kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিততে চায় টাইগাররা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:০৪



এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিততে চায় টাইগাররা

টানা ৫টি সিরিজ জয়! ওয়ানডে ইতিহাসে এমন ঘটনাই এর আগে আছে মাত্র ১৪টি। বাংলাদেশের সামনে ১৫তম ঘটনাটি ঘটানোর সুযোগ।

বুধবার আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে। মিরপুরে টাইগাররা জয়ের উল্লাস মানে দুটি গৌরব তাদের। ১০০তম ওয়ানডে জয় এবং টানা পঞ্চম সিরিজ জয়। ১ ম্যাচ হাত রেখেই সিরিজের ট্রফি নিশ্চিত। ৩ ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেটি শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়।

ঘরের মাটিতে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল আসলে একের পর এক ওয়ানডে জিতে চলেছে। গত বছরের মাঝামাঝিতে শুরু। ২০১৫ সালের নভেম্বর পর্যন্ত হারিয়েছিল পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত ও জিম্বাবুয়েকে। দশ মাসের বিরতির পর এবার আফগানদের বিপক্ষে জয়ের পালা। তবে প্রথম ম্যাচে বোঝা গেছে টাইগাররা আরো সতর্ক না হলে বিপদও ঘটে যেতে পারে।

শেষ পর্যায়ে দারুণ উত্তেজনার ম্যাচ হয়ে ওঠে ওটি। সাকিব আল হাসান ভেঙেছিলেন রহমত শাহ ও হাশমতুল্লা শাহিদির রেকর্ড তৃতীয় উইকেট জুটি। এরপর জয়ের জন্য যখন আফগানদের ২৮ রান দরকার তখন ৪৭তম ওভারে দিলেন মাত্র এক রান। তাসকিন আহমেদ ৪৮ ও ৫০তম ওভারে সর্বনাশ করেন প্রতিপক্ষের। নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরেই নেন ৪ উইকেট। তাতেই সর্বনাশ হয় আফগানদের। তাদের হাত থেকে জয় কেড়ে নেয় টাইগাররা।

প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান বলেই হয়তো ব্যাপারটা সম্ভব হয়েছে।   সেই সাথে হুশিয়ারি সঙ্কেতও পেয়েছে বাংলাদেশ। মাশরাফি তাই মঙ্গলবার দলকে আরো ভালো খেলার তাগিদ দিয়েছেন। টাইগারদের যে আরো আধিপত্য দেখিয়ে জেতা উচিৎ সেই দিকে ইঙ্গিত করতেও ভুল হয়নি তার।

সবকিছু ঠিক থাকলে প্রথম ম্যাচের একাদশ নিয়েই মাঠে নামবে বাংলাদেশ। সেদিন সৌম্য সরকার প্রথম ওভারেই বিদায় নিলেন। ইমরুল কায়েস এসে তামিম ইকবালের সাথে বেশ সামলে নিলেন ধাক্কাটা। তরুণ মোসাদ্দেক হোসেনের অভিষেকের জন্য তাই অপেক্ষায় থাকতে হবে। বোলিং ছিল চমৎকার। তাইজুল ইসলাম ফিরে মন্দ করেননি। সুতরাং, নাসির হোসেন ও শফিউল ইসলামের একাদশে ঢোকারও সুযোগ দেখা যাচ্ছে না।

আফগানরা বুঝেছে তাদের আরো ভালো খেলতে হবে। ভেঙে পড়লে চলবে না। বাংলাদেশ যে কোনো পরিস্থিতিতে তাদের বিপক্ষে ম্যাচ জিততে পারে। একেবারে খাদের কিনারা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রতিপক্ষকে এক ধাক্কায় ফেলে দিতে জানে গভীর খাদে। আসগার স্তানিকজাইয়ের দলের যে মনস্তাত্বিক লড়াইয়ে আরো দৃঢ়তার পরিচয় দিতে হবে তা স্পষ্ট। বিশেষ করে তারা যখন আইসিসির সহযোগী সদস্য দেশ, র‌্যাঙ্কিংয়ে দশ, তখন টানা জয়ে থাকা বিশ্বের ৭ নম্বর দল বাংলাদেশের নিজেদের মাটিতে খুবই বড় প্রতিপক্ষ বটে।


মন্তব্য