kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


৫০ ওভার খেলা যাবে তো?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:৩৪



৫০ ওভার খেলা যাবে তো?

৫০ ওভার খেলা গেলে লড়ার মতো স্কোর মিলতে পারে। কিন্তু তা করা যাবে তো? লেগ স্পিনার আদিল রশিদ পর পর দুই ওভারে দুই সেট ব্যাটসম্যানকে তুলে নিলেন।

ফিরে গেলেন মাহমুদ উল্লাহ (৭৫) ও মোসাদ্দেক হোসেন (২৯)। ৪১.৪ ওভারে ৭ উইকেটে ১৬৯ রান বাংলাদেশের। এই ম্যাচে একাদশে ফেরা নাসির হোসেনের বড় পরীক্ষা এখন। তিনি ৪ রানে। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা যোগ দিয়েছেন তার সাথে।

সুইপ করতে গেলেন। কিন্তু ইংল্যান্ডের আপিলে মাহমুদ উল্লাহকে এলবিডাব্লিউ দিয়ে দিলেন আম্পায়ার। নিজের ওপর রেগে ফিরেই যাচ্ছিলেন মাহমুদ উল্লাহ। রিভিউর কথাও ভুলে গিয়েছিলেন। ফিরলেন। রিভিউ নিলেন। কিন্তু জীবন পেলেন না। সেঞ্চুরির সুবাস পাচ্ছিলেন। দলকে টেনে নেওয়ার ব্যাপারও ছিল। কিন্তু ৮৮ বলে ৭৫ রানে থামলো মাহমুদ উল্লাহর লড়াকু ইনিংস। ১৬১ রানে পড়ল বাংলাদেশের ষষ্ঠ উইকেট। এর ৮ রান পর নেই মোসাদ্দেক। মাহমুদ উল্লাহর সাথে ৪৮ রানের জুটি গড়েছিলেন তিনি।

১১৩ রানে সাকিব আল হাসানের (৩) বিদায়ের পর মোসাদ্দেক ও মাহমুদ উল্লাহ জুটি বেধেছেন। মিরপুরে এই দ্বিতীয় ওয়ানডেতে এই জুটি লড়ার মতো স্কোর দেওয়ার আভাস দিচ্ছিলেন। কিন্তু ৪৮ রানের জুটিটা ভাঙলেন লেগ স্পিনার আদিল রশিদ। সেটা ৪০তম ওভার। আরো দশ ওভার। কিন্তু ব্যাটসম্যানের ঘাটতি। এই ম্যাচ হারলে সিরিজ হারও নিশ্চিত বাংলাদেশের। ফিরতে তাই লড়ার মতো একটা স্কোর চাই।  

সাকিব আগের ম্যাচে দারুণ খেলেছিলেন। কিন্তু দলকে জেতাতে পারেননি। ৮৯ রানে ৪ উইকেট পড়ার পর সাকিব এলেন। কিন্তু মাত্র ৩ রান করে ফিরে গেলেন। এর মধ্যে ৫১ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ক্যরিয়ারের ১৬তম ফিফটি করেছেন মাহমুদ উল্লাহ। বিপদ ও চাপে তার গোটা ইনিংস খুব দায়িত্বশীল। চেনা মাহমুদ উল্লাহকে পাওয়া গেছে। মোসাদ্দেকের সাথে জুটিটা জমিয়ে ফেলার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু যা চেয়েছেন, মানে ইনিংস শেষ করার ইচ্ছে পূরণ করতে পারলেন না মাহমুদ উল্লাহ।
 
ক্রিস ওকস ও গত ম্যাচে অভিষেকেই নায়ক জেক বল বাংলাদেশের টপ অর্ডার ভেঙেছেন। দুই ইনফর্ম ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস দলের ২৬ রানের মধ্যেই ফিরে গেছেন। দুজনই ক্যাচ দিয়েছেন ওকসের বলে। ইমরুল ১১ রান করে দলের ২৫ রানে বিদায় নিলেন। পরের ওভারেই নেই ১৪ রান করা তামিম।

চাপে পড়া বাংলাদেশ আরো সতর্ক হয়ে গেল। কিন্তু আগের ম্যাচে অভিষেকেই ৫ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশকে ধসিয়ে দেওয়া জেক বল এবারও আঘাত হানলেন। মোসাদ্দেক হোসেন আগের ম্যাচে যেভাবে উইকেটে বল টেনে এনে বোল্ড হয়েছিলেন এবার সাব্বির হলেন তাই। ৩ রানে বিদায়। আগের ম্যাচে ছিল ১৮ রান। মাহমুদ উল্লাহ ও মুশফিকুর রহীম এরপর ৫০ রানের জুটি গড়লেন। কিন্তু বলের শর্ট বল খেলতে না পেরে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন মুশফিক (২১)। সাকিব এর ২৪ রান পর ফিরলেও জুটিতে তার রান সামান্য।


মন্তব্য