kalerkantho


আইসিসির সুনজর পড়ল বাংলাদেশের ওপর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৬:৩৮



আইসিসির সুনজর পড়ল বাংলাদেশের ওপর

তিন মোড়ল নীতি থেকে অবশেষে সরে আসল ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। এর ফলে ভারতের আয় কমে গেলেও নীতির পরিবর্তনে বাড়ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এর আয়। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সম্ভাব্য আয়ের ভাগ ৭৫-৮০ মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ১১০-১১৫ মিলিয়ন ডলার হচ্ছে। বিসিবির সম্ভাব্য আয় বাড়ছে ৩ কোটি ৫০ লাখ ডলার। বা ২৭৭ কোটি টাকা।

তিন বছর আগে ২০১৪ সালে আইসিসি ক্রিকেট খেলুড়ে দেশগুলোর ওপর জোর করে চাপিয়ে দিয়েছিল তিন মোড়ল নীতি। এই নীতি অনুযায়ী ২০১৫ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত আইসিসির সম্ভাব্য আয়ের বড় অংশ পেত ভারত, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। নিয়ম ছিল, আগামী ৮ বছরে আইসিসির আয়ের ২৭.৪ শতাংশ পাবে এই তিন দেশের ক্রিকেট বোর্ড! এর মধ্যে ভারত একাই পাবে ২০.৩ ভাগ, ইংল্যান্ড ৪.৪ ভাগ এবং অস্ট্রেলিয়া পাবে ২.৭ ভাগ। এই অসম এবং অদ্ভুত নীতি নিয়ে সারা ক্রিকেট বিশ্বের পাশাপাশি খোদ ভারতেও সমালোচনা হয়েছে।

সম্প্রতি দুবাইয়ে আইসিসির সভায় তিন মোড়ল নীতি থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছে আইসিসি। ঘোষণা করা হয়েছে নতুন অর্থনৈতিক মডেল।

যাতে সবগুলো দেশ মোটামুটি একটি সাম্যবস্থায় থেকে আর্থিক বণ্টন উপভোগ করবে। এই নীতির ফলে ১ হাজার কোটি টাকারও বেশি পরিমাণ অর্থ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ভারত। অন্যদিকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত আইসিসি থেকে ১১০-১১৫ মিলিয়ন ডলার পাওয়ার সম্ভাবনা আছে বিসিবির। ইংলিশ ক্রিকেট বোর্ড ১২০-১২৫ মিলিয়ন ডলার আয়ের ভাগ পাবে। জিম্বাবুয়ে বাদে বাকি সাত সদস্য পাবে সমান ১১০-১১৫ মিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া যত পাবে, বিসিবিও পাবে সমান অর্থ। জিম্বাবুয়ে পাবে ৭৫-৮০ মিলিয়ন ডলার।


মন্তব্য