kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লাঞ্চের পর আবার মেহেদির আঘাত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ অক্টোবর, ২০১৬ ১৩:০১



লাঞ্চের পর আবার মেহেদির আঘাত

লাঞ্চ থেকে ফিরে আবার চাপে পড়েছে ইংল্যান্ড। তাদের জুটি ভেঙেছেন এই ম্যাচেই অভিষিক্ত মেহেদি হাসান মিরাজ।

তার অফ স্পিনে ইংল্যান্ডের সেরা ব্যাটসম্যান জো রুট (৪০) ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন। জমে যাওয়া রুট-মঈন আলির ৬৩ রানের পার্টনারশিপ ভেঙেছেন টিনএজার অফ স্পিনার মেহেদি। ৮৩ রানে চতুর্থ উইকেট পড়েছে ইংল্যান্ডের।

চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টে তিন বাংলাদেশি খেলোয়াড়ের টেস্ট অভিষেক হলো। সাব্বির রহমাস, মেহেদি ও কামরুল ইসলাম রাব্বি। মেহেদি নতুন বলেই চমক দিয়েছেন জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। তার জোড়া আঘাতে ২১ রানে ৩ উইকেট হারানো দল হয়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ড।

সেখান থেকে মঈন-রুট জুটি ৩ উইকেটে ৮০ রান নিয়ে লাঞ্চে গিয়েছিলেন। ফেরার পর দ্বিতীয় ওভারেই এই জুটি ভেঙেছে বাংলাদেশ। লাঞ্চের আগে ও পরে সাকিব আল হাসানের ৬ বলের ব্যবধানে মঈনকে তিনবার আউটের সিদ্ধান্ত দেন আম্পায়ার। প্রতিবার রিভিউ নিয়ে মঈন জিতে যান। আম্পায়ারকে সিদ্ধান্ত বদলাতে হয়। তার মানে উইকেটের টার্নে আম্পায়াররাও বিভ্রান্ত হচ্ছেন। কিন্তু রুটের ব্যাট থেকে বল মুশফিকের গ্লাভস হয়ে ওপরে উঠলে সাব্বির রহমান ক্যাচ নিয়েছেন। ৮৩ রানে পড়েছে ইংল্যান্ডের চতুর্থ উইকেট।

অভিষেক টেস্টটাকে মনে রাখার মতো কাজ শুরুতেই করলেন মেহেদি। বেন ডাকেটেরও (১৮) টেস্ট অভিষেক হয়েছে। কিন্তু পর পর দুই ওভারে মেহেদির আঘাতের প্রথম শিকার ওই ডাকেট। মেহেদি তার অফ স্পিনে বাংলাদেশের বোলিং ওপেন করেছেন। অনেক বড় দায়িত্ব। তবে ১৮ বছরের বোলার নিজের পঞ্চম ও ম্যাচের দশম ওভারে আঘাত হানলেন। ডাকেট তার বাঁক খাওয়া বলকে বুঝতে না পেরে বোল্ড।

বাংলাদেশের উল্লাস পরের ওভারে আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন সাকিব। এটি ইংলিশ অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুকের ১৩৪তম টেস্ট। ইংল্যান্ডের ইতিহাসে সর্বোচ্চ টেস্ট খেলার রেকর্ড গড়লেন এখানেই। কিন্তু অভিজ্ঞ ওপেনার মাত্র ৪ রান করেই সাকিবের বলে বোল্ড। কিছুটা দুর্ভাগ্য সঙ্গী ছিল তার।

ঠিক ১৮ রানেই ২ উইকেট পড়ল। ইংল্যান্ডের জন্য বিপর্যয় বটে। সেই চাপকে পরের ওভারে বিপদে রূপ দেন মেহেদি। এবার তাদের আবেদনে আম্পায়ার সাড়া না দিলেও বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম রিভিউ নিলেন। তাতে সফল। টেস্ট বিশেষজ্ঞ গ্যারি ব্যালান্স (১) মেহেদির দ্বিতীয় শিকার হলেন দলের ২১ রানে। ১২ ওভারের মধ্যে ৩ উইকেট হারানোর পর প্রথম সেশনের বাকি ১৬ ওভার নিরাপদেই পার করেছিলেন মঈন ও রুট। কিন্তু বিরতি থেকে ফিরে মেহেদির কারণে বিচ্ছিন্ন হয়েছেন তারা।


মন্তব্য