kalerkantho


ইংলিশ মিডিয়ায়ও বাংলাদেশের এমন হারে অবিশ্বাস!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ১১:৪৩



ইংলিশ মিডিয়ায়ও বাংলাদেশের এমন হারে অবিশ্বাস!

জেতা ম্যাচ কেউ এভাবে হারতে পারে তা নিয়েও অবিশ্বাস ইংল্যান্ডের মিডিয়ায়। তাদের সংবাদ পর্যালোচনা করে এটা স্পষ্ট যে ইংল্যান্ড মিরপুরে গেল রাতের ম্যাচটা জিতবে এমনটা ভাবেনি তারাও। ৪ উইকেটে ২৭১ থেকে ২৮৮ রানে অল আউট! যেখানে জয়ের টার্গেট ৩১০। ইংলিশ মিডিয়ায় তাই ইংল্যান্ডের ফিরে এসে ম্যাচ জেতার আলোচনার চেয়ে বাংলাদেশের হঠাৎই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়া নিয়ে বিস্ময়!

"বাংলাদেশ ২৮৮ রানে শেষ হয়ে গিয়ে উপহার দিল ইংল্যান্ডকে। " লিখেছে অভিজাত সংবাদপত্র গার্ডিয়ান। তাদের বিশ্লেষণ, "এক ঘণ্টারও কম সময় আগে ইংল্যান্ড নুয়ে পড়েছিল, ছিটকে পড়েছিল। দর্শকরা জয়োৎসব করছিল। চার দিনের মধ্যে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করেছেন ইমরুল কায়েস। সাকিব আল হাসানের সাথে তার ১১৮ রানের জুটি হয়েছে। ৫২ বলে যখন আর ৩৯ রান লাগে তখন এই দুজন স্বেচ্ছাচারী হয়ে উঠলেন। " অভিষেকে ৫ উইকেট নেওয়া জেক বলকে ম্যাচ ঘুরিয়ে জয় এনে দেওয়ার জন্য প্রশংসায় ভাসিয়েছে তারা।

আরেক বিখ্যাত সংবাদপত্র টেলিগ্রাফের শিরোনাম, "প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে হারাল ইংল্যান্ড। অভিষেকে জেক বল ছিনিয়ে আনলেন অসম্ভব জয়। " তারা লিখেছে, "৪ উইকেটে ২৭১ রান করে জয়ের দোরগোড়ায় ছিল বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান ও ইমরুল কায়েস ফিরিয়ে আনছিলেন গত দুই বিশ্বকাপে হারের দুঃসহ স্মৃতি। ৩১০ রানের টার্গেট জয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল তারা। " এরপর যা হলো তা দেখে তাদের ঘোর কাটেনি!

ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের শিরোনাম, "ইমরুলের সেঞ্চুরির পরও প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে হারাল ইংল্যান্ড। জেক বল ও আদিল রশিদ ঢাকায় অসাধারণ ভাবে ফিরিয়েছেন দলকে। " তারা লিখেছে, "নিশ্চিত ভাবেই বড় হারের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপে বিব্রত করা ভূতকে ফিরিয়ে আনা বাংলাদেশের সামনে ৮ উইকেটে ৩০৯ রান একদমই অপর্যাপ্ত মনে হচ্ছিল। কিন্তু জেক বল ও আদিল রশিদ ছিনিয়ে আনলেন ২১ রানের জয়। "

সব সংবাদপত্রের ভাষা প্রায় এক। শিরোনামেও দারুণ মিল। যেখানে ইংল্যান্ডে জিতবে এমন ভাবনা নেই। বরং আরেকবার বাংলাদেশের কাছে হার মেনে নেওয়ার মানসিক প্রস্তুতি স্পষ্ট। ট্যাবলয়েড মিরর লিখেছে, "ইমরুল কায়েসের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশ ইংল্যান্ডের রান পেরিয়ে যাবে বলেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু ৭৯ রান করা সাকিব আল হাসানের বিদায়ে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে তারা। "


মন্তব্য