kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গাভাস্কারের যে রেকর্ডের ভাগিদার শুধুই হান্নান সরকার!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:৩৬



গাভাস্কারের যে রেকর্ডের ভাগিদার শুধুই হান্নান সরকার!

সুনিল গাভাস্কার টেস্ট ইতিহাসে ১০ হাজার রান করা প্রথম ব্যাটসম্যান। যে রেকর্ড দীর্ঘদিন ধরে ছিল তার একারই।

১২৫ টেস্ট খেলেছিলেন। বাংলাদেশের টেস্ট ইতিহাসের প্রথম দিককার ব্যাটসম্যান হান্নান সরকার। গাভাস্কারের মতো তিনিও ওপেনার। খেলেছেন মোটে ১৭ টেস্ট। রান ৬৬২। কিন্তু গাভাস্কারের সাথে একটি রেকর্ড ভাগাভাগি করছেন শুধুই এই টাইগার! আর খুবই আলোচিত এক রেকর্ড বটে। যেটি সামনে আসলে শুধু হান্নান কেন, গাভাস্কারও নিশ্চয়ই লাজুক হাসি দেন!

টেস্ট ক্রিকেটের একেবারে প্রথম বলে আউট! কিংবদন্তি গাভাস্কারের ক্যারিয়ারে এমন ঘটনা ঘটেছে তিনবার! দীর্ঘ ১৭ বছর একা একাই এই ব্যক্তিগত লজ্জার এই রেকর্ড বয়ে বেড়িয়েছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক। তারপর তার পাশে গিয়ে দাঁড়িয়েছেন হান্নান।

ইতিহাসের অন্যতম সেরা ওপেনার গাভাস্কার এই কাণ্ডের প্রথম শিকার ১৯৭৪ সালে। এজবাস্টন টেস্ট। ইংল্যান্ডের ফাস্ট বোলার জেফ আর্নল্ডের বলে উইকেটের পেছনে অ্যালান নটকে ক্যাচ দিলেন গাভাস্কার। পরের ইনিংস করেছিলেন ৪। ভারত ওই ম্যাচ হারে ইনিংস ও ৭৮ রানে। গাভাস্কারের আগে এই রেকর্ডের পাতায় ছিলেন আরো ৯ জন ক্রিকেটার। তবে তিনি প্রথম উপমহাদেশীয় ও ভারতীয়।

গাভাস্কারের টেস্টে প্রথম বলে আউট হওয়ার দ্বিতীয় ঘটনাটি কলকাতায়। ১৯৮৩ সাল। বিখ্যাত ম্যালকম মার্শালের বলে উইকেটরক্ষক জেফ ডুজনের হাতে ধরা পড়েন। প্রথম টেস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে দুইবার এমন ঘটনার শিকার হলেন তিনি। পরের ইনিংসে গাভাস্কার করলেন ২৪। ভারত ম্যাচ হারলো ইনিংস ও ৪৬ রানে। তৃতীয়বার এই ঘটনার শিকার গাভাস্কার ১৯৮৭ সালে। জয়পুরে কিংবদন্তি ইমরান খানের বলে জাভেদ মিয়াদাদের হাতে ক্যাচ দিলেন। পরের ইনিংসে গাভাস্কার ২৪ রান করলেও ম্যাচটা ড্র হয়েছিল।

সোয়া শ টেস্টে তিনবার এমন ঘটনা! হান্নানের কারণে হয়ত মাফ পেয়ে যেতে পারেন গাভাস্কার! গাভাস্কারের আগে ও পরে হান্নান ছাড়া টেস্টের একেবারে প্রথম বলে দুইবার আউট হওয়ার নজিরও নেই। হান্নানের পর এই ঘটনার শিকার আরো ছয়জন। তাদের মধ্যে একজন আবার ক্রিস গেইলও!

দুর্ভাগা হান্নান! টেস্টে তখন বাংলাদেশের হাঁটি হাঁটি পা। তখনই কি না এই কাণ্ড! ওই রেকর্ডের পাতায় ঢুকতে গাভাস্কারের লেগেছিল ১৩ বছর। আর মাত্র ১৮ মাসের মধ্যেই তিনবার একই কীর্তি করে গাভাস্কারের রেকর্ডের একমাত্র ভাগিদার হান্নান! গাভাস্কার তিনবারই ব্যাটে লাগিয়ে আউট হয়েছেন। হান্নান তিনবারই বল ছেড়ে গিয়ে উইকেট হারিয়েছেন। ভুল জাজমেন্টের শিকার। প্রতিবার প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বোলার একজনই। পেসার পেদ্রো কলিন্স। দুইবার এলবিডাব্লিউ। একবার বোল্ড।

হান্নানের প্রথম ঘটনাটি ২০০২ সালের। তিনি তখন ২০ বছরের। ২০০২ এর ডিসেম্বর। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম। কলিন্সের বলে বোল্ড হান্নান। নিজেই বুঝলেন না কি হলো। পরের ইনিংসে অবশ্য ২৫ রান করেছিলেন। কিন্তু টাইগাররা ইনিংস ও ৩১০ রানে হেরেছিল ম্যাচ। ভৌতিক এই কাণ্ড হান্নানের জীবনে ফিরে আসে ২০০৪ এর ২৮ মে, সেন্ট লুসিয়া টেস্টে। কলিন্সের বলে এবার এলবিডাব্লিউ। পরের ইনিংসে ৪ রান হান্নানের। কিন্তু খালেদ মাসুদ পাইলটের বীরত্বপূর্ণ সেঞ্চুরিতে ম্যাচটি ড্র করেছিল বাংলাদেশ। এই প্রথম খেলে ড্র।

রেকর্ডের পাতায় গাভাস্কারের দীর্ঘ একাকিত্ব দূর করার ম্যাচটি হান্নান খেললেন দ্বিতীয় কাণ্ডের ক'দিন পরই। মানে একই সফর ও সিরিজে। ওটি জুনের ঘটনা। আবার টেস্টে প্রথম বলেই কলিন্সের বলে এলবিডাব্লিউ মানসিক চাপে পড়ে যাওয়া হান্নান। বিধ্বস্ত ব্যাটসম্যানকে পরের ইনিংসে আর প্রথম বল সামলাতে দেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। সামলেছিলেন জাভেদ ওমর। কিন্তু হান্নান ১৫ বলে ১০ রান করে সেই কলিন্সেরই বলে এলবিডাব্লিউ হয়েছিলেন।

এরপর অক্টোবরে নিউজিল্যান্ডের সাথে খেলা ম্যাচটি হয়ে আছে হান্নানের ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট। যে ধাক্কা খেয়েছিলেন তা থেকে আর ফিরে আসা হয়নি তার। দুঃস্বপ্নের মতো অভিজ্ঞতা সঙ্গী করে শেষ হয়েছে প্রতিভাবান হান্নানের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার।


মন্তব্য