকটি ভিন্ন দিকও আছে। ২২ ওভার বল করে তিনিই সর্বাধিক ১১৩ রান দিয়েছেন।


মন্তব্য