kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এবার ভুটানের কাছেও হারল বাংলাদেশ!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ২১:২২



এবার ভুটানের কাছেও হারল বাংলাদেশ!

শেষ পর্যন্ত ভুটানের কাছেও হারের লজ্জায় ডুবল বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। সোমবার ভুটানের রাজধানী থিম্পুর চাংলিমিথাম স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এএফসি কোয়ালিফাইং রাউন্ডের প্লে অফ ম্যাচে স্বাগতিক দলের কাছে ৩-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে বাংলাদেশ।

এ পরাজয়ের ফলে এশিয়ান কাপের বাছাই পর্বে খেলার স্বপ্ন ধুলিসাৎ হলো বাংলাদেশের।

সর্বশেষ সাফ ফুটবলে গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিলেও ভুটানকে ঠিকই ৩-০ গোলে হারিয়েছিলো বাংলদেশ। আজ এশিয়ান কাপ বাছাই পর্বের প্লেঅফে সেই ভুটানের বিপক্ষেই আনাড়ি ফুটবলের এক মহড়ায় লিপ্ত হয়েছিল মামুনুল বাহিনী।

বাংলাদেশ যে আনাড়িপনা দেখিয়েছে তা অকপটে স্বীকারও করে নিয়েছেন দলের বেলজিয়ান কোচ টম সেইন্টফিট। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, এ হারের কোন জবাব তার কাছে নেই। খেলোয়াড়রা চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে এবং তাদের খেলা দেখে আমি চরমভাবে হতাশ ও দুঃখ পেয়েছি। মামুনুল থেকে শুরু করে হেমন্ত, এমিলিসহ সবাই বাজে পারফর্ম করেছে যার কোন কৈফিয়ত আমার কাছে নেই।

ম্যাচের চতুর্থ মিনিটের সময়ই দ্বিতীয় কর্নারে গোল আদায় করে ভুটান। প্রথমে জিগমে দর্জির দূরপাল্লার শট ডানদিকে ঝাপিয়ে পরে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন রানা। চাংনচোর কর্নার বাংলাদেশের গোলরক্ষক ফ্লাইড মিস করে রায়হান ক্লিয়ার করেন, ওই বলে জিগমে দর্জির শট আবার কর্নারে রক্ষা করেন চট্টগ্রাম আবাহনীতে খেলা এই গোলরক্ষক। এই কর্নার থেকেই হেডে গোল করেন জিগমে দর্জি। ২৭ মিনিটে আবারও গোল। এবার গোল খাওয়ালেন গোলরক্ষক নিজে। বক্সের মধ্যে উড়ে আসা একটি বল ক্লিয়ারে ব্যর্থ হন রানা। তার জায়গায় ফেরার আগেই হেড করে জালে জড়ান চাংনচো গ্রাস্টাইন (২-০)। ৩৪ মিনিটে শরীফকে উঠিয়ে জুয়েল রানাকে মাঠে নামান কোচ। গতি ফিরে খেলায়। নেমেই জুয়েল রানার শট পোস্টের উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। ৩৭ মিনিটে বলার মতো আক্রমণে যায় বাংলাদেশ। ডানদিক দিয়ে জুয়েলের বাড়ানো বলে জটলার মধ্যে মামুনুলের শট রক্ষা করেন ভুটানের গোলরক্ষক। কিছুটা গুছিয়ে আক্রমণে যাওয়ার চেষ্টা করে বাংলাদেশ। কিন্তু গোলমুখে জুয়েল রনির এলোমেলে শট জালের ঠিকানা খুঁজে পাচ্ছিলো না। ৫৮ মিনিটে রনির জায়গায় এমিলিকে নামান সেইন্টফিট। ৬৩ মিনিটে প্রথম গোলের দেখা পায় বাংলাদেশ। মামুনুলের ফ্রিকিকে রুবেল মিয়ার মাথা ছুয়ে জালে প্রবেশ করলে ব্যবধানে কমে (২-১)। ম্যাচের ৭২ মিনিটে হেমন্তের শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে হতাশায় পুরে সেইন্টফিটের শিষ্যরা। পরের মিনিটেই প্রতি আক্রমণ থেকে ভাগ্যগুণে রক্ষা পায় বাংলাদেশ। ৭৪ মিনিটে ম্যাচের সহজতম সুযোগ নষ্ট করেন এমিলি। হেমন্তের দারুন ক্রস এমিলির পায়ে লাগালেও তা চলে যায় গোলরক্ষের হাতে। পরের মিনিটেই আবদুল্লাহকে উঠিয়ে এনামুলকে মাঠে নামান কোচ। আর এর পরই চাংনচোর গোলে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ভুটান। এরপর ৮২তম মিনিটে পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। মামুন মিয়ার হাত দিয়ে আটকানোর কারণেই এই পেনাল্টি। তবে চাংনচোর পেনাল্টি রুখে দেন গোলরক্ষক রানা। এটি ভুটানের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম হার। এর আগে ঢাকায় বাছাই পর্বের প্লে অফের প্রথম ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছিলো।


মন্তব্য