kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ছুটির দিনে কোনো ক্রিকেট ম্যাচ নয়!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:০১



ছুটির দিনে কোনো ক্রিকেট ম্যাচ নয়!

ছুটির দিনে ব্যাট-বল নিয়ে মাঠে কিংবা পাড়ার গলিতে দিনভর ক্রিকেট পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই এখন পরিচিত দৃশ্য। আবার ছুটির দিনে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ মানেই কয়েকগুণ বেশি টিকিট বিক্রি।

দর্শকে উপচেপড়া স্টেডিয়াম। বাণিজ্যিক সফলতা। অদ্ভূত ব্যপার হলো  ছুটির দিনে ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন না করার দাবি জানিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার একটি সহযোগী ক্রিকেট সংস্থা।

ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (ডাব্লিউপিসিএ) পক্ষ থেকে আফ্রিকান ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা (সিএসএ)-এর কাছে এ বিষয়ে একটি আবেদন জানানো হয়েছে। সেই আবেদনে ইস্যুটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের হর্তাকর্তা আইসিসির কাছে তুলে ধরারও অনুরোধ জানানো হয়েছে। মজার ব্যপার হলো, সিএসএ নাকি এরইমধ্যে সাড়াও দিয়েছে!

ডব্লিউপিসিএর মুখপাত্র ডাইয়েন বলেছেন, “আমরা সাউথ ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকার পক্ষ থেকে সাড়া পেয়েছি। তবে মন হয় না আমাদের আবেদন সফল হবে। ”

২০১২ সালে নিউল্যান্ডে একটি ওয়ানডে ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল আফ্রিকা। সেই দিনটি ছিল ইহুদীদের জন্য একটি ধর্মীয় দিন ‘জিউইশ হলিডে’। এদিন প্রার্থনায় মগ্ন থাকেন ইহুদীরা। এই যুক্তিতে ওই দিনটিতে ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন না করার আবেদন জানায় ডব্লিউপিসিএ।

তবে এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইসিসির মুখপাত্র সামি উল হাসান বলেছেন, “দক্ষিণ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার সেই সিরিজটির শিডিউল আইসিসি নির্ধারণ করেনি। দুই দেশ তাদের মধ্যে সমঝোতা করেই শিডিউল নির্ধারণ করেছে। তাই এ ব্যাপারে আইসিসিকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। ”

কেপটাউনের জিউইশ হলিডে পন্থীরা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, এদিন তারা কোনো ম্যাচ আয়োজন করতে পারবেন না। এমনকী এদিনে তারা ক্রিকেট খেলা দেখবেনও না। সব মিলিয়ে মোটের উপর কঠিন ‘আন্দোলনে’ নেমেছেন তারা। হলিডে পন্থীরা মনে করেন, জিউইশ পন্থী ক্রিকেট ভক্তদেরও খেলা দেখার অধিকার আছে। তাই ধর্মীয় দিনগুলোর প্রতি আইসিসির নজর দেওয়া উচিৎ। যদি আইসিসির এফটিপি অনুযায়ী ঐদিন কোনো ম্যাচ পড়ে যায় তবে তা পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান তারা। প্রার্থনা বাদ দিয়ে ক্রিকেট খেলা মোটেও ভাল কথা নয়।

তবে যদি ডব্লিউপিসিএর দাবি মেনে নিয়ে জিউইশ হলিডের দিন দক্ষিণ আফ্রিকা সত্যি সত্যি তাদের খেলার শিডিউল পরিবর্তন করতে চায় তবে কী হবে-এ বিষয়ে মুখ খোলেননি সামি উল হাসান। এখন সময়েই বলে দেবে ছুটির দিনে ক্রিকেট মাঠে গড়ায় কিনা।


মন্তব্য