kalerkantho


গল টেস্টের প্রথম দিনটি শ্রীলঙ্কার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ মার্চ, ২০১৭ ১৮:০৭



গল টেস্টের প্রথম দিনটি শ্রীলঙ্কার

দুশ্চিন্তা ছিল দিনেশ চান্দিমালকে নিয়ে। সেটা দূর করেন মুস্তাফিজুর রহমান।

কিন্তু এরপর নতুন দুশ্চিন্তা হয়ে দেখা দেন কুশল মেন্ডিস। সঙ্গী করেন গুণারত্নেকে। এই দুজনের জুটিতে শুরুতে স্বাগতিকদের চাপে ফেলা বাংলাদেশকে রানের পাহাড় উপহার দিতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। কুশল-গুণারত্নের ১৯৬ রানের জুটিতে গল টেস্টের প্রথম দিন শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৩২১ রান। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান কুশল মেন্ডিস ১৬৬ এবং নিরোশান দিকভিলা ১৪ রানে দিন শেষ করেছেন।

টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে দলীয় মাত্র ১৫ রানেই প্রথম উইকেট হারায় স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। শুভাশিস রায়ের দুর্দান্ত এক বলে উপল থারাঙ্গার স্টাম্প ছত্রখান হয়ে যায়। আউট হওয়ার আগে ৪ রান করেছিলেন তিনি। শুভাশিসের পরের বলটিতেও কুশল মেন্ডিসের বিরুদ্ধে জোরালো আবেদন হয়েছিল।

স্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা দিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছিলেন কুশল মেন্ডিস। কিন্তু টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় বলটি ছিল নো বল!

কুশল বেঁচে গেলেও মিরাজের হাত থেকে রেহাই পাননি ওপেনার দিমুথ করুণারত্নে। মিরাজের বলে বোল্ড হওয়ার আগে তিনি ৭৬ বলে ২ বাউন্ডারিতে ৩০ রান করেন। দলীয় ৬০ রানে দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে শ্রীলঙ্কার।

প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে যাকে নিয়ে সবচেয়ে বেশি হোমওয়ার্ক করেছে বাংলাদেশ তিনি দিনেশ চান্দিমাল। প্রস্তুতি ম্যাচে খেলেছিলেন ১৯০ রানের অপরাজিত এক ইনিংস। কিন্তু গল টেস্টর প্রথম ইনিংসে সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল না। স্পষ্ট করে বললে, ঘটতে দিলেন না কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান। তার বলে ব্যক্তিগত ৫ রানেই মেহেদী মিরাজের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন চান্দিমাল। দলীয় ৯২ রানে তৃতীয় উইকেট হারাল শ্রীলঙ্কা।

দীর্ঘদিন ইনজুরির ধকল কাটিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে ফেরা মুস্তাফিজ দিনের শুরু থেকে ছন্দে ছিলেন না। বল ঠিক লাইনে যাচ্ছিল না। ধীরে ধীরে অবশেষে স্বরূপে দেখা দিলেন মুস্তাফিজ। চান্দিমালকে আউট করা বলটি ছিল দ্য ফিজের বিখ্যাত অফ কাটার। তাতে বোকা বনে গিয়ে গালি অঞ্চলে ফিল্ডিংরত মেহেদী মিরাজের হাতে ক্যাচ দেন চান্দিমাল। কিন্তু ৯২ রানে ৩ উইকেট হারানো স্বাগতিকদের ম্যাচে ফেরান কুশল মেন্ডিস আর গুণারত্নে। দুর্দান্ত সেঞ্চুরি তুলে নিলেন কুশল। সেঞ্চুরির খুব কাছে গিয়ে আউট হন গুণারত্নে।

শুভাশিসের বলে উপুল থারাঙ্গা আউট হওয়ার পর ওয়ান ডাউন ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসেন মেন্ডিস। সৌম্য সরকারকে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ১৪৩ বলে নিজের ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি পূরণ করেন কুশল। তাকে দারুণ সঙ্গ দেওয়া গুণারত্নে ৮৭ বলে হাফ সেঞ্চুরি করার পর ৮৫ রানে আউট হয়ে যান। তার ১৩৪ বলের ইনিংসটিতে ছিল ৭ বাউন্ডারি। ততক্ষণে কুশল মেন্ডিসের সঙ্গে তার জুটিতে রান এসেছে ১৯৬! সেটাও আবার ৪.৫৫ রানরেটে। বাংলাদেশের জন্য ক্রমেই বিষফোঁড়া হয়ে ওঠা এই জুটি ভাঙেন তাসকিন আহমেদ।

বাংলাদেশের স্বীকৃত বোলারদের মধ্যে একমাত্র বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান উইকেট বঞ্চিত আছেন। তিনি ২৪ ওভার বল করে ৩ মেডেনসহ ৭১ রান দিয়েছেন। উইকেট না পেলেও রান দেওয়ার ক্ষেত্রে সবার চেয়ে কৃপণ তিনি। নিয়মিত বোলার ছাড়াও উইকেট তুলে নিতে সৌম্য সরকার এবং মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদকেও ব্যবহার করেছেন মুশফিক। কিন্তু তারা কোনো শিকার ধরতে পারেননি।


মন্তব্য