kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এবার বাংলাদেশের ভিন্ন লড়াই

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:৩২



ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এবার বাংলাদেশের ভিন্ন লড়াই

বাংলাদেশ গত প্রায় ১৫ মাস টেস্ট খেলে না। ২০১৬ তে মোট ১৭ টেস্ট ইংল্যান্ডের।

ক্রিকেটের জনকরা এশিয়াতেও খুব ভালো খেলছে টেস্ট। এতদিন পর খেলতে নেমে বাংলাদেশ ঠিক কেমন খেলবে তা ঢাকা সংশয় আর শঙ্কার চাদরে। দীর্ঘ বিরতির পর দলে বেশ পরিবর্তন নিয়েই নামছে স্বাগতিকরা। অন্তত দুজনের অভিষেক হতে পারে। ৫দিনের ম্যাচের লড়াইটা শুরু চট্টগ্রামে। সকাল দশটায়। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ২ ম্যাচের সিরিজের প্রথম টেস্ট এটি।

মুশফিকুর রহিমের খুব ভালো লাগলো এতদিন পর অধিনায়ক হিসেবে সংবাদ সম্মেলনে এসে। সেখানে বিরতি, টেস্টে দুর্বলতা এবং নানা প্রসঙ্গে একটি পাক্কা কথা অন্তত টাইগার অধিনায়ক দিয়ে গেছেন। টেস্ট না খেললেও খেলার মাঝে আছে বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টের চ্যালেঞ্জটা তাই নিচ্ছেন তারা। ওয়ানডেতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আত্মবিশ্বাসও তার সাথে করে মাঠে নামছেন।

বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের জন্য ঘোষিত দলটিই এসেছিল চমক ওর বিতর্ক নিয়ে। গেল বছর জুলাইয়ে শেষবার টেস্ট খেলা দলে ৫টি পরিবর্তন। সেটি ইনজুরি ও নানা কারণে। কেবল পরিবর্তন নেই শীর্ষ ৬ এ। তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, মাহমুদ উল্লাহ, মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান দলের সিনিয়র ও প্রতিষ্ঠিত। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নিজেকে প্রমাণ করা সাব্বির রহমানের এবার টেস্ট খেলার পালা। ১৮ বছরের অল-রাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজেরও আন্তর্জাতিক অভিষেক হতে পারে এই টেস্ট দিয়ে।

যতটুকু আভাস তাতে উইকেট থাকবে স্লো। স্পিনারদের। শুরু থেকেই ব্যাটসম্যানদের জন্য কঠিন হতে পারে। স্পিনাররা দ্বিতীয় দিন থেকেই রাজত্ব করতে পারেন। সাকিবের সাথে আরেক বাঁ হাতি তাইজুল ইসলামকে জুড়ে দেওয়ার কথা আছে। মিরাজের অফ স্পিন কার্যকর। প্রস্তুতি ম্যাচ লেগ স্পিনে ৩ উইকেট নিয়েছেন সাব্বির। অধিনায়ক মুশফিক উইকেট সামলালে নুরুল হাসানের টেস্ট অভিষেকের সম্ভাবনা নেই। দুই পেসার খেলালে ফিরে আসা শফিউল ইসলামের সাথে যোগ হবেন কামরুল ইসলাম রাব্বি। টেস্ট অভিষেক তাতে রাব্বির।

তামিমের বড় সুখস্মৃতি আছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। বাংলাদেশে ইংলিশদের বিপক্ষে খেলা ৮ টেস্টেই হেরেছে। ৩টিতে ইনিংস ব্যবধানে হার। কিন্তু তামিম এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলা ৪ টেস্টে দুটি সেঞ্চুরি করেছেন। একটি আবার লর্ডসে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তার গড় ৬৩.১২!

ইংল্যান্ড দলে অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুক দেশের সর্বোচ্চ টেস্ট খেলার রেকর্ড গড়বেন এই ম্যাচে। তার সাথে বেন ডাকেট বা হাসিব হামিদ ওপেন করবেন। দুজনই এই সময়ের ইংলিশ ব্যাটিং সেনসেশন। টেস্ট অভিষেক হয়নি কারোই। ডাকেট ওয়ানডে ক্যারিয়ার শুরু করেছেন বাংলাদেশেই। ৫ ইনিংসের চারটিতে ফিফটি মেরেছেন।

জো রুট, বেন স্টোকস, গ্যারি ব্যালান্স, জনি বেয়ারস্টোরা ব্যাটে দারুণ। স্টুয়ার্ট ব্রড ও ক্রিস ওকস বোলিংকে নেতৃত্ব দেবেন। ইনজুরির কারণে আসতে পারেননি জেমস অ্যান্ডারসন। স্পিন নিয়ে ইংল্যান্ডেরও প্রস্তুতি আছে। লেগ স্পিনার আদিল রশিদ ও মঈন আলি ওখানে নেতা। ৩৯ বছরের গ্যারেথ ব্যাটিকে দেখা যেতে পারে। শেষবার তিনি টেস্ট খেলেছিলেন বাংলাদেশেই। ২০০৫ সালে। তরুণ জাফর আনসারি সুযোগ পেলে অবশ্য হিসেবটা ভিন্ন হবে।


মন্তব্য