kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মাশরাফির আঘাত সয়ে ইংল্যান্ডের প্রতিরোধ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:১৩



মাশরাফির আঘাত সয়ে ইংল্যান্ডের প্রতিরোধ

২৬ রানে ৪ উইকেট নেই ইংল্যান্ডের। এর ৩ উইকেট অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার।

একটি সাকিব আল হাসানের। চার ওভারের মধ্যে মাশরাফি এই কাণ্ড করে ধসিয়ে দিচ্ছিলেন ইংল্যান্ডকে। গুড়িয়ে দিয়েছেন টপ অর্ডার। কিন্তু তার প্রতিপক্ষ অধিনায়ক জস বাটলার রুখে দাঁড়িয়েছেন জনি বেয়ারস্টোকে নিয়ে। এই রিপোর্ট লেখার সময় ১৭ ওভারে ৪ উইকেটে ইংল্যান্ডের রান ৮২। বাটলার ৩৫ ও বেয়ারস্টো ২৫ রানে ব্যাট করছেন।  

ব্যাট হাতে শেষের ঝড়ে ২৯ বলে ৪৪ রান করেছেন। তাতে লড়ার মতো পুঁজি পেয়েছে টাইগাররা। ৮ উইকেটে ২৩৮। এরপর দশ ওভারের মধ্যে শীর্ষ ৪ ব্যাটসম্যান হারাল ইংলিশরা। মিরপুরে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অসাধারণ ওপেনিং স্পেল (৬-০-২১-৩) করলেন মাশরাফি। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে তাকে মারতে গিয়ে জেমস ভিন্স (৫) ক্যাচ দিয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেনকে। পরের ওভারেই সহ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান অসাধারণ এক স্পিন বলে বোল্ড করেছেন আগের ম্যাচে অভিষেকে ফিফটি করা বেন ডাকেটকে (০)। বল হাতে ইনিংস ওপেন করেছেন সাকিব। ১৪ রানে নেই ইংল্যান্ডের ২ উইকেট।

অষ্টম ও দশম ওভারে আবার আঘাত মাশরাফির। প্রাণের আনন্দে মেতে ওঠে চারদিক। জেগে ওঠে আশা। বিপজ্জনক ওপেনার জ্যাসন রয়কে (১৩) এলবিডাব্লিউর শিকার করেন মাশরাফি। ২৪ রানে  নিজের পরের ওভারে দারুণ বলে গত ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান বেন স্টোকসকে বোল্ড করে শূণ্য হাতে ফিরিয়ে দেন মাশরাফি। অসাধারণ বোলিং বাংলাদেশের। সাকিবের প্রথম স্পেল ৭-০-২৮-১।

টস হারা বাংলাদেশ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ছিল বিপদে। মাহমুদ উল্লাহ এর মধ্যে খেলেছেন খুব দায়িত্বশীল ইনিংস। ৮৮ বলে ৭৫ রানের ইনিংসটিকে সেঞ্চুরিতে রূপ দিতে না পারার হতাশা তার। হতাশা ইনিংসের শেষ পর্যন্ত ব্যাট করতে না পারার। এরপর যখন মনে হচ্ছে ৫০ ওভার পর্যন্ত খেলা যাবে কি না তখন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ব্যাটে ঝড় তোলেন। ২৯ বলে ৩টি ছক্কা ও ২টি বাউন্ডারি মেরেছেন। দারুণ মূল্যবান ৪৪ রান দিয়েছেন দলকে।  

চতুর্থ উইকেটে মাহমুদ উল্লাহ ৫০ রানের জুটি গড়েছেন মুশফিকুর রহীমের (২১) সাথে। ষষ্ঠ উইকেটে মোসাদ্দেকের (২৯) সাথে তার জুটি ৪৮ রানের। কিন্তু মাশরাফির ঝড়ে অষ্টম উইকেটে নাসিরের সাথেই ইনিংসের সেরা জুটি গড়ে ওঠে। ৪৯ বলে ৬৯ রান তারা দিয়েছেন দলকে। দুজন জুটি বাধেন ৪২তম ওভারে। মাশরাফির রান আউটে তা ভাঙে ইনিংস শেষ হওয়ার দুই বল আগে। বেশ কিছুদিন পর একাদশে ফিরে 'দ্য ফিনিশার' নাসির ২৭ বলে অপরাজিত ২৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেছেন।

বাংলাদেশের শুরুর সর্বনাশ করেন দুই পেসার ক্রিস ওকস ও গত ম্যাচে অভিষেকেই ৫ উইকেট নেওয়া জেক বল। ইনফর্ম দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস (১১) ও তামিম ইকবাল (১৪) ১ রানের ব্যবধানে ফিরেছেন। ২৬ রানে ২ উইকেট হারানো বাংলাদেশ সাব্বির রহমানকে (৩) হারায় ৩৯ রানে। মুশফিক-মাহমুদ উল্লাহর জুটির পর সাকিব আল হাসান (৩) ফেরেন দ্রুত। কিন্তু মাহমুদ উল্লাহ ও মোসাদ্দেক প্রতিরোধ গড়েন। কিনতু আদিল রমিদ পর পর দুই ওভারে তাদের ফেরালে মনে হয়েছিল গল্পটা শেষ হরো বলে! কারণ, ইদানিং শেষ দশ ওভারে বাংলাদেশের ইনিংস তো তাসের ঘর! কিন্তু ইংলিশদের ওপর শেষ ঝড়টা বইয়ে দিয়ে মাশরাফি তার বোলারদের দিয়েছেন লড়ার মতো পুঁজি।


মন্তব্য