kalerkantho


এবার আঘাত হানলেন শফিউল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ২১:১২



এবার আঘাত হানলেন শফিউল

আবার কি জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ২০১১ বিশ্বকাপের ফলাফলের পুনরাবৃত্তি হবে? সেবার শফিউল ইসলাম ব্যাটসম্যান হয়ে উঠে অবিশ্বাস্য ভাবে ম্যাচ জিতিয়েছিলেন। হারিয়েছিলেন ইংল্যান্ডকে।

আর আজ আবার সেই স্টেডিয়ামে ফাইনাল হয়ে ওঠা ম্যাচে প্রয়োজনের সময় শফিউল হানলের আঘাত। ইংল্যান্ডের তৃতীয় উইকেটটি তুলে নিয়েছেন তিনি। এখনো ম্যাচে আছে বাংলাদেশ। চলছে লড়াই। চট্টগ্রামে শেষ ম্যাচে এখন ৩২ ওভার শেষে ইংলিশদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৭৫। বাংলাদেশের দেওয়া ২৭৮ রানের টার্গেট তাড়া করছে তারা। বেন ডাকেট (৬২) ও বেন স্টোকস (২) ব্যাট করছেন।

শফিউল তুলে নিয়েছেন জনি বেয়ারস্টোর (১৫) উইকেট। বিপজ্জনক ডাকেটের সাথে তৃতীয় উইকেটে ৪৫ রানের জুটি গড়েছেন তিনি।

এর আগে ১২৭ রানের সময় স্যাম বিলিংসকে (৬২) ফিরিয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন। ৬৩ রানের সময় নাসির হোসেন তুলে নেন জেমস ভিন্সের (৩২) উইকেট।

প্রথম উইকেটে ৬৩, দ্বিতীয় উইকেটে ৬৪ এবং তৃতীয় উইকেটে ৪৫ রানের জুটি। কষ্ট হচ্ছে জুটি ভাঙতে। কিন্তু এখন নিয়মিত উইকেট না নিলে এই ম্যাচ হারতে হবে টাইগারদের। ম্যাচ হারলে হারতে হবে সিরিজও।

এর আগে স্পিনের কাছে বিপর্যস্ত হয়ে খুব বিপদেই ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ৭ ইনিংস পর ফিফটি করে মুশফিকুর রহিম স্লগ ওভারে বাঁচালেন বাংলাদেশকে। তার সাথে সপ্তম উইকেটে ৭১ বলে ৮৫ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়া মোসাদ্দেক হোসেনের বীরত্বের কথাও বলতে হবে। ১৯২ রানে ৬ উইকেট হারানোর পরও তাই লড়ার মতো স্কোর টাইগারদের। টস হেরে আগে ব্যাট করে ৬ উইকেটেই ২৭৭ রান করেছে। ৬২ বলে ৪ বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় অপরাজিত ৬৭ রান মুশফিকের। ৩৯ বলে ৪ চারে অপরাজিত ৩৮ রান মোসাদ্দেকের।

দারুণ গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে ব্যাটিংয়ে শুরু আর শেষে দারুণ টাইগাররা। মাঝখানে বেশ হতাশা। উদ্বোধনী জুটিতে তামিম ইকবাল (৬৮ বলে ৪৫) ও ইমরুল কায়েস (৫৮ বলে ৪৬ রান) ৮০ রানের জুটি গড়লেন। এরপর লেগ স্পিনার রশিদ ৪ উইকেট নেন তার টানা ১০ ওভারের স্পেলে। এক পর্যায়ে ১৬ রানের মধ্যে নামী ৩ ব্যাটসম্যান হারায় স্বাগতিকরা। ওখান থেকে রুখে দাঁড়ানো মুশফিক ও মোসাদ্দেকের ব্যাটে। মাহমুদ উল্লাহ (৬), সাব্বির রহমান (৪৬ বলে ৪৯), সাকিব আল হাসান (৪) ও নাসির হোসেনকে (৪) হারানোর পর মুশফিক ও মোসাদ্দেকের হার না মানা লড়াইয়ে লড়ার মতো পুঁজি পান বোলাররা।


মন্তব্য