kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


তোপের মুখে বিএমডাব্লিউ ফেরতের সিদ্ধান্ত বদলালেন দিপা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ১১:২৩



তোপের মুখে বিএমডাব্লিউ ফেরতের সিদ্ধান্ত বদলালেন দিপা!

অলিম্পিকে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের স্বীকৃতি হিসেবে শচীন টেন্ডুলকার নিজের হাতে বিএমডাব্লিউ গাড়ির চাবি তুলে দিয়েছিলেন দিপা কর্মকারের হাতে৷ মাস্টার ব্লাস্টার জানিয়েছিলেন, দিপার কীর্তিতে তিনি অভিভূত৷ আর সেই গাড়িই কিনা ফিরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ভারতের আলোচিত এই জিমন্যাস্ট! কিন্তু তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে অবশেষে নিজের সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হটলেন তিনি৷

টেন্ডুলকার নিজের হাতে গাড়ি তুলে দেওয়ায় দিপাও উচ্ছ্বাসে ভেসে গিয়েছিলেন৷ বলেছিলেন, এটি তাঁর জীবনের স্মরণীয় মুহূর্ত৷ কিন্তু সেই বিএমডব্লু ফিরিয়ে দিতে চাইছিলেন দিপা৷ কেন? দিপা এই সিদ্ধান্ত কিছুটা বাধ্য হয়েই নিচ্ছিলেন৷ প্রথমত, এই গাড়ির দেখভাল করা খরচ সাপেক্ষ৷ দ্বিতীয়ত, আগরতলায় খোলামেলা তেমন রাস্তা নেই যে বিএমডাব্লিউ সহজে চালাতে পারবেন৷ ছোট শহরের রাস্তায় ছোট গাড়ি যতটা স্বচ্ছন্দে চালানো যাবে, বড় গাড়ি নয়৷ সবদিক বিবেচনা করেই বিএমডাব্লিউ ফিরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন দিপা৷ অমত করেননি কোচ বিশ্বেশ্বর নন্দীও৷

দিপার এই সিদ্ধান্ত মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার পায়। তাতে ভারতের ক্রীড়ামহলে বিতর্কের ঝড় ওঠে৷ কারণ যাই হোক, দিপার সিদ্ধান্তকে অনেকেই মন থেকে সঠিক বলে মেনে নিতে পারছিলেন না৷ অনেকেই মনে করেছেন, বিএমডাব্লিউ ফিরিয়ে পরোক্ষভাবে টেন্ডুলকারকেই অপমান করছেন প্রোদুনোভা স্পেশালিস্ট৷ অবশেষে ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে আসরে নামলেন ত্রিপুরার বাঙালিনি৷ সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে দিপা জানান, টেন্ডুলকারের উপহার ফিরিয়ে দেওয়ার কথা তিনি ভাবতেও পারেন না৷ এমন খবরকে ভিত্তিহীন দাবি করে দিপা বলেন, "শচীন নিজে হাতে আমায় গাড়ির চাবি দিয়েছেন৷ এটা আমার কাছে একটা বিরাট পাওনা৷ তাই এই গাড়ি ফিরিয়ে দেওয়ার কথা আমি ভাবতেও পারি না৷ আগরতলায় বিএমডাব্লিউ-র কোনও শোরুম বা সার্ভিস সেন্টার নেই৷ তাই হায়দ্রাবাদ ব্যাডমিন্টন সংস্থাকে বলেছিলাম এই গাড়িটির পরিবর্তে যদি অন্য কোনও গাড়ি দেওয়া যায়৷ তারাও এ বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে৷ এর বেশি আর কিছুই হয়নি৷"


মন্তব্য