kalerkantho


পাকিস্তানি ক্রিকেটারের মধ্যে ঝামেলা বাঁধালেন সেহবাগ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পাকিস্তানি ক্রিকেটারের মধ্যে ঝামেলা বাঁধালেন সেহবাগ

নারদের ভূমিকায় একদম সফল বীরেন্দ্র সেহবাগ। দুই পাকিস্তানি ক্রিকেটারের ঝামেলায় সূত্রধরের কাজ সফলভাবে পালন করলেন তিনি! সেহবাগকে কলিযুগের নারদ বলা যেতেই পারে।

ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে দুর্দান্ত সব ট্যুইট করার জন্য এমনিতেই প্রসিদ্ধ তিনি। তবে এবার দুই কিংবদন্তি পাকিস্তানি ক্রিকেটারের মধ্যে সফলভাবে ঝামেলাও লাগিয়ে দিলেন তিনি।

আসলে গত ৭ই ফেব্রুয়ারি ছিল অনিল কুম্বলের দশ উইকেট নেওয়ার আঠারোতম বর্ষপূর্তি। সেকথাই নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে শেয়ার করেছিলেন তিনি। সঙ্গে একটি প্রতিবেদনের ক্লিপিংসও জুড়ে দেন সেহবাগ। ঝামেলা তাতেই। পুরাণো সেই প্রতিবেদনে কী লেখা ছিল? ফিরোজ শাহ কোটলায় অনিল কুম্বলে যাতে জিম লেকারকে দশ উইকেট মহাকীর্তি স্পর্শ না করতে পারেন, তা আটকাতে প্রাণপ্রণে চেষ্টা করেছিলেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা। পরপর নয় পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানকে আউট করার পর ক্রিজে দশম উইকেটে ব্যাট করছিলেন ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিস। সেইসময় কুম্বলের দশ উইকেট আটকাতে আকরামকে রান আউট হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন ওয়াকার ইউনিস।

পরে একথা স্বীকার করেছিলেন খোদ আকরাম।

যদিও সেই পরামর্শ কানে তোলেননি আকরাম। দূর্ভাগ্যক্রমে কুম্বলের দশম শিকার ছিলেন তিনিই। সেই কথাই স্মরণ করে দিয়ে সেহবাগ ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন ‘ওয়াসিমভাই’ কে। সেই ট্যুইটের সূত্র ধরেই প্রথম প্রতিক্রিয়া দেন ওয়াকার ইউনিস। তিনি পালটা ট্যুইট করেন, ‘এরকম কোনও পরামর্শই দিই নি। ওয়াসিম ভাইয়ের বয়স হয়ে যাচ্ছে। ’ প্রাক্তন সতীর্থের এমন ব্যঙ্গাত্মক প্রতিক্রিয়া ভালভাবে নেননি নাইট রাইডার্সের বোলিং পরামর্শদাতা। আকরাম সটান জানিয়ে দেন, বয়স নিয়ে যেন কোনও খোঁটা না দেওয়া হয়, কারণ তিনি এখনও ওয়াকারকে পিটিয়ে মারার ক্ষমতা রাখেন।

দুই পাকিস্তানি ক্রিকেটারকে বাচ্চাদের মতো ঝগড়া করতে দেখে আড়ালে নিশ্চয় হেসেছেন বীরু। তিনি যে সূত্রধরের ভূমিকায় একদম সফল


মন্তব্য