kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ইমরুলের ফিফটিতে টাইগারদের ১০০

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:১৩



ইমরুলের ফিফটিতে টাইগারদের ১০০

একাদশে ফিরেই ফিফট করলেন ইমরুল কায়েস। ৫৫ বলে ৫৩।

লাল-সবুজের জার্সি শরীরে চার ম্যাচে তৃতীয় ফিফটি তার। এদিন ইনিংসের তৃতীয় বলেই দারুণ ছক্কা মেরেছেন ইমরুল। প্রবল আত্মবিশ্বাসে খেলে যাচ্ছিলেন। ডেভিড উইলিকেও ছক্কা হাঁকালেন। কিন্তু উইলিই অসাধারণ এক ক্যাচ নিলেন। তাতে সাব্বির রহমানের সাথে জমে উঠতে যাওয়া একটু জুটি ভেঙে গেল। ওখানে দ্বিতীয় ধাক্কা খেল বাংলাদেশ। তবে সঠিক সময়েই ক্যারিয়ারের ১৩তম ফিফটিটা তুলে নিয়েছেন ইমরুল। এই রিপোর্ট লেখার সময় ১৮ ওভারে ২ উইকেটে ১০০ রান টাইগারদের। ইমরুল ৫৪ ও মাহমুদ উল্লাহ ৫ রানে ব্যাট করছেন।   তাদের সামনে ৩১০ রানের জয়ের টার্গেট। আগে ব্যাট করে বেন স্টোকসের ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরিতে ৮ উইকেটে ৩০৯ রান তোলে ইংল্যান্ড।

মিরপুরে এই প্রথম ওয়ানডেতে রেকর্ড গড়ে জেতার চ্যালেঞ্জের মুখে টাইগাররা। দেশের মাটিতে ৩০০ এর বেশি রান তাড়া করে জেতার একটি মাত্র রেকর্ড বাংলাদেশের। সেটি ২০১৩ সালের। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ফতুল্লায় নিউজিল্যান্ড ৫ উইকেটে ৩০৭ রান করেছিল। জবাবে, ৪ বল বাকি থাকতে ৬ উইকেটে ৩০৯ রান করে ৪ উইকেটে জিতেছিল টাইগাররা। সেই জয়কে ছাড়িয়ে যাওয়ার চ্যালেঞ্জ এখন মাশরাফি বিন মুর্তজার দলের সামনে।

সেই চ্যালেঞ্জে ইমরুলের আক্রমণে শুরুটা নেহাত খারাপ হয়নি। প্রস্তুতি ম্যাচে ইংল্যান্ডেরই বিপক্ষে ৯১ বলে বিস্ফোরক ১২১ রানের ইনিংসের আত্মবিশ্বাস নিয়ে জাতীয় দলের একাদশে ফিরেছেন ইমরুল। তামিম ইকবালের সাথে ৯ ওভারে ৪৫ রান এল। কিন্তু অভিষিক্ত জ্যাক বল তার প্রথম ওভারেই ফিরিয়ে দিলেন ১৭ রান করা তামিমকে। এরপর দুই প্রান্ত থেকেই আক্রমণের মুখে পড়ে ইংলিশরা। কিন্তু ১১ বলে ১৮ করে ফিরতে হয় সাব্বিরকে। বলকে ছক্কার মার দিয়েছিলেন। বাউন্ডারি লাইনে বলটা ধরে মাঠের বাইরে চলে যাওয়ার আগে উইলি বলটাকে ছেড়ে মাঠেই রেখেছেন। তারপর লাফ দিয়ে মাঠে ঢুকে বল ধরেছেন আবার। সাব্বিরের বিদায় তাতে।

এদিন ৬৩ রানে ৩ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। জেমস ভিন্স (১৬), জ্যাসন রয় (৪১) ও জনি বেয়ারস্টো (০) ফিরেছেন। শফিউল, সাকিব ও সাব্বিরের দারুণ থ্রোর ফল। এরপর ২৬.৩ ওভারে ১৫৩ রানের জুটি গড়েন স্টোকস ও অভিষিক্ত ২১ বছরের বেন ডাকেট। কিন্তু তাসকিনের বলে ৬৯ রানের সময় মাহমুদ উল্লাহ ক্যাচ ছাড়লে বেঁচে যান স্টোকস। পরের ওভারে ব্যক্তিগত ৭১ রানে স্টোকস আরেকটি জীবন পান অধিনায়ক মাশরাফির বলে মোশাররফ ক্যাচ ছাড়লে। শেষ পর্যন্ত ১০১ রান করে মাশরাফির শিকার হন স্টোকস।

বেন ডাকেট তার আগে ৬০ রান করে ফিরেছেন। তবে অধিনায়ক জস বাটলার তাণ্ডব চালালেন। ৩৮ বলে করেছেন ৬৩। যদিও ৩৯ রানে জীবন পেয়েছেন। ক্রিস ওকসের সাথে ওভার প্রতি ১১'র বেশি গড়ে ৬৩ রানের জুটি গড়ে গেছেন বাটলার। স্পিনারদের এমন চমৎকার খেলেছেন ইংলিশ বোলাররা যে মোশাররফ ও মাহমুদ উল্লাহ ৩ ওভারের বেশি বল করতে পারেননি। মাশরাফি, সাকিব ও শফিউল দুটি করে উইকেট নিয়েছেন।   


মন্তব্য