kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ইমরুল কায়েসের বিস্ফোরক সেঞ্চুরি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ অক্টোবর, ২০১৬ ১২:৪৬



ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ইমরুল কায়েসের বিস্ফোরক সেঞ্চুরি

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে বিস্ফোরক এক সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ইমরুল কায়েস। বিসিবি একাদশের পক্ষে ইনিংস ওপেন করে মাত্র ৮১ বলে সেঞ্চুরিতে পৌঁছেছেন ৯টি চার ও ৪টি ছক্কায়।

ডান হাতি এই ব্যাটসম্যান সেই সাথে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে খেলার দাবিটাও জোরালো করেছেন। সৌম্য সরকার (৭) এই ম্যাচেও ব্যর্থ হয়েছেন। এই রিপোর্ট লেখার সময় ফতুল্লায় আগে ব্যাট করা বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৮.৫ ওভারে ৩ উইকেটে ১৯১। মাত্র ৯১ বলে ১১টি চার ও ৬টি ছক্কার মারে ১২১ রান করে আউট হয়েছেন ইমরুল মাত্রই।

টেস্টে নিয়মিত হলেও সীমিত ওভারের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দলে জায়গা নিশ্চিত থাকে না ইমরুলের। এটাকে তিনি মানেন দুর্ভাগ্য হিসেবে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৩৭ রান করেছিলেন। তামিম ইকবালের সাথে ৮৩ রানের জুটিতে প্রাথমিক ধাক্কা সামলেছিলেন। কিন্তু পরের দুই ওয়ানডেতে আর একাদশে রাখা হয়নি তাকে। অথচ তার আগেই গত নভেম্বরে বাংলাদেশের খেলা শেষ দুই ওয়ানডেতে ৭৩ ও ৭৬ রানের ইনিংস খেলেছেন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তামিমের সাথে ওপেন করে শেষ ম্যাচ ১৪৭ রানের জুটিও গড়েছিলেন।

একটু ধীরে ইনিংস গড়েন। এমন দুর্নাম দেওয়া হয় ২৯ বছরের ইমরুলকে। সেটা মাথায় রেখেই বুঝি অন্যরকম জেদ থেকে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে আজ মঙ্গলবার শুরু করেছিলেন। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। প্রথম ওভারে ক্রিস ওকসকে একটি বাউন্ডারি মারার পরের ওভারে ডেভিড উইলিকে দুটি চারের মার মারেন ইমরুল। চতুর্থ ওভারে উইলিকেই ইনিংসের প্রতম ছক্কাটি মারেন। পঞ্চম ওভারে সৌম্য বিদায় নিলে তরুণ নাজমুল হোসেন শান্তকে (৩৬) নিয়ে একটু ধীর হলেন ইমরুল। হলো ৪৫ রানের জুটি। লেগ স্পিনার আদিল রশিদ অবশ্য তার ছক্কার শিকার হয়েছেন। ৪৬ বলে ফিফটি করেছেন ইমরুল।

ফিফটির পর আরো দ্রুত ছুটেছেন ইমরুল। আর মাত্র ৩৫ বল খেলেই তিন অংকের ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছে গেছেন। এই ম্যাচেই শেষ মুহূর্তে যোগ হয়েছেন মুশফিকুর রহিম। তার সাথে ৭১ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি ইমরুলের। দুই স্পিনার মঈন আলি ও আদিলকে পরপর দুই ওভারে দুই ছক্কা মেরে ৯০ এর ঘরে পৌঁছেছেন ইমরুল। এরপর সিঙ্গেল নিয়ে সেঞ্চুরিতে পা রাখার পর আরো রুদ্ররূপ তার। ১০০ করেই পরের ১০ বলে দুটি করে চার ও ছক্কা মেরেছেন ইমরুল। উইলির ওভারে তিন বলে দুই ছক্কা মেরে তার বলেই বোর্ড হয়ে ফিরেছেন। ইমরুলের আগ্রাসনে ৩০ ওভারের মধ্যে দুই শ পেরিয়েছে বিসিবি একাদশ। মুশফিক ও নাসির হোসেন এরপর জুটি বাধেন। স্বাগতিক দলের সামনে বড় সংগ্রহের হাতছানি তখন।


মন্তব্য