kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


টাইগারদের হারিয়েই দিল আফগানরা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৩৮



টাইগারদের হারিয়েই দিল আফগানরা!

আবার টাইগারদের হারাল আফগানরা। তবে বেশ কষ্টে।

অনেক লড়াইয়ের পর। আগের ম্যাচের মতো ফেরা হল না টাইগারদের। তাদের দেওয়া ২০৯ রানের টার্গেট জয় করে সিরিজে টিকে থাকল আফগানিস্তান। মিরপুরে বুধবার দ্বিতীয় ওয়ানডেটা তারা জিতেছে ২ উইকেটে। ২ বল বাকি থাকতে। সিরিজে ১-১ এ সমতা আনল তারা। এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ জয় তো হলোই না। শততম ওয়ানডে জয়ের জন্য বাংলাদেশকে আরো অপেক্ষায় থাকতে হলো।

৪৮তম ওভারের শেষ বল এই ম্যাচের সবচেয়ে আলোচিত চরিত্র মোসাদ্দেক হোসেনের। মুশফিকুর রহিম নিশ্চিত স্ট্যাম্পিংয়ের সুযোগ হারালেন বল ধরতে না পেরে। নাজিবুল্লা জারদান বাঁচলেন। ১৩ রান দরকার আফগানদের তখন। বল বাকি আর ১৮টি। উইকেট ৩টি। পরের ওভারে তাইজুল দিলেন ২। আগের ৯ ওভারে মাত্র ২১ রান দেওয়া মোসাদ্দেক এবার দিলেন ৯। শেষ ওভারে ২ হলেই জেতে আফগানিস্তান। তাসকিন আহমেদ দুই ডটের পর ওয়াইড দিলেন! স্কোর সমান! পরের বলে তাসকিনের বলে নাজিবুল্লার (২২) ক্যাচ নিলেন মোসাদ্দেক। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সব ফিল্ডারকে সার্কেলের মধ্যে নিয়ে এলেন। কিন্তু তাদের মাথার ওপর দিয়ে চার মেরে দিলেন দৌলত জাদরান। ২০১৪ এর মার্চের পর আবার বাংলাদেশকে হারালো আফগানিস্তান। চার ম্যাচের মুখোমুখিতে এখন ২-২ এ সমতা।

আফগানরা ম্যাচ জিতলেও বলতে পারবে না সহজে জিতেছে। তাদের স্পিনে নাকাল হয়ে টাইগাররা ১৪১ রানে ৭ উইকেট হারায়। অভিষেক ম্যাচ খেলতে নেমে পরিণত মানসিকতার পরিচয়ের দেখা মেলে মোসাদ্দেকের ব্যাটে। ৪৫ বলে ইনিংস সর্বোচ্চ ৪৫ রানে অপরাজিত থাকেন কঠিন পরিস্থিতিতে টেল এন্ডারদের নিয়ে ব্যাট করে। তাইজুল ইসলামের (১০) সাথে অষ্টম উইকেটে ২৪ ও শেষ উইকেটে রুবেল হোসেনের (১০) সাথে ৪৩ রানের জুটি তার। ২ বল বাকি থাকতে অল আউট বাংলাদেশ।

স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদের ডুবিয়েছে আফগানদের স্পিন। অফ স্পিনার মোহাম্মদ নবি ২, লেগ স্পিনার রশিদ আলি ৩ ও অন্য লেগি রহমত শাহ ১টি করে উইকেট নেন। এক পর্যায়ে ৩ রানে ৩ উইকেট নিয়েছে তারা। ১৯ রানে ৪ উইকেট। তার আগে তামিম ইকবাল (২০) ও সৌম্য সরকার (২০) ৪৫ রানের জুটি গড়েন। মাহমুদ উল্লাহ (২৫) ও মুশফিকুর রহিম (৩৮) মিলে ৬১ রানের জুটি দেন তৃতীয় উইকেটে। কিন্তু তারপরই ধ্বস নামে।

এরপর নতুন বলে সাকিব চতুর্থ ওভারে দুই উইকেট নিয়েছেন। ব্রেক থ্রু পেতে মোসাদ্দেকের দিকে হাত বাড়ালেন মাশরাফি। মোসাদ্দেক প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ওয়ানডেতে ক্যারিয়ারের প্রথম বলে উইকেট নিয়ে ইতিহাস গড়লেন। সাকিব ফিরে তুলে নিলেন বিপজ্জনক মোহাম্মদ শাহজাদকে (৩৫)।

৬৩ রানে ৪ উইকেট হারানো আফগানদের হাত থেকে ম্যাচটা কেড়ে নেওয়ার আয়োজন করেছিল টাইগাররা। কিন্তু পঞ্চম উইকেটে ১০৭ রানের জুটি গড়লেন মোহাম্মদ নবি (৪৯) ও অধিনায়ক আসগর স্তানিকজাই (৫৭)। শেষ ১১ ওভারে ৩৯ রান দরকার। তখনো এই দুই ব্যাটসম্যান উইকেটে। মাশরাফি নিজে ফেরালেন নবিকে। মোসাদ্দেকের উইকেট মেডেন। নেই স্তানিকজাইও। ১৭৪ রানে পড়ে ষষ্ঠ উইকেট। সাকিব নিজের শেষ ওভারে তুলে নেন রাশিদকে। কিন্তু ছোট্ট অথচ গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস শেষে খেলেন নাজিবুল্লা।

আগের ম্যাচের মতো এবারো শেষ ১০ ওভারে অসাধারণ ফেরার গল্প লিখতে লিখতেও তা শেষ করা হলো না টাইগারদের। মোসাদ্দেকের স্বপ্নের অভিষেক, ৩০ রানে ২ উইকেট। এক ভেন্যুতে ১০০ উইকেট নেওয়া মাত্র তৃতীয় বোলার সাকিব। ৪৭ রানে ৪ উইকেট। কিপ্টে বোলিং মাশরাফিরও। ৩১ রানে ১ উইকেট। কিন্তু শেষটা আর বাংলাদেশের হলো না। আইসিসির সহযোগী সদস্য দেশ আফগানিস্তানের কাছে হারের লজ্জাটা আবার পেতেই হল!  


মন্তব্য